রাজশাহীর করোনা ইউনিটে কমেছে মৃত্যু ও দৈনিক ভর্তি

প্রকাশিত: জুন ১৭, ২০২১; সময়: ১১:৩৮ am |

নিজস্ব প্রতিবেদক : শহরজুড়ে এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউনের শেষ দিনে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে কিছুটা কমেছে মৃত্যু। এছাড়াও কমেছে দৈনিক রোগি ভর্তি ও করোনা শনাক্তের হার। তবে হাসপাতালে বেড়েছে চিকিৎসাধীন রোগির সংখ্যা।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘন্টায় এ হাসপাতালে মারা গেছেন ১০ জন। বুধবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার মধ্যে বিভিন্ন সময় তারা মারা যান। এদের মধ্যে ৭ জন পুরুষ ও ৩ জন মহিলা।

তিনি জানান, মৃতদের মধ্যে রাজশাহীর ৭ জন এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর ও নওগাঁর ১ জন করে। এদের মধ্যে ৩ জনের পজেটিভ ছিল। বাকিরা মারা যান উপসর্গ নিয়ে। এ নিয়ে চলতি মাসের গত ১৭ দিনে মারা গেছেন ১৭১ জন। এর মধ্যে রাজশাহীর ৭১ জন ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৭৪ জন। মারা যাওয়া ১৭১ জনের মধ্যে ৯৬ জনের করোনা পজেটিভ ছিল। বাকিরা মারা যান উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায়।

শামীম ইয়াজদানী জানান, মৃতদের মধ্যে ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে একজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে চারজন ও ৬১ বছর বয়সের উপরের পাঁচজন।

তিনি জানান, গত ১৩ ও ১৬ জুন ১৩ জন করে এবং ১৪ ও ১৫ জুন ১২ জন করে মারা যায়। চলতি মাসে সবচেয়ে বেশী মারা যায় গত ৪ জুন ১৬ জন এবং সবচেয়ে কম ১২ জুন চারজন। আর রোগি ভর্তি গত ১৫ জুন ৫৮ জন, ১৬ জুন ৪৮ জন এবং ১৭ জুন ৪৪ জন। চলতি মাসে সবচেয়ে বেশী রোগি ভর্তি হয়েছে ১৫ জুন ৫৮ জন।

শামীম ইয়াজদানী জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত এ হাসপাতালের ২০টি আইসিইউসহ ৩০৯ বেডের বিপরিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৫৮ জন। এর মধ্যে রাজশাহীর ১৯৯, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৯৮, নাটোরের ২৪, নওগাঁর ২৪, পাবনার ৪, কুষ্টিয়ার ৪, চুয়াডাঙ্গার ২ জন রয়েছেন।

চিকিৎসাধীন ৩৫৮ জন রোগির মধ্যে করোনা পজেটিভ ১৬৪ জন। বাকিদের শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ রয়েছে। তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হওয়া ৪৪ জন রোগির মধ্যে রাজশাহীর ২৬ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের সাত, নাটোরের চার, নওগাঁর চার, মেহরপুরের দুই ও চুয়াডাঙ্গার একজন। একই সময় সুস্থ্য হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৩১ জন।

এদিকে, রাজশাহীতে সামান্য কমেছে করোনা শনাক্তের হার। বুধবার দুইটি ল্যাবে রাজশাহীর ৪০০ নমুনা পরীক্ষা করে ১৬৬ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে। রাতে প্রকাশিত দুইটি পিসিআর ল্যাবের নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে দেখা গেছে, আগের দিনের চেয়ে ১ দশমিক ৯৪ শতাংশ কমে করোনা শনাক্তের হার হয়েছে ৪১ দশমিক ৫০ শতাংশ। যা আগের দিন মঙ্গলবার ছিল ৪৩ দশমিক ৪৪ শতাংশ।

উল্লেখ্য, গত ১১ জুন থেকে এক সপ্তাহের জন্য রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকায় শুরু হয় সর্বাত্মক লকডাউন। যা বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে শেষ হওয়ার কথা ছিল। তবে বুধবার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তারা বৈঠক করে চলমান লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে দেয়। যা শেষ হবে আগামী ২৪ জুন রাত ১২টায়।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলেন, করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে লকডাউন একটি উত্তেম পন্থা। টানা দুই সপ্তাহ সর্বাত্মক লকডাউন কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা হলে ভাল ফল পাওয়া যায়। রাজশাহীর যে লকডাউন চলছে এতে আমরা সুফল পাব বলে আশা করছি।

  • 495
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে