ঘর পেল বাঘার ৩৫ পরিবার

প্রকাশিত: জুন ২০, ২০২১; সময়: ৭:১৭ pm |

আব্দুল লতিফ মিঞা, বাঘা : রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বৃদ্ধা মনোয়ারা ও কুলসুম বেগমের চোখে এখন নতুন স্বপ্ন। মুজিববর্ষে ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার’ হিসেবে সুদৃশ্য সেমি পাঁকা ঘর পেলেন তারা। সেখানে স্বামী-সন্তান নিয়ে নিশ্চিন্তে বাঁকি জীবনটা কাটাতে পারবেন।

তাদের মতো জমি-ঘর কিছুই ছিলনা মালেকা, জাহিদুল, নজরুল, পিনজিরা, জিন্নাত, সালামসহ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারের। আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় এবার ৩৫টি সেমি পাঁকা ঘর পেয়েছেন ভূমিহীন-গৃহহীন এসব পরিবার। তারা বাস করবেন ভুমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য সরকারের গড়ে তোলা নিবাসে। জমিসহ ঘরের কাগজপত্র হাতে পাওয়ার পর হাসিমুখে তারা বলেন, কখনো ভাবতেই পারিনি,এমন পাঁকা ঘর পাবো। তারা জানালেন,যতদিন বেঁচে থাকবো ততদিন প্রধান মন্ত্রীর জন্য দোয়া করবো।

রোববার (২০জুন) সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে দেশব্যাপী দ্বিতীয় পর্যায়ের গৃহ হস্তান্তর এর শুভ উদ্বোধন শেষে ওইসব পরিবারকে জমির কাগজপত্রসহ ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয়। প্রতিটি ঘরে ব্যয় করা হয়েছে ১লাখ ৯০ হাজার টাকা।

উপজেলা সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্সিং অনুষ্ঠানে নির্বাহি অফিসার পাপিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দাীন লাভলু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ রাসেদ আহমেদ, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলামসহ আওয়ামীলগের স্থানীয় নের্তৃবর্গ, উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানগনসহ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার।

উপজেলা নির্বাহি অফিসার পাপিয়া সুলতানা জানান,”মুজিববর্ষে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না” প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই প্রশ্রিুতি বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে বিনামূল্যে তাদের ঘর দেওয়া হয়েছে। দুই কক্ষ সুদৃশ্য সেমি পাঁকা বাড়ির পাশাপাশি দুই শতক জমিও দেওয়া হয়েছে ওইসব পরিবারকে। দ্বিতীয় পর্যায়ে গৃহ ও ভূমিহীন ৩৫টি পরিবারকে সেমি পাঁকাঘর ও কাগজপত্র হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে উপজেলায় ১৬ পরিবারকে ঘর দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি ঘরে ব্যয় হয়েছে ১লক্ষ ৭১ হাজার টাকা। নির্বাহি অফিসার জানান,বাঘায় যোগদানের পর মহৎ কাজের সাথে সম্পৃক্ত হতে পেরে আমি গর্বিত।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে