রাজশাহীতে বাজারে দাম বেড়েছে মাছ ও মুরগির, সংকট তেলের

প্রকাশিত: এপ্রিল ২৯, ২০২২; সময়: ৩:১৯ pm |

মিনার আলম আকাশ : রাজশাহীর বাজারে বেড়েছে মাছ ও মুরগির দাম। তেলের সংকট ও লক্ষ করা গেছে।

ঈদুল ফিতরের আগে সপ্তাহের শেষ দিনে নগরীর বাজার ঘুরে দেখা যায়, ২০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে এ সপ্তাহে সোনালী মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহের তুলনায় ২০ টাকা বেশি দামে ৪৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে দেশি মুরগি। এ সপ্তাহে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা কেজি যা গত সপ্তাহের চেয়ে কেজিতে ১০ টাকা বেশি।

মুরগি বিক্রেতা জামলি জানান, সামনে ঈদকে কেন্দ্র করে এ সপ্তাহে মুরগির দাম কেজিতে ১০-২০ টাকা বেশি। তবে ঈদের পরে সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে।

এছাড়া মুদিপন্য সামগ্রীর দোকানে গিয়ে দেখা যায় চিনি, ডাল, চালসহ সবধরনের পন্যের দাম ঠিক থাকলেও সংকট দেখা দিয়েছে বোতলজাত সয়াবিন তেলের।

মুদি দোকানদার সুমন জানান, মুদিপন্যের বাজারে সবকিছুর দাম ঠিক রয়েছে কিন্তু বোতলজাত সয়াবিন তেল বাজারে নাই। আমাদেরকে ডিলাররা তেল দিচ্ছে না। যেগুলো ছিল এতোদিন বিক্রি করলাম কিন্তু আজ থেকে আর বোতলজাত সয়াবিন তেল দিতে পারবো না। আবার যখন ডিলাররা আমাদেরকে সরবরাহ করবে তখন হয়তো বিক্রি শুরু করবো।

এ সপ্তাহে কাঁচা সবজির বাজারে দামের কোন পরিবর্তন লক্ষ করা যায়নি। গত সপ্তাহের মত এ সপ্তাহে কেজিতে ১০ টাকা কমে বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা কেজি দরে, করলা বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা, ঢেড়স ৪০ টাকা, পূর্বের মূল্যে পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা কেজিতে, কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা, লেবু হালিতে ৫ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা হালি দরে এবং শসা এ সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কেজিতে।

সবজি বিক্রেতা আইনাল জানান, সবজির দাম কম থাকলেও ঈদের ছুটিতে বাইরের মানুষ ও ছাত্ররা বাসায় চলে যাওয়ায় বেঁচাকেনা নাই।

এছাড়া বাজারে গরুর মাংস পূর্ব মূল্য ৬৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে, খাশির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৮০০-৮৫০ টাকা দরে। এছাড়া অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে