রামেক হাসপাতালে প্রস্তুত হচ্ছে ডেঙ্গু ওয়ার্ড

প্রকাশিত: আগস্ট ৪, ২০২১; সময়: ১২:৪৮ pm |

তারেক মাহমুদ : রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ বছর প্রথমবারের মত ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে। সোমবার (২ আগস্ট) বিকেলে হেলাড়ি স্বপন কর্মকার (২৩) নামের এক রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তিনি নগরীর ডিঙ্গাডোবা বাগানপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি মনিরানা কর্মকারের ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামেক হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার শামীম ইয়াজদানী।

পরিচালক জানান, স্বপন কর্মকার ঢাকার নর্দান ইন্টারন্যাশনাল নার্সিং কলেজের ছাত্র। ঢাকা থেকেই সে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে রাজশাহীতে এসেছেন। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি বলেন, এই মুহূর্তে স্বপনকে ৪২ নম্বর ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। তাকে হাসপাতালের চিকিৎসকরা সার্বক্ষণিক চিকিৎসা দিচ্ছেন। বুধবার (৪ আগস্ট) ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের একটি অংশকে ডেঙ্গু ওয়ার্ড করা হবে। সেখানে তাকে স্থানান্তরিত করা হবে।

নতুন রোগী ভর্তি হলে সেখানেই রাখা হবে। তিনি জানান, এখন পর্যন্ত যথেষ্ট কিট মজুদ আছে হাসপাতালে সেই সাথে চিকিৎসকরাও প্রস্তুত আছে। আশা করছি করোনার প্রকোপের সময় ডেঙ্গুকেও আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো। এ ব্যাপারে রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. কাইযুম তালুকদার বলেন, রামেক হাসপাতালে একজন রোগী ভর্তি হয়েছে। বিষয়টি আমি শুনেছি। আগামীকাল (বুধবার) আমরা রির্পোট পাবো। তখন সার্বিক বিষয়ে বলতে পারবো।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, রাজশাহী বিভাগে মোট ৩ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়া নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে কোন জেলার তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকার হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হয়েছে মোট ২৪৮ জন। আর ঢাকার বাইরে ভর্তি ১৬ জন। ঢাকার ৪১ টি সরকারি- বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ডেঙ্গুর রোগী ভর্তি আছে এক হাজার ২৫ জন। অন্যান্য বিভাগে মোট ভর্তি ৪৭ জন। তাই ঢাকার বিষয়টি মাথায় রেখে রাজশাহীতে যাতে ডেঙ্গুর বিস্তার না হয় সে জন্য জনস্বাস্থ্যবিদরা এখনি প্রস্তুত হতে বলছেন।

জনস্বাস্থ্যবিদরা জানাচ্ছেন, এর আগেও রাজশাহীতে ডেঙ্গু তেমন বিস্তার লাভ করতে পারেনি। এর কারণ হিসেবে রাজশাহী পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নগরী হওয়ায় সমস্যা প্রকট হয়নি। সেই সাথে ঢাকায় ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি হলে রাজশাহীতে এডিস মশার প্রজনন ঠেকাতে নানা উদ্যোগ নেওয়ায় সমস্যার সমাধান হয়। তবে আগে থেকে এবারো সকলকে প্রস্তুত থাকতে বলছেন জনস্বাস্থ্যবিদরা।

রামেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মাহবুবুর রহমান বাদশা জানান, এর আগেও রাজশাহীতে ডেঙ্গু রোগিদের নিয়ে আমরা সেবা দিয়েছি। রাজশাহী পরিচ্ছন্ন নগরী হওয়ায় এখানে সেই ভাবে ডেঙ্গুর প্রকোপ হয় না। তবে আগে থেকেই আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে ডেঙ্গু রোধে কার্যকরি ভূমিকা রাখতে হবে।

এদিকে ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া ও এডিস মশার প্রজনন রোধে রাজশাহী সিটি করোরেশনও বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। উদ্যোগগুলো যথাযথভাবে বাস্তবায়নে রাসিকের স্বাস্থ্য বিভাগ ও পরিচ্ছন্ন বিভাগের এক সমন্বয় সভাও অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২ আগস্ট) দুপুরে নগরভবনের সরিৎদত্ত গুপ্ত সভাকক্ষে সভা হয়। এ সময় প্রধান অতিথি থেকে সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন জানান, ১৫ মাস ধরে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে অতিবাহিত করছি। করোনা বিশ^ তথা আমাদের দেশকে তছনছ করে দিয়েছে।

এমনই পরিস্থিতিতে করোনার পাশাপাশি এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া রোগ বিষয়ে আমাদের সচেতন থাকতে হবে। সরকার এ বিষয়ে সচেতন করতে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এটি প্রতিরোধে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। সবাইকে নিয়েই রাজশাহীকে সুরক্ষিত রাখতে চাই। তিনি বলেন, পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্য বিভাগের রয়েছে অনেক সাফল্য। সেই সাফল্যকে ধরে রাখতে হবে। ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া ও এডিস মশার প্রজননরোধে নাগরিকদের সচেতন করতে বাড়ি বাড়ি বার্তা পৌঁছে দিতে হবে। এ কাজে কাউন্সিলরবৃন্দের ভূমিকা রাখতে হবে।

স্বচ্ছ পানিতে থাকা এডিস মশার প্রজনন রোধে টব, ফ্রিজ, এসিতে জমে থাকা পানি দ্রুত অপসারণ করতে হবে। অন্যদিকে নগরীর ৩০ ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম উদ্বোধনও করা হয়। ১৫ দিনব্যাপি বিশেষ কর্মিদ্বারা জঙ্গল কর্তন, স্প্রে, মেশিন দ্বারা কীটনাশক প্র্রদান, বাড়ি বাড়ি ও ড্রেন সমূহে পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম, নাগরিক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে লিফলেট বিতরণও হচ্ছে।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল জানান, এই বিষয়ে বুধবার (৪ আগস্ট) সিভিল সার্জনের সাথে আমাদের একটি মিটিং রয়েছে। সেখানে রাজশাহীর সার্বিক বিষয় নিয়ে উপজেলার পৌরসভা ও স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে গুলোতে কার্যক্রমের নানামুখি উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

  • 65
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে