চাকায় লাগবে না হাওয়া, ভয় নেই পাংচারেও

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৪, ২০২১; সময়: ৩:৩১ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : সাপ্তাহিক ছুটিতে প্রিয়জনকে নিয়ে গেলেন লং ড্রাইভে। এমন সময় গাড়ির টায়ার পাংচার হয়ে গেল। চারপাশে তাকিয়ে দেখলেন আশেপাশে কোনো সার্ভিসিং সেন্টারও নেই। এদিকে দেরি হয়ে যাচ্ছে। সন্ধ্যা নেমে গেলে বাড়তে রয়েছে বিপদের সম্ভাবনা। এমন ঝামেলা থেকে মুক্তি দিতে পারে হাওয়াবিহীন চাকা।

রাস্তায় হাওয়া ছাড়াই দৌড়াবে গাড়ির চাকা। এমন কথা শুনলে অবাক হওয়ারই কথা। তবে সত্যি এটাই, এ রকমই অত্যাধুনিক চাকা আসতে চলেছে বাজারে। এর নাম ফ্ল্যাট-ফ্রি টায়ার। সম্পূর্ণ হাওয়া ছাড়া হবে এই চাকা। এমন চাকা যা কখনও পাংচার হয় না।
বিদেশের এক চাকা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান এটি বাজারে আনতে চলেছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৪ সালের মধ্যেই তা বাজারে আসবে।

তবে এমন চাকা বাজারে আসার আগেই সৃষ্টি হয়েছে নানা প্রশ্ন। জনমনে কৌতহল জেগেছে কেমন হবে এ চাকা? হাওয়া ছাড়া মসৃণভাবে চলবেই বা কি করে?

মসৃণভাবে গাড়ি চলাচলের জন্য চাকায় হাওয়ার চাপ নির্দিষ্ট রাখাটা জরুরি। তবে আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি এ চাকাটি হাওয়া ছাড়াও গড়িয়ে যাবে। এবড়ো-খেবড়ো রাস্তাতেও বিনা বাধায় এগিয়ে যেতে পারবে। এই চাকা তুলনামূলক বেশি ভার বহনে সক্ষম। অনেক খারাপ রাস্তাতেও সহজে চলাচল করতে পারে।

প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানটির দাবি,সাধারণ চাকার থেকে এর আয়ু অনেক বেশি হবে। গ্রাহকরা ঘন ঘন টায়ার বদলানো বা মেরামতের দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি পাবে। পাশাপাশি অতিরিক্ত খরচের ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবে।

এই প্রথম যে এ রকম হাওয়া ছাড়া চাকা বাজারে আসতে চলেছে তা বললে একটু ভুলই বলা হয়। হাওয়া ছাড়া চাকা বাজারে এই প্রথমবার নয়। সাইকেল, হুইলচেয়ার বা বাড়ি ভাঙার বড় গাড়িতেও এমন চাকা লাগানো হয়েছে অনেক আগেই।

এ চাকা ব্যবহারে থাকবে কিছু অসুবিধাও। চলার গাতি ঘণ্টায় ৮০ কিলোমিটারের বেশি হলেই ঝাঁকুনির সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়াও ঘর্ষণে প্রচুর তাপ উৎপন্ন হয়ে থাকে। সেই তাপ রোধ করার ক্ষমতা তুলনামূলক কম এ চাকায়। এসব সমস্যা থেকে কীভাবে মুক্তি পাওয়া যায় শেষ পর্যায়ে এরই কাজ করছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে