২৫ মণের ‘কালুর’ দাম ১২ লাখ টাকা

প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২১; সময়: ১১:০২ am |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : তিন বছর ছয় মাস বয়সের ষাঁড়টির নাম ‘কালু’; ওজন ২৫ মণ। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে আল আকসা গরুর খামারে রয়েছে ওই ফ্রিজিয়ান জাতের ষাঁড়টি। খামারের উদ্যোক্তা শহিদুল ইসলাম শিমুল ওই ষাঁড়টির নাম দিয়েছেন কালু। এবারের ঈদুল আজহার বাজারে গরুটির ১২ লাখ টাকা মূল্য হাঁকিয়েছেন শহিদুল।

ফ্রিজিয়ান জাতের গরুটি নজর কেড়েছে এলাকাবাসীর। ধারণা করা হচ্ছে, চৌদ্দগ্রামে এবারে কালুই হতে যাচ্ছে সবচেয়ে বড় এবং আকর্ষণীয় গরু। খবর বাসসের।

জানা যায়, গরুটি দেখতে প্রতিদিন মানুষের ভিড় বাড়ছে চৌদ্দগ্রামের কনকাপৈত ইউনিয়নের জাগজুর গ্রামের শহিদুল ইসলাম শিমুলের খামার আল আকসায়।

খামারটিতে উল্লেখিত দুটি গরু ছাড়াও আরও বিভিন্ন জাতের ৩৫টি গরু রয়েছে। সবগুলো গরুই আসন্ন কোরবানির ঈদের বাজারে বিক্রি করবেন বলে জানিয়েছেন খামারি শিমুল।

তরুণ উদ্যোক্তা শহিদুল ইসলাম শিমুল বলেন, ফ্রিজিয়ান জাতের কালু গরুটিকে অত্যন্ত যত্ন সহকারে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক খাবারের মাধ্যমে লালন-পালন করা হয়েছে। সুষম খাদ্যের সংকট পূরণে খামার এবং এর পাশে বিপুল পরিমাণ ঘাসের চাষাবাদ করা হয়েছে।

চাষের ঘাস ছাড়াও প্রতিদিন ভুট্টা, খৈল, ভুষি এবং মুশরি ও বুটের ডালের কন্নি খাওয়ানো হয় কালুকে। গড়ে প্রতিদিন ১৫০০ টাকা ব্যয় হয়েছে গরুটির লালন-পালনে।

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মজিবুর রহমান জানান, এবারের ঈদুল আযহায় চৌদ্দগ্রামে ৩৬টি স্থানে গবাদি পশুর হাট বসবে। ভারতীয় গরু না আসলে খামারিরা তাদের গরুগুলো ভালো দামে বিক্রি করতে পারবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মনজুরুল হক জানান, প্রতিটা গরু বাজারে ভেটেনারি মেডিকেল টিম থাকবে। পশু ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ের জন্য নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে। স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি আমরা যথাযথভাবে নিশ্চিত করার নির্দেশনা প্রদান করেছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে