কেন টু্ইটারের ‘পয়জন পিল’ ব্যবস্থা?

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৮, ২০২২; সময়: ১২:২৩ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ৪৩ বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে টেসলার সিইও ইলন মাস্ক টুইটারকে কিনতে চেয়েছিলেন। এরপর টুইটার বোর্ড শেয়ারহোল্ডারদের অধিকার রক্ষার্থে ‘পয়জন পিল’ পাস করে।

সব বোর্ড সদস্যদের সম্মতি নিয়েই এটি কার্যকর করা হয়। এর মেয়াদ ২০২৩ সালের এপ্রিল মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত রাখা হয়েছে।

পয়জন পিল বলতে প্রতিরক্ষা কৌশলকে বোঝায় যা একটি অধিগ্রহণ করতে ইচ্ছুক এ ধরনের ব্যক্তি বা কোম্পানির জন্য প্রতিকূল পরিস্থিতি তৈরি করা হয়। প্রতিকূল পরিস্থিতি তৈরি করার মাধ্যমে নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠান অধিগ্রহণকে নিরুৎসাহিত করা হয়।

নানা উপায়ে প্রতিকূল পরিস্থিতি তৈরি করা হয়। অধিগ্রহণকারীর ব্যক্তি বা কোম্পানির কাছে প্রতিষ্ঠানকে কম আকর্ষণীয় করতে এই কৌশলটি ব্যবহার করে।

যদিও একটি কোম্পানিকে অধিগ্রহণের হাত থেকে রক্ষা করার সর্বোত্তম উপায় নয় এটি তবে এ কৌশল বেশ কার্যকর। এতে বোঝা যাচ্ছে টুইটার বোর্ড চায় না ইলন মাস্ক সহজেই টুইটারকে অধিগ্রহণ করে ফেলুক। তাই তারা প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে।

এ ধরনের পরিকল্পনার কারণে অধিগ্রহণ করতে ইচ্ছুক ব্যক্তি বা কোম্পানি ঐ প্রতিষ্ঠানের সকল শেয়ারহোল্ডারের স্বার্থ রক্ষা করা, প্রিমিয়ামের নামে আরো অর্থ প্রদান করা ইত্যাদি কাজ করতে হয়।

পাশাপাশি বোর্ড শেয়ারহোল্ডারের অধিকার রক্ষার্থে আরো সময় নিতে পারে। ইলন মাস্ক এখন একই ধরনের প্রতিকূলতার সম্মুখীন। তবে টুইটার এটাও বলেছে যে অধিগ্রহণ যদি সবার স্বার্থ রক্ষা করে তাহলে বোর্ডের সদস্যরা এটিকে সমর্থন করতে পারে।

ইলন মাস্কের এখন পর্যন্ত টুইটারের ৯ শতাংশ মালিকানা রয়েছে। টুইটার তাকে বোর্ডসভায় অংশ নিতে আহবান জানিয়েছিল, তবে তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেছেন। প্রত্যাখানের কারণ হচ্ছে তিনি সভায় যোগ দিলে ‘বেনিফিষিয়াল ওউনার’ আইনের অধীনের ১৪ দশমিক ৯ শতাংশের বেশি স্টক শেয়ার পেতেন না।

মাস্ক জানান যে, তিনি নিশ্চিত নন এ ঘটনার পর টুইটার ক্রয় করতে তিনি সক্ষম হবেন কিনা তবে তার কাছে পর্যাপ্ত অর্থ রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে