বাঘায় ছাগলেপাট খাওয়ার ঘটনায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৯

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৫, ২০২২; সময়: ৯:৫৩ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক,বাঘা : রাজশাহীর বাঘায় ছাগলে পাট খাওয়ার ঘটনায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে এক নারিসহ ৯জন আহত হয়েছে। আহত ৯ জনকেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে রাজশাহী মেডিকলে কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তারা হলেন-সাজদারের দুই ছেলে, ইমরান হোসেন(৩৭), সহিদ গোসেন (৩৫) ও সহিদ হোসেনের ছেলে আলিফ হোসেন (১৬), মৃত গনির মোল্লার ছেলে আব্দুস সাত্তার মোল্লা (৮০) নিজেসহ তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৬৫), ৪ ছেলে, আলম হোসেন(৬৫), লিটন হোসেন (৫০), রবিউল ইসলাম (৪৫) ও রায়হান হোসেন (৪০)।

বৃহসপতিবার (১৪-৪-২০২২) বিকেল সাড়ে ৫টায় উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের পীরগাছা গ্রামে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান,বৃহসপতিবার (১৪-০৪-২০২২)বিকেলে সংঘর্ষের ঘটনার আগে, গ্রামের লিটন হোসেনের ৪টি ছাগলে, ইমরান হোসেন বাবুর আবাদ করা জমির পাট ফসল খাচ্ছিল। ইমরান হোসেন বাবু সেই ছাগলগুলোকে ধাওয়া করে লিটন হোসেনের বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটির, এক পর্যায়ে লিটন হোসেন ও তার পক্ষের লোকজন, ইমরান হোসেন বাবুর ওপর চড়াও হয়ে তাকে কিল ঘুষি মারে।

পরে ইমরান হোসেন বাবু ও তার লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে লিটন হোসেনের ওপর হামলা করে। এর পর প্রায় ঘন্টা ব্যাপি দুই পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে লিটন হোসেন পক্ষের ৬জন ও ইমরান হোসেন বাবুর পক্ষের ৩ জন আহত হয়।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক রাকেশ পান্ডে সকলকেই রামেক হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। জরুরি বিভাগের তথ্য মতে,আব্দুস সাত্তারের স্ত্রী আনোয়ারা বেগমের বাম হাতের কব্জির উপরের হাড় ভেঙ্গে গেছে। অন্যদের মাথায় ও পায়েসহ শরীরে আঘাতের ফলে জখম হয়েছে।

ইমরান হোসেন বাবু ও লিটন হোসেন আপন চাচাতো ভাই বলে জানিয়েছেন গ্রামের কলেজ শিক্ষক নবাব হোসেন।
বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেছে। উভয় পক্ষ পৃথক পৃথক অভিযোগ করেছে। আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে