মেসির মনে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার ভয়

প্রকাশিত: জুন ১৪, ২০২১; সময়: ১২:৪৯ pm |
খবর > খেলা

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : আর্জেন্টিনার অনুশীলনে হাসিমুখেই থাকেন লিওনেল মেসি। সেই মুখের ভাষা পড়ে তাঁর মনের ভেতরে দুশ্চিন্তাটুকু বোঝার উপায় নেই। এবার কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনার ২৮ বছরের শিরোপা-খরা ঘোচানোর চ্যালেঞ্জ তো আছেই, এর সঙ্গে যোগ হয়েছে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ভীতি। কাল সে কথাই জানিয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা এ ফরোয়ার্ড।

কোপা আমেরিকা এবার বিতর্ক নিয়ে শুরু হয়েছে। এই টুর্নামেন্টের মূল আয়োজক ছিল আর্জেন্টিনা ও কলম্বিয়া। কোভিড-১৯ ভাইরাস আর্জেন্টিনায় ভয়াবহ হয়ে ওঠায় সেখান থেকে আয়োজন সরিয়ে নেওয়া হয়। ওদিকে কলম্বিয়া থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় রাজনৈতিক অস্থিরতার জন্য। খুব অল্প সময়ের মধ্যে কোপা আয়োজনের দায়িত্ব পায় ব্রাজিল। কিন্তু দেশটিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা প্রায় ৫ লাখে ঠেকলেও প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারো খুব আগ্রহের সঙ্গেই কোপা আয়োজনের সবুজ সংকেত দেন।

এতে বিতর্ক আরও মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। ব্রাজিলের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট কোপা আয়োজন থামাতে সম্মত হলেও পরে ছাড়পত্র দিয়েছেন। এদিকে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ব্রাজিলের দুই-তৃতীয়াংশ মানুষই করোনার মধ্যে কোপা আয়োজনের বিরুদ্ধে। এটি একটি জরিপের ফল। সে যা–ই হোক, এসবের মধ্যেই কাল রাতে মাঠে গড়িয়েছে কোপা আমেরিকা। আজ রাতে মাঠে নামছে আর্জেন্টিনা। বাংলাদেশ সময় রাত ৩টায় চিলির মুখোমুখি হবেন মেসিরা।

কোপায় অংশ নেওয়া দলগুলোর মধ্যেও হানা দিয়েছে করোনা। ব্রাজিলের কাছে কাল ৩-০ গোলে হারা ভেনেজুয়েলা দলের খেলোয়াড় ও স্টাফ মিলিয়ে ১২ জন আক্রান্ত হয়েছেন এ ভাইরাসে। কলম্বিয়া দলের দুজন স্টাফও সংক্রমিত হয়েছেন। মেসির মনে তাই ভীতি জাগাই স্বাভাবিক। শুধু মেসি কেন, সম্ভবত কোপায় অংশ নেওয়া সব খেলোয়াড়ই এ নিয়ে ভীতিতে ভুগছেন। নিজে সাবধান থাকলেও প্রতিপক্ষ দলের মাধ্যমেও তো আক্রান্ত হতে পারেন! সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেছেন, ‘আমরা দুশ্চিন্তায় আছি। কারণ সবারই কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। সবাই সতর্ক থাকার চেষ্টা করলেও কাজটা তো সহজ নয়। এগুলো এভাবেই হয়। আমরা সতর্ক থাকতে সম্ভাব্য সবকিছুই করার চেষ্টা করব। কিন্তু সব সময় তো আমাদের কিংবা একজনের ওপর সব নির্ভর করে না।’

মেসি করোনার টিকা নিয়েছেন কি না, তা নিশ্চিত করতে পারেনি সংবাদমাধ্যম। যদিও গত এপ্রিলে দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবল কনফেডারেশন জানিয়েছিল, তারা টিকা পেয়েছে এবং সব আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়কে টিকা দেবে কোপা আমেরিকা শুরুর আগে।

বার্সেলোনার এই তারকা ফুটবলারের বয়স এখন ৩৩ বছর। কে জানে, এটাই হতে পারে মেসির শেষ কোপা আমেরিকা! ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল দুই বছর আগের টুর্নামেন্টে সেমিফাইনালে হারায় আর্জেন্টিনাকে। বিতর্কিত সেই ম্যাচের ক্ষতটা মনে পুষে রেখেই এবার যেকোনো মূল্যে দেশের হয়ে শিরোপা জিততে চান মেসি, ‘আমার মনে হয় এটাই সময়। কোপা আমেরিকাই সেই সুযোগ। দেশের হয়ে শিরোপা জয় আমার বড় স্বপ্ন। এর আগে খুব কাছাকাছি গিয়েও পারিনি। তবে না জেতার আগপর্যন্ত চেষ্টা করে যাব। ক্লাব পর্যায়ে ও ব্যক্তিগতভাবে সব জেতার জন্য নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি। তবে জাতীয় দলের হয়ে কিছু জিততে পারলে সেটা আরও ভালো হয়।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে