বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটি থেকে ৭ জনের পদত্যাগ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২, ২০২১; সময়: ৭:০১ pm |

নিজস্ব প্রতিবদেক : বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটি থেকে ৭ জন পদত্যাগ করেছে। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যে এ তথ্য নিশ্বিৎ করেন পদত্যাগ কৃত নেতারা।

গত ২৭/৮/২০২১ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের দপ্তর সাক্ষরিত ২১ সদস্য বিশিষ্ট বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে প্রকাশিত হয় । কমিটি প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের নেতা কর্মীদের মাঝে ।

২১ সদস্যের কমিটির মধ্যে ইতিমধ্যে ৫ জন যুগ্ম-আহ্বায়ক ও ২ জন সদস্য পদত্যাগ করেছেন । তাঁদের অভিযোগ কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের বিভাগীয় টিম রাজশাহীতে গত দেড়বছর পূর্বে যে সাংগঠনিক মতবিনিময় সভা করেছিলে তার বিপরীতমূখী কমিটি গঠন করেছে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ । ছাত্রদলে বিবাহিতরা স্থান পাওয়ার কোন সুযোগ না থাকলেও বাঘা উপজেলা কমিটিতে বিবাহিতদের স্থান দেওয়া হয়েছে ।

পদত্যাগকারী বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক মোঃ রাকিব কাইয়ূম শিমুল বলেন, এই কমিটিতে যাকে আহ্বায়ক হিসবে দায়িত্ব দেওয়া হয়ে সেই সেলিম রেজা একটি ওয়ার্ড কমিটির দায়িত্ব নেওয়ার যোগ্য না । কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যে মতবিনিময় সভা হয়েছিল সেখানেও সে উপস্থিত ছিলনা অথচ তাঁকে আহ্বায়ক বাননানো হয়েছে । দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা তারা রাজশাহী জেলা বিএনপি’র এক নেতার পক্ষে এই কমিটি দিয়েছে যেখানে সেই নেতার পকেটের লোক হিসবে এদের আহ্বায়ক ও সদস্য সচিব করা হয়েছে ।

পদত্যাগকারী যুগ্ম-আহ্বায়ক মোঃ টনিজ আহম্মেদ বলেন, রাজশাহী বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা কিসের স্বার্থে বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের এমন কমিটির সুপারিশ কররো তা আমাদের বোধগম্য হচ্ছে না তাই এই কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছি এবং এই কমিটি বাতিলের দাবী করছি ।

পদত্যাগকারী আরেক যুগ্ম-আহ্বায়ক মোঃ আমির হাসনাত রনি বলেন, রাজপথে মিছিল মিটিং করার কোন যোগ্যতা না থাকলেও যে অর্থ ও চামচামির বিনিময়ে পদ পাওয়া যায় তাঁর উজ্জল দৃষ্টান্ত হচ্ছে বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি। এই অথর্ব কমিটিতে থাকার চেয়ে দলের একজন কর্মী হিসবে কাজ করাই ভাল তাই পদত্যাগ করেছি এবং নতুনভাবে পরিক্ষিত, যোগ্যদের দিয়ে বাঘা উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠন করার জন্য অনুরোধ করছি ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাজশাহী জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক, মোঃ শরিফুল ইসলাম জনি বলেন এখন পর্যন্ত রাজশাহী জেলা ছাত্রদল অধিনস্থ সকল ইউনিট কমিটি রাজশাহী জেলা কমিটি অনুমোদন করেছে এবং সে সকল ইউনিট কাজ করছে।

বাঘা-চারঘাট উপজেলা কমিটি গঠনে রাজশাহী জেলা সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে মতানৈক্যের ফলে কেন্দ্রীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা এই কমিটি গঠন করে প্রকাশ করেছেন তবে আমি যে মতামত দিয়েছিলাম অথ্যাৎ দলের জন্য যে সকল নেতা কর্মীরা পরিশ্রম করেছে, মামলা নির্যাতনের স্বীকার হয়েছে তাদের যথাযোগ্য মূল্যায়ন করা হয়নি এবং একপেশী কমিটি গঠিত হয়েছে যা সংগঠনের জন্য ভাল হয়নি।

শরিফুল ইসলাম জনি বলেন, পদত্যাগ কোন সমাধান না কমিটির বিষয়ে আপত্তি থাকতে পারে কোন সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকতে পারে কিন্তুু পদত্যাগ করে সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে । তিনি আরও বলেন কেন্দ্রীয় নেতারা বিষয়টি জানেন তারা দ্রুত এই বিষয়ে একটা সমাধান করবেন বলে বিশ্বাস করেন ।

  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে