জামিল ব্রিগেডের ফ্রি টিকা রেজিস্ট্রেশন বুথে মানুষের ভিড়

প্রকাশিত: জুলাই ১৩, ২০২১; সময়: ৯:২৮ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিনামূল্যে অক্সিজেন ও অ্যাম্বুলেন্স সেবার পাশাপাশি রাজশাহীতে প্রযুক্তির বাইরে থাকা সাধারণ মানুষকে ভ্যাকসিন সেবার আওতায় আনতে বিনামূল্যে টিকার অনলাইন রেজিস্ট্রেশন বুথ চালু করেছে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃত্বাধীন স্বেচ্ছাসেবী ভলান্টিয়ার দল শহীদ জামিল ব্রিগেড।

গত শুক্রবার থেকে শহরের সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে এই কার্যক্রমের উদ্বোধনের পর টিকা রেজিস্ট্রেশন করতে সাধারণ মানুষের মধ্যে আস্থা ও আগ্রহ দুটোই বেড়েছে। প্রতিদিনই মানুষ ভিড় জমাচ্ছেন জামিল বিগ্রেডের ফ্রি রেজিস্ট্রেশন বুথে। খুব অল্প সময়ে বিনামূল্যে টিকা রেজিস্ট্রেশনের প্রক্রিয়া শেষ করে সনদের প্রিন্ট কপি হাতে পাওয়ায় অনেকটাই সন্তোষ প্রকাশ করছেন উপকারভোগী বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

শুধু এখানেই শেষ নয়- সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্রিগেডের সদস্যরা টিকা রেজিস্ট্রেশনের জন্য মানুষের আগ্রহ বৃদ্ধি করতে প্রচার মাইকিংও করছেন। মানুষকে তাদের সেবার বিষয়ে অবগত করে উদ্বুদ্ধ করছেন টিকা গ্রহণের জন্য। বুথের পাশে মাইক হাতে বসে থাকা ব্রিগেডের মনিটরিং সেলের সদস্য নাজমুল করিম অপু জানান, ‘যাদের পত্র-পত্রিকা এবং সামাজিক মাধ্যমে অ্যাটাচমেন্ট কম তারা আমাদের এই সেবার বিষয়ে কম অবগত। আমরা সমাজের সব স্তরের মানুষকে টিকার আওতায় আনতে চাই। আমি যেখানে বসে আছি; এটি শহরের সব থেকে জনবহুল জায়গা। এখানে বিভিন্ন স্তরের মানুষের চলাফেরা। তাই সেবা দানের পাশে মাইকিংও চালাচ্ছি। এতে করে পূর্বে যারা এ বিষয়ে অবগত ছিলেন না- তারা এখন অবগত হচ্ছেন এবং টিকা রেজিস্ট্রেশন করতে এগিয়ে আসছেন।’

কার্যক্রমের সবশেষ জানতে চাইলে শহীদ জামিল ব্রিগেডের সমন্বয়ক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু বলেন, ‘আমরা লক্ষ্য করছি রাজশাহীতে এ পর্যন্ত যারাই টিকা গ্রহণ করেছেন তারা বেশিরভাগই সচ্ছল ও প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা রাখেন। কিন্তু প্রযুক্তির বাইরে থাকা মানুষদের এখনো স্বতঃস্ফূর্তভাবে টিকার আওতায় আনা সম্ভব হয়নি। সরকারের পক্ষ থেকেও এ নিয়ে কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। অনেক মানুষের কাছে টিকা না নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন নিয়ে জটিলতার কথা বলছেন। এ অবস্থায় তাদের জটিলতা কমাতে বিনামূল্যে শহীদ জামিল এই সেবামূলক কার্যক্রম চালু করেছে। রাজশাহীর সব মানুষ যতদিন ভ্যাকসিনের আওতায় না আসছে ততদিন আমাদের এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত আমরা সাধারণ মানুষকে এই সেবা দিচ্ছি।

রাজশাহীতে টিকা নিতে মানুষের আগ্রহ বৃদ্ধি ও প্রচারণামূলক কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি মন্তব্য করে দেবু বলেন, ‘শুধু টিকা এনে সংরক্ষণ করে রাখলেই হবে না, এটি গ্রহণ করতে মানুষকে উদ্বুদ্ধও করতে হবে। আমরা খারাপ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। টিকা ছাড়া করোনা মোকাবিলা অসম্ভব। প্রশাসনের উচিত শহরের ৩০টি ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ের সামনে রেজিস্ট্রেশনসহ একটি করে টিকা দানের বুথ চালু করা। এতে করে তৃণমূলের মানুষের মাঝে টিকার প্রতি আগ্রহ তৈরি হবে এবং তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে টিকা গ্রহণও করবে।’

উল্লেখ, গত বছর রাজশাহীতে করোনার প্রথম ঢেউয়ের সময়ও শহরজুড়ে বিভিন্ন ক্যাম্প স্থাপনের মাধ্যমে বিনামূল্যে অনলাইন রেজিস্ট্রেশনের কার্যক্রম পরিচালনা করেছিল ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী মহানগর কমিটি। মাঝে কিছু সময় টিকা দান কর্মসূচি বন্ধ থাকায় রেজিস্ট্রেশনের কার্যক্রমও বন্ধ ছিল। রাজশাহীতে ইতিমধ্যেই টিকা প্রদানের কর্মসূচি ফের চালু হওয়ার এবার শহীদ জামিল ব্রিগেডের উদ্যোগে ফ্রি রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে যে কেউ এলেই বিনামূল্যে মিলবে এই সেবা।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে