রাজশাহীর আলোচিত পল্লিচিকিৎসক হত্যার তদন্তে অগ্রগতি নেই

প্রকাশিত: মে ১০, ২০২২; সময়: ৪:৫৯ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, চারঘাট : রাজশাহীর চারঘাটের পল্লিচিকিৎসক আব্দুল মান্নান হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্‌ঘাটনে অগ্রগতি নেই। ১৮ দিনেও এ বিষয়ে কিছুই জানাতে পারেনি পুলিশ।

দুই মাসে চারঘাট উপজেলায় তিনটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ হত্যার শিকার হয়েছেন আব্দুল মান্নান। এই হত্যাকাণ্ডের মামলার অগ্রগতি না থাকায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে ভুক্তভোগীর পরিবার। পুলিশ বলছে, গুরুত্ব দিয়ে মামলাটির তদন্ত চলছে। শিগগির রহস্য উদ্‌ঘাটন হবে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ এপ্রিল উপজেলার শলুয়া ইউনিয়নের কানজগাড়ি এলাকার একটি কলাবাগান থেকে গ্রাম্য চিকিৎসক আব্দুল মান্নানের (৭০) লাশ উদ্ধার করা হয়। মান্নান ওই গ্রামের মৃত করিম মণ্ডলের ছেলে।

তিনি ঘটনার দিন বিকেলে নিজের পাটখেতে কাজ করতে গিয়েছিলেন। সন্ধ্যার পরও বাড়িতে না ফেরায় খোঁজাখুঁজির একপর্যায় কলাবাগানে তাঁর গলাকাটা লাশ পাওয়া যায়। পুলিশ এসে কলাবাগান থেকে লাশ উদ্ধার করে।

এদিকে ঘটনার পরপরই নিহতের ছেলে মাহিম হোসেন লেমন বাদী হয়ে ওই এলাকার রবিউল ইসলাম (৩২) নামের এক ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে চারঘাট মডেল থানায় মামলা করেন। এরপর পুলিশ রবিউল ও লিটন নামে দুই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ওই মামলায় এজাহার নামীয় আসামি রবিউলকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে লিটনকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

মামলার বাদী নিহতের ছেলে মাহিম হোসেন লেমন বলেন, ‘আমার বাবাকে হত্যার ১৮ দিন পার হলেও পুলিশ কোনো রহস্য উন্মোচন করতে পারেনি। আমরা এখনো জানি না কে বা কারা আমাদের বাবাকে হত্যা করেছে। তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার পরও তারা হত্যাকাণ্ডের কূলকিনারা করতে পারেনি।’

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক মীর মাহমুদুন নবী বলেন, ‘আব্দুল মান্নান হত্যাকাণ্ডের ঘটনার তদন্ত চলমান। তবে কী কারণে হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, সে রহস্য আমরা এখনো উদ্‌ঘাটন করতে পারিনি। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন এখনো হাতে পাওয়া যায়নি। এরপরও মামলার কার্যক্রম অনেকটা অগ্রগতি। আমাদের চেষ্টার কমতি নেই।’

এ বিষয়ে চারঘাট মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল লতিফ বলেন, ‘আব্দুল মান্নানের হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্‌ঘাটনের চেষ্টায় আমাদের কোনো গাফিলতি নেই। সর্বোচ্চ পরিশ্রম করছি।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে