নগরীর জিরো পয়েন্টে ছাগলের হাট ক্রেতা না থাকায় বিপাকে বিক্রেতারা

প্রকাশিত: জুলাই ১৫, ২০২১; সময়: ১০:৪২ am |

নিজস্ব প্রতিবেদক : কোরবানির আর বাকি মাত্র এক সপ্তাহ। এরই মধ্যে জমে উঠতে নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টের অস্থায়ী ছাগলের হাট। তবে ক্রেতা না থাকায় এবার বিপাকে পড়েছেন বিক্রেতারা। প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরেও জিরো পয়েন্টর বড় মসজিদে ক্ষুদ্র পরিসরে বসেছে ছাগলের হাটটি। তবে বেচা বিক্রি নেই আগের মত। বিক্রেতারা জানাচ্ছেন, লকডাউনের কারণে বাজারে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সাহেব বাজারে মানুষের সমাগম করতে দিচ্ছি না।

যে যার মত করে বাজারে এসে প্রয়োজন সেরে চলে যাচ্ছে তাই ক্রেতা কম। তবে আজ (১৫ জুলাই বৃহস্পতিবার) থেকে লকডাউন শিথিল হওয়ায় ক্রেতাদের সমাগম ঘটবে বলে আশাব্যক্ত করছে বিক্রেতারা। গতকাল বুধবার বেলা ৩ টায় বসেছে এই অস্থায়ী হাট চলবে রাত পর্যন্ত। বিকেল ৪ টায় সময় বড় মসজিদ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, প্রথম দিনেই প্রায় ৫০ টার বেশি ছাগল উঠেছে এই ছোট হাটে। তবে বেশিরভাগ ক্রেতা ছাগলের দাম শুনছেন আর দেখছেন। ছাগল ব্যবসায়ী আরমান আলী জানান, বিকেলেই এসেছি’ চারটি ছাগল নিয়ে। আমার সকল ছাগল গুলো ২০ হাজার টাকার উপরে বিক্রি করবো।

তবে আজ ক্রেতা নেই বললেই চলে। সবাই দাম জেনে চলে যাচ্ছে। আশা করি কাল পরশুর মধ্যেই বিক্রি হয়ে যাবে। মাসুদ রানা নামের আরেক বিক্রেতা দুই টি ছাগল নিয়ে এসেছে। বড়টির দাম চাচ্ছে ৩৫ হাজার টাকা ও ছোটটি ২২ হাজার টাকায় তিনি দাম হাঁকাচ্ছেন। তিনি বলেন, আজ প্রথম দিন তাই অনেকে জানে না যে আজ থেকে এই হাট বসেছে। তবে কিছু মানুষ আসছে দেখছে চলে যাচ্ছে। আগামীতে আরো কিছু ছাগল নিয়ে আসবো।

১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শরিফুল ইসলাম বাবু জানান, এই অস্থায়ী ছোট হাটের খাতা কলমে কোন অনুমোদন নেই। ছোট পরিসরে বসে নোংরা হলে আমাদের পরিচ্ছন্ন কর্মীরা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করে থাকে। এদিকে রাজশাহী জেলা প্রশাসন জানাচ্ছেন, নির্দিষ্ট পশু হাট ব্যতীত নতুন কোনো পশু হাট বসানো যাবে না এবং হাইওয়ে সংলঘগ্ন কোনো পশু হাট থাকলেও তা বসানো যাবেনা। এছাড়া অবশ্যই নিরাপদ দুরত্বে থেকে মাস্ক পরিধান করে সবাইকে পশু হাটে আসতে হবে। প্রতি হাটে মোবাইল কোর্ট যাবে আইন অমান্য করলে তাকে জরিমানার আওতায় আনা হবে।

  • 508
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে