অসহায় মানুষকে পেটপুরে খাওয়ানোই যার তৃপ্তি

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৮, ২০২১; সময়: ১০:৫১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঘড়ির কাঁটায় তখন রাত ১১টা। মার্কেটের বারান্দায় পলিথিন বিছিয়ে বসে ভাত খাচ্ছেন শতাধিক মানুষ। সাত-আটজন যুবক খাবার পরিবেশন করছেন। আর মধ্যবয়সী একজন তদারকি করছেন। সামনেই সারিবদ্ধ ভাবে দাঁড় করানো রিকশা-অটোরিকশা। বুধবার রাতে রাজশাহী মহানগরীর কল্পনা সিনেমা হলের মোড়ে দেখা মেলে এমন দৃশ্য। এটি প্রতি রাতের নিয়মিত দৃশ্য।

যিনি দাঁড়িয়ে থেকে তদারকি করছিলেন তাঁর নাম আজিজুল আলম বেন্টু। তিনি রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনিই প্রতিরাতে অসহায় মানুষদের পেটভরে খাওয়ান।

আজিজুল আলম বেন্টু এক মাস আগে গত ২৮ সেপ্টেম্বর নগরের সাগারপাড়া কল্পনা হলের মোড়ে ‘লবঙ্গ চাইনিজ অ্যান্ড ফাস্টফুড’ নামে একটি রেস্তোরাঁ চালু করেছেন। রেস্তোরাঁটিতে ভাত পাওয়া যায় না। কিন্তু দরিদ্র মানুষদের জন্য সেখানে প্রতিরাতে রান্না হয় ভাত, ডাল, মাছ, মাংস ও সবজি। রেস্তোরাঁয় রান্না করা খাবারই পরিবেশন করা হয় অসহায় মানুষের মাঝে। খাবার পরিবেশনের জন্য কেনা হয়েছে আলাদা থালা-বাসনও।

সরজমিনে গিয়ে বুধবার রাতে শতাধিক মানুষকে খেতে দেখা যায়। তাদের বেশিরভাগই রিকশাচালক। সারি করে রিকশা রেখে তারা খেতে বসেছেন। ছিন্নমূল কয়েকজন নারী, কিশোরী আর শিশুকেও সেখানে দেখা যায়। মাছ আর ডাল দিয়ে তারা তৃপ্তি নিয়ে খাচ্ছিলেন। এক শিশু বলল, সে মাছ খায় না। এ কথা শুনেই আজিজুল আলম বেন্টু একজনকে ডিম আনতে বললেন।

খাওয়া শেষে শিশু সৈকত, ইমন আর রাহিন জানায়, তারা সারাদিন বেলুন বেচে। আর রাতে রেলস্টেশনে থাকে। বেলুন বিক্রির লাভের টাকায় তারা হোটেলে খাবার কিনে খায়। দুদিন আগে স্টেশনে থাকা এক রিকশাচালক তাদের জানান, কল্পনা হলের মোড়ে তিনি বিনাপয়সায় পেটপুরে খেয়েছেন। রোজই খাওয়ানো হবে সেখানে। খবর পেয়ে সৈকত, ইমন, রাহিনেরাও পরদিন থেকে খেতে আসে।

আজিজুল আলম বেন্টু জানান, তাঁর রেস্তোরাঁয় বাংলা খাবার বিক্রি হয় না। তবে রেস্তোরাঁর লাভের অংশ থেকে শুধু অসহায় মানুষদের জন্যই আলাদা বাজার করে বাংলা খাবার রান্না হয়। গত শুক্রবার থেকে তিনি এ কার্যক্রম শুরু করেছেন। সেদিন ৪০ জন খেয়েছিল। এরপর থেকে খেতে আসা মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। তিনি সাধ্যমতো এভাবে খাইয়ে যাবেন।

তিনি আরও বলেন, মানুষকে খাওয়ায়েই আমি তৃপ্তি পায়। প্রায় একযুগ ধরে রমজান মাসজুড়ে পথচারিসহ ছিন্নমুল মানুষকে ইফতার করায়। করোনাকালে অসহায় দরিদ্র মানুষের বাড়ি বাড়ি রমজান মাসজুড়ে ইফতার পৌঁছে দিয়েছি। এছাড়াও করোনাকালে রাজশাহী নগরের কয়েক হাজার দুস্থ্য, অসহায় ও কর্মহীন মানুষের বাড়িতে খাবার সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে