রাজশাহীতে পরম মমতায় মানব সেবায় জামিল ব্রিগেড

প্রকাশিত: আগস্ট ২৪, ২০২১; সময়: ৭:৩৮ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনায় মানুষ যখন মানুষের কাছ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছে- তখন সেবার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে শহীদ জামিল ব্রিগেড। রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ও ব্রিগেডের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ফজলে হোসেন বাদশার উদ্যোগে গড়ে ওঠা এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের তিন মাস পার হলেও একইভাবে একটি ফোন পেলেই বিনামূল্যে রোগীদের বাড়ি বাড়ি অক্সিজেন-অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে হাজির হচ্ছে লাল গেঞ্জি পরিহিত ব্রিগেড বাহিনী।

বাড়িতে অক্সিজেন সেবা, অ্যাম্বুলেন্সে করে রোগী নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করানোর কাজটি তারা করে চলেছেন পরম মমতায়। এখন জামিল ব্রিগেডে যুক্ত হয়েছেন চারজন চিকিৎসক। যারা সার্বক্ষণিক সেবা ও পরামর্শ দেবেন করোনা আক্রান্তদের।

করোনার বর্তমান সময়ে আক্রান্ত রোগীদের জীবন বাঁচাতে অক্সিজেন বেশি প্রয়োজন হচ্ছে। নগরীর হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন সংকটে রোগী মারা যাওয়ার খবরও নতুন নয়। অক্সিজেনের পাশাপাশি রোগীদের জরুরি প্রয়োজন হচ্ছে অ্যাম্বুলেন্স। এই দুই সেবা তাৎক্ষণিক না পেলে যে কোনো সময় রোগীর মৃত্যু ঘটতে পারে। এমন পরিস্থিতি বিবেচনায় সংগঠনটির সদস্যরা একটি ফোন পেলেই বিনামূল্যে রোগীর বাড়ি অক্সিজেন পৌঁছে দিচ্ছেন। রোগীকে হাসপাতালে নিতে চালু রেখেছে ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স। ঝড়-বৃষ্টি এবং মধ্যরাতের প্রতিবন্ধকতা উপেক্ষা করে তারা এই মানবিক সেবা দিচ্ছেন।

শুধু রাজশাহী শহরে করোনা মোকাবিলায় গত ৫ জুন ৫০ জন তরুণ-যুবকের সমন্বয়ে শহীদ জামিল ব্রিগেড গঠন করা হয়। প্রায় তিন মাস ধরে মহানগর এলাকায় শুধু একটি ফোনকলে মানুষের বাড়িতে অ্যাম্বুলেন্স ও অক্সিজেন পৌঁছে দিয়ে মানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন সদস্যরা। ৮ আগস্ট তাদের সেবায় যুক্ত হয়েছেন চারজন চিকিৎসক। তারা বিনামূল্যে রোগীদের সেবা ও পরামর্শ দিচ্ছেন।

ব্রিগেডের সকল কার্যক্রম পরিচালনা ও তদারকি করছেন ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ব্রিগেডের প্রধান সমন্বয়ক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু। জানতে চাইলে তিনি জানান, আমাদের মূল লক্ষ্য ছিল এই সংকটকালে যেভাবেই হোক মানুষের পাশে দাঁড়ানো। আমাদের সাধ্যমতো আমরা সেই চেষ্টা চালচ্ছি। গত দুই মাস ধরে ব্রিগেডের ৫০ জনেরও বেশি সদস্যরা তাদের জীবন বাজি রেখে মানুষকে সেবা দিচ্ছে।

শহীদ জামিল ব্রিগেডের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বলেন, ‘বর্তমানে দেশে করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত ভয়াবহ। শহর ছাড়িয়ে গ্রাম অঞ্চলে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে শয্যা সংকট। রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া একটি দুরূহ কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সরকারের পক্ষে এই দায়িত্ব এককভাবে পালন করা কঠিন। সরকারের পাশাপাশি নিজ উদ্যোগে জনগণের সেবা এবং মানবিক দায়িত্ব পালন করা উচিত। সে কারণেই আমরা জামিল ব্রিগেড গঠন করেছি।

রাজশাহী-২ (সদর) আসনের এই সংসদ সদস্য আরও বলেন, জামিল মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তির হাতে শহীদ একজন আমাদের সহকর্মির নাম। একটি শহীদের নাম মনে রাখা, মুক্তিযুদ্ধের চেনতাকে সমুন্নত রাখা; অন্যদিকে জনগণের পাশে দাঁড়ানো। আমরা রাজশাহী শহরে দুইটি এবং জেলার গ্রাম অঞ্চলের মানুষের জন্য একটি- মোট তিনটি অ্যাম্বুলেন্সসহ সেবা এবং অক্সিজেন দেয়ার জন্য সর্বাত্মক দায়িত্ব পালন করছি। এটি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের প্রতিশ্রতি, জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা।

  • 191
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে