সাকিবের ঘটনায় শিক্ষা নিয়ে সামনের চুক্তি সাজাবে বিসিবি

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১; সময়: ১:১৯ pm |
খবর > খেলা

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ক্রিকেটারদের কাছে ভবিষ্যতে আর কোনোভাবে জিম্মি হতে চায় না বিসিবি। টেস্ট বাদ দিয়ে সাকিব আল হাসানের আইপিএল খেলতে চাওয়ার উদাহরণকে ভাবনায় রেখেই এবার বোর্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তির শর্তাবলী তৈরি করা হবে। চুক্তির বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ থাকবে না ক্রিকেটারদের।

নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য নির্বাচিত বাংলাদেশ দলের সঙ্গে কথা বলার পর সোমবার বিসিবিতে বোর্ড পরিচালকদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। সেখানেই আলোচনা হয় এই সময়ের বাস্তবতা অনুযায়ী কেন্দ্রীয় চুক্তি নতুন করে সাজানো নিয়ে।

সাকিবকে ছুটি দেওয়ার পর অন্য যে কেউ চাইলেও ছুটি দেওয়ার বাধ্যবাধকতা চলে এসেছে বিসিবির। বোর্ড এই অবস্থার মুখোমুখি ভবিষ্যতে হতে চায় না। সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নাজমুল হাসান জানান, চুক্তির জন্য বিবেচিত ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলেই লাল বল ও সাদা বলের আলাদা চুক্তি করা হবে।

“এটা একেবারে অস্বীকার করার পথ নেই (ক্রিকেটারদের কাছে বোর্ড জিম্মি হয়ে যাচ্ছে কিনা)। এর আগেও যে হয়নি এটা, তা নয়। তবে এখন একটা ব্যাপারে আমাদের ভাবনা খুবই পরিষ্কার। কাউকে জোর করে কোথাও পাঠাব না। যারা খেলতে চায় না, তারা খেলবে না। এই বার্তাটা সবার জন্য, কেবল সাকিব আল হাসানের জন্যই নয়।’

“এবার চুক্তিতে আরও নতুন কিছু জিনিস যুক্ত হবে। ওখানে পরিষ্কার লেখা থাকবে, কে কোন ফরম্যাট খেলতে চায়। তাদেরকে বলতে হবে এবং এটাও জানাতে হবে, ওই সময়ে তাদের যদি অন্য কোনো খেলা থাকে, তাহলে সেখানে খেলবে নাকি দেশের হয়ে খেলবে। চুক্তিতে সই করলে সেটা মানতে বাধ্য। আগে এটা ছিল ব্যক্তির ওপর, এখন আমরা কাগজে-কলমে লিখিত নিয়ে নেব। কারও বলার কিছু থাকবে না। ইটস অবভিয়াস, যে খেলবে না, সে খেলবে না।”

সাকিব যেভাবে একটি টেস্ট সিরিজ থেকে ছুটি নিয়েছেন, এভাবে বেছে বেছে সিরিজ খেলার সুযোগ ভবিষ্যতে রাখা হবে না বলে নিশ্চিত করলেন বিসিবি সভাপতি।

“এটা একদম লং টার্ম, কোনো সিরিজের সাথে আর কিছু নাই। কারণ, এটা আমাদের চিন্তায়ই আসেনি কখনও (আগে)। আপনারা আমাদের দিকটা ভেবে দেখুন। আমি তো কখনও অ্যালাউ করিনি এগুলো। এতগুলো ম্যাচ হারার পরে ক্রিকেটারদের উচিত, বিশেষ করে সিনিয়রদের চিন্তা থাকবে যে, আমরা পরবর্তী টেস্ট ম্যাচ জিতব। এটা না হয়ে যদি বলে আমি খেলব না, সেটিও ব্যক্তিগত কোনো ব্যাপার নয়, আরেকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ খেলার জন্য, তখন এটা খুব স্পষ্ট যে আসলে এদের দিয়ে খুব বেশি একটা কিছু করা যাবে বলে আমার মনে হয় না, অন্তত টেস্টে।”

“ওরা সবাই যদি লিখে দেয়, আমরা কেউ জাতীয় দলের হয়ে খেলতে চাই না, আমি এখনই রাজি। তবে আমাকে অবশ্যই জানতে হবে। ট্যুরের আগে গিয়ে বললে হবে না। যে খুশি বলে দিক, কে কে খেলতে চায় না। কোনো অসুবিধা নেই, তবে সিরিজের আগে হুট করে নয়। আমাদের সময় লাগবে, আমি একটা বছর সময় চাই। এক বছর পরে কাউকে লাগবেও না, কোনো অসুবিধা নেই।’

নতুন চুক্তির শর্তাবলী স্পষ্ট হওয়ার পর ভবিষ্যতে আর ছুটি চাওয়ার ব্যাপারই থাকবে না, জানালেন বিসিবি প্রধান।

“চুক্তিটা না আসার আগে আমি আপনাদের সব উত্তর দিতে পারব না, আজকে এটা নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। চুক্তির পর আর কোন সংশয় থাকার কথা নয়।”

“চুক্তি দেখলে ওরাই জানবে কীভাবে কী হবে। তখন আমার কাছে ছুটিও চাওয়ার কিছু নেই। কেউ যদি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ খেলার কথা বলে, তাকে তো আমরা দলেই রাখব না, অসুবিধা কী!”

  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে