রাজশাহীতে করোনার নতুন হটস্পট ৫ উপজেলা

প্রকাশিত: জুন ২০, ২০২১; সময়: ১২:১০ am |

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা আক্রান্ত রোগীদের চাপ বেড়েই চলেছে হাসপাতলে। হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীর ৫০ শতাংশই গ্রাম থেকে আসছেন। যাদের অধিকাংশই কৃষক নয়তো গৃহিণী। আর শহরের যারা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আসছেন তাদের অধিকাংশই ব্যবসায়ী। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. শামিম ইয়াজদানী।

শনিবার নিয়মিত ব্রিফিংয়ে শামীম ইয়াজদানী বলেন, গোদাগাড়ী ও তানোর উপজেলা থেকে সব বেশি রোগী আসছে। এর পরের অবস্থানে আছে দুর্গাপুর, বাগমারা ও চারঘাট থেকে আসা রোগী। সিটি কর্পোরেশন এলাকার মধ্যে বোয়ালিয়া এলাকার বেশি রোগী। যাদের অধিকাংশই ব্যবসায়ী।

পরিস্থিতি উত্তরণে নিজ নিজ এলাকার মানুষদেরকে স্বাস্থ্যবিধি পালনে সচেতন করতে ইউনিয়ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদেরকে প্রচার-প্রচারণায় জোর দিতে হবে। শুধু হাসপাতালের চিকিৎসার ওপর নির্ভর হয়ে থাকলে পরিস্থিতির আরো অবনতি হবে। মনে রাখতে হবে প্রতিটি হাসপাতালের নির্দিষ্ট ধারণ ক্ষমতা রয়েছে।

শনিবার সকাল পর্যন্ত রামেক হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডের নির্ধারিত ৩০৯টি বেডের বিপরীতে ৩৬৫ জন রোগী ভর্তি আছেন। যা করোনা মহামারি সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ। গত এক মাসে করোনা রোগীদের জন্য ১০০ এর বেশি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে।

রোববার থেকে ২৭ নম্বর ওয়ার্ডেও করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হবে। এই ওয়ার্ডে মোট ৪৮টি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। এবার আক্রান্তদের শুরু থেকেই অক্সিজেনের প্রয়োজন বড়ছে। যা ভয়ের অন্যতম কারণ।

  • 2.9K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে