রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ৯ম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: জুলাই ১৫, ২০২১; সময়: ৮:৩৮ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের বর্তমান পরিষদের ৯ম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত নগর ভবনের সিটি হল সভাকক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে মেয়র বলেন, নাগরিক সেবার প্রতিষ্ঠান রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন। বর্তমান পরিষদ দায়িত্ব গ্রহণের পর মহানগরীর উন্নয়নে পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করে। পরিষদের মেয়াদ প্রায় আড়াই বছর। ২০১৯ সালের মার্চ মাসে করোনা সংক্রমণ দেখা দিলে সারা বিশ^ থমকে যায়। সারাদেশের ন্যায় রাজশাহী মহানগরীর চলমান উন্নয়ন কার্যক্রমও বাধাগ্রস্থ হয়। এতো কিছুর মধ্যেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহী মহানগরীর উন্নয়নে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার রাজশাহী মহানগরীর সমন্বিত উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন। নগরীর উন্নয়নে এরই মধ্যে ৮৫০ কোটি টাকার টেন্ডার আহবান করা হয়েছে।

মেয়র বলেন, মহানগরীর উন্নয়নে সিটি কর্পোরেশন সকল কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। এটির বাস্তবায়ন কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। প্রকল্পের আওতায় ফ্লাইওভার নির্মাণ, নতুন নতুন ড্রেন রাস্তা নির্মাণ, ওয়ার্ড কার্যালয় কাম কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ, পার্ক ও বিনোদন কেন্দ্রের উন্নয়ন, বিভিন্ন সড়ক প্রশস্তকরণসহ নানান কাজ চলমান রয়েছে। ওয়ার্ড পর্যায়ে চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের কাজের গুণমান তদারকি করতে নির্দেশনা প্রদান করেন মেয়র।

তিনি বলেন, মহানগরীর কর্মহীন অসহায় মানুষদের করোনাকালীন সহায়তার জন্য পৃথক বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। আশা করছি তা মিলবে। সভায় উদ্যোগী সংস্থা কর্তৃক নির্মাণাধীন বাণিজ্যিক ভবনসমূহের সামগ্রিক অগ্রগতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। সিটি হাসপাতালের কার্যক্রমকে পুনরায় চালু করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদান করেন তিনি।

ইতোমধ্যে সাহেববাজারে পশু জবেহের স্থানটির উন্নয়ন করা হয়েছে। সাহেববাজারসহ নগরীর লক্ষ্মীপুর, শালবাগান ও নওদাপাড়ায় কশাইখানা নির্মাণ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

সভায় রাসিকের অর্থ ও সংস্থাপন স্থায়ী কমিটি, নগর অবকাঠামো নির্মাণ ও সংরক্ষণ স্থায়ী, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা এবং স্বাস্থ্যরক্ষা ব্যবস্থা স্থায়ী কমিটি, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন স্থায়ী কমিটি, মহিলা ও শিশু বিষয়ক স্থায়ী কমিটি, পানি ও বিদ্যুৎ স্থায়ী কমিটি, ইতিহাস পুরাকীর্তি সংরক্ষণ ও পর্যটন উন্নয়ন স্থায়ী কমিটি, পরিবেশ উন্নয়ন স্থায়ী কমিটি, দোকান বরাদ্দ কমিটির বিভিন্ন সভার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় বিভিন্ন স্পট/স্থাপনা ও রাইডস পরিচালনার নিমিত্তে গঠিত কমিটির কার্যক্রম অনুমোদন করা হয়। আগামী পঞ্চবার্ষিক কর নির্ধারণ কার্যক্রম শুরু প্রসঙ্গে আলোচনা করা হয়। মহানগরীর ভদ্রাস্থ ভাংড়িপট্টি স্থানান্তরকরণ সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। মানসিক বিকাশে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় শিশুদের জন্য আলাদা একটি খেলার মাঠ স্থাপনে ওয়ার্ড পর্যায়ে খাস জমি নির্ধারণে তালিকা সংগ্রহের বিষয়ে আলোচনা করা হয়। জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন ও সংশোধন সংক্রান্ত জটিলতা নিরসনে করণীয় নির্ধারণ ও লালন শাহ পার্ক ইজারাা বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভার শুরুতে গত ৮ম সাধারণ সভা হতে ৯ম সাধারণ সভা পর্যন্ত দেশ-বিদেশের বরেণ্য ব্যক্তিত্ব, সিটি কর্পোরেশন এলাকায় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, গণ্যমান্য ব্যক্তি, সমাজসেবক, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও কর্পোরেশনের যে সকল কর্মকর্তা/কর্মচারী মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের বিষয়ে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। শোক প্রস্তাব শেষে তাঁদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন সোনাদিঘি মসজিদের পেশ ইমাম ক্বারী মোঃ মামুনুর রশীদ।

সভা মঞ্চে উপবিস্ট ছিলেন রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, প্যানেল মেয়র-২ ও ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, প্যানেল মেয়র-৩ ও ১নং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর তাহেরা খাতুন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন, সচিব মশিউর রহমান। সভায় রাসিকের সকল ওয়ার্ড কাউন্সিলর, সকল বিভাগীয় ও শাখা প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে