রাজশাহীর বাজারে বেড়েছে সবজি মাছ ডিম ও কাঁচা মরিচের দাম

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১; সময়: ১:২৪ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : এক সপ্তাহের ব্যবধানে রাজশাহীর বাজারে বেড়েছে কয়েকটি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। সবজি মাছ ডিম ও কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে। স্থিতিশীল রয়েছে চাল, মুদির সামগ্রী ও মাংসসহ অন্য পণ্যে গুলোর দাম। মাছের বাজারে সকল মাছের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ৫০ থেকে ১০০ টাকা।

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে রাজশাহীর সাহেব বাজারে কাঁচা সবজির পর্যাপ্ত আমদানি থাকলেও প্রতিটি পন্যের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ৪ থেকে ৬ টাকা। অন্যদিকে ঝাঁজ বেড়েছে কাঁচামরিচের। গত সপ্তাহে যে কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা কেজি ছিলো আজ সেই কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা কেজি দরে।

গত সপ্তাহের মতই স্থিতিশীল রয়েছে মুদি সামগ্রী গরু ও মুরগির মাংসের দাম। সাহেব বাজার কাঁচা বাজার গিয়ে দেখা যায়, পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৪৫ টাকা, রসুন কেজি প্রতি ৮০ টাকা, আদা ১০০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। সবজির বাজারে করলা ৮০ টাকা, পটল ৩০ টাকা, বাঁধাকপি ৫০ টাকা, ঢেড়স ৪০ টাকা, বরবটি ৫৫ টাকা, গাজর ১২০ টাকা, আলু ২০ টাকা, শসা ৬০ থেকে ৮০ টাকা, লাউ ৩০ টাকা, শিম ১২০ টাকা, কুরিকচু ৪০ টাকা, টমেটো ১২০ টাকা, পেঁপে কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ২০। অন্য দিকে একই সবজি পাশের বাজার মাষ্টার পাড়ায় কেজি প্রতি ৫ থেকে ৮ টাকা কম দরে বিক্রি হচ্ছে।

মুদি বাজারে তেল কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ১৪৫ টাকা। ৫ লিটারের রুপচাঁদা তেল বিক্রি হচ্ছে ৬৯৫ টাকা, তীর ৬৭৫ টাকা, ফ্রেশ ৬৭০ টাকা, বসুন্ধরা ৬৭৫ টাকা, চিনি কেজি প্রতি ৭৮ টাকা, মসুর ডাল ১০০ টাকা, সোনা মুগ ১৪০ টাকা, ছোলা বুট ৭০ টাকা, খেসারি ডাল ৮০ টাকা, কালাই ডাল ১৩০ টাকা, লবন ৩০ টাকা।

চালের বাজারে আটাশ চাল ৫০ টাকা, মিনিকেট ৬০ টাকা, জিরাশাল ৬০ টাকা, বাসমতি ৬৮ টাকা, পায়জাম ৬০ টাকা, নাজিরশাল ৬৬ টাকা, কাটারিভোগ ৮৫ টাকা, শরনা ৪৮ টাকা, কালজিরা ৮০ থেকে ৯০ টাকা, চিনিগুড়া ৯৫ থেকে ১০০ টাকা, আউশ ৫৫ টাকা, বালাম ৬৫ কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

সাহেব বাজারের শাহ্ আলম এন্ড সন্স এর মালিক শাহ্ আলম জানান, গত সপ্তাহের মতই রয়েছে সকল পণ্যের দাম।

ডিমের বাজারে হালি প্রতি বেড়েছে ২ টাকা লাল ডিম ৩৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মুরগির বাজারে দেশি মুরগি কেজি প্রতি ৩৬০ টাকা, সোনালী ২৬৫ টাকা, ব্রয়লার ১৪৫ টাকা, লেয়ার মুরগি ১৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

গরুর মাংস কেজি প্রতি ৫৬০ টাকা ও খাসির মাংস ৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গরুর মাংস ব্যবসায়ী সাইদুর রহমান জানান, হাটে গরুর আমদানি কম। তাই গরুর মাংসের দাম কমেনি। গত সপ্তাহের মতই বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজারে গিয়ে দেখা যায়, কার্প জাতীয় মাছ ও নদী-দেশি প্রজাতি মাছের দাম গত সপ্তাহের মতই স্থিতিশীল রয়েছে। রুই কেজি প্রতি ২২০ থেকে ৪৫০ টাকা, কাতল ১৬০ থেকে ৬৫০ টাকা, চিতল ৪৫০ টাকা থেকে ৮৫০ টাকা, সিলভর ও অন্যনো কার্প জাতীয় মাছ ১৩০ থেকে ৩০০ টাকা কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে। কেজি প্রতি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ১২০০ শ’ টাকায়।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে