চাচার ঋণ বকেয়ার দায়ে বৃত্তির টাকা পাচ্ছে না স্কুল ছাত্রী

প্রকাশিত: জুলাই ৩১, ২০২১; সময়: ৬:১১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর তানোরে ব্যাংক ম্যানেজারের সেচ্ছা চারিতায় মেধাবী এক স্কুল ছাত্রীর বৃত্তির টাকা পাওয়া অসম্ভব হয়ে পড়েছে। এতে নিরুপাই হয়ে ওই ছাত্রীর বাবা শহিদুল ইসলাম আজ (৩১ জুলাই) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও)’র নিকট অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার পাঁচন্দর গ্রামের শহিদুল ইসলামের মেয়ে সানজিদা সুলতানা জয়া মুন্ডুমালা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮ম শ্রেণিতে ট্যানেন্টপুলে বৃত্তি পাই। ফলে সরকারি নিয়মে বৃত্তির টাকা তার নিকটস্থ সোনালী ব্যাংক মুন্ডুমালা হাট শাখার অনুকূলে ৫ হাজার ৯০০ টাকা জমা হয়। যার হিসাব নম্বর ৪৬২৬৮০১০০০০৮২।

এবিষয়টি স্কুল শিক্ষক জয়াকে অবহিত করেন। এতে জয়া আনন্দে আত্নহারা হয়ে দরিদ্র বাবা-মামাকে সঙ্গে নিয়ে সম্প্রতি (২৯ জুলাই) বৃহস্পতিবার ব্যাংকে যায়। কিন্তু তাকে বৃত্তি পাওয়ার কোনো টাকা দেয়া হয়নি। বরং তাকে ও তার পরিবারকে অপমান অপদস্থ্য করে ব্যাংক থেকে বের করে দেয়া হয়।

এনিয়ে সানজিদা সুলতানা জয়া জানান, তার আশা ছিল বৃত্তির টাকা উঠানোর পরেই প্রাইভেট পড়ার বাঁকী ফি পরিশোধ করবেন। আর কিছু বইপত্র ও নতুন পোষাক নেবেন। কিন্তু আশার মুখে ছাঁই ছিটিয়ে সব ভেস্তে দেন ব্যাংক ম্যানেজার মিঠুন কুমার দেব। ফলে ব্যাংক থেকে বৃত্তির টাকা না পেয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরেন জয়া।

স্কুল ছাত্রীর বাবা শহিদুল ইসলাম বলেন, তার বড় ভাই আতাউর রহমানের কাছে ক্ষুদ্র ঋণের কিছু বকেয়া টাকা পাবে সোনালী ব্যাংক। তার ভাইয়ের ঋণের দায়ে ব্যাংক আমার মেয়ের বৃত্তির টাকা কেটে নিবে কেন। এনিয়ে অনেক অনুরোধ করলেও তাকে ধমক দিয়ে ব্যাংক থেকে বের করে দেন ম্যানেজার। বিষয়টি নিয়ে মেয়ের স্কুলের বৃত্তির টাকা পাবার আশায় ইউএনও স্যারের নিকট অভিযোগ করেছি।

সোনালী ব্যাংক মুন্ডুমালাহাট শাখার ম্যানেজার মিঠন কুমার দেব বলেন, স্কুল ছাত্রীর চাচার কাছে অনেক পুরোনো একটি ঋণ পাওয়া যাবে। ঋণটা আদায় করার জন্য বৃত্তির টাকা আটকানো আছে। সরকারের দেয়া বৃত্তির টাকা ছাত্রীর চাচার ঋণের দায়ে ব্যাংক আটকাতে পারে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ম্যানেজার এড়িয়ে গেছেন।

এব্যাপারে তানোর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পঙ্কজ চন্দ্র দেবনাথ বলেন, স্কুল ছাত্রী বৃত্তির টাকা অন্য খাতে কেটে নেওয়ার এখতিয়ার ব্যাংকের নেই। ছাত্রী বাবা আমার কাছে মোবাইলে অভিযোগ দিয়েছেন। তাকে লিখিত অভিযোগ করতে বলা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যাংক ম্যানেজারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

  • 456
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে