রাজশাহী বিভাগে করোনায় মৃত্যু বেড়ে ৫৫০

প্রকাশিত: মে ৩০, ২০২১; সময়: ১১:০০ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩৫ হাজার ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে নতুন করে সংক্রমণ ধরা পড়ে ৩৩৭ জনের। এটি বিভাগে এক দিনে গত প্রায় দেড় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত রোগী। এ নিয়ে বিভাগে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩৫ হাজার ১৭৫।

নতুন করে তিনজন মারা গেছেন। এ নিয়ে বিভাগে মৃত্যু হলো ৫৫০ জনের। রোববার দুপুরে পাঠানো রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক নাজমা আক্তার স্বাক্ষরিত প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে পাঠানো প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, রাজশাহী বিভাগে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ১২ এপ্রিল। এরপর গত বছরের ২৯ জুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়ায়। এভাবে ২০ জুলাই ১০ হাজার, ৪ আগস্ট ১৫ হাজার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০ হাজার, চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি ২৫ হাজার এবং ১৯ এপ্রিল বিভাগে ৩০ হাজার ছাড়ায় করোনা রোগীর সংখ্যা। এ সংখ্যা ৩৫ হাজার ছাড়াল আজ রোববার।

রোববার পাঠানো প্রতিবেদনে বলা হয়, শনিবার সকাল আটটা থেকে রোববার সকাল আটটা পর্যন্ত বিভাগের ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় রাজশাহী বিভাগে ৩৩৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এটি গত দেড় বছরে এক দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। এ নিয়ে বিভাগে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩৫ হাজার ১৭৫।

এর আগে ২৮ মে বিভাগে সর্বোচ্চ ২৭৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি শনাক্ত হয়েছে করোনার নতুন ‘হটস্পট’ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ১৬১ জন। এ ছাড়া রাজশাহীতে ৮২ জন, নওগাঁয় ৪, নাটোরে ২৩, জয়পুরহাটে ২১, বগুড়ায় ২২, সিরাজগঞ্জে ৩ ও পাবনায় ২১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন তিনজন। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে রাজশাহী, নওগাঁ ও নাটোরে একজন করে রয়েছেন। বিভাগে এখন পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ৫৫০ জন। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৩১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে বগুড়া জেলায়। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৮৪ জন মারা গেছেন রাজশাহীতে। এ ছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩২ জন, নওগাঁয় ৪০, নাটোরে ২৪, জয়পুরহাটে ১১, সিরাজগঞ্জে ২৪ ও পাবনায় ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা কমেছে। এদিন মাত্র ৫১ জন সুস্থ হয়েছেন। এ নিয়ে বিভাগে মোট সুস্থ হয়েছেন ৩১ হাজার ৩৫১ জন।

রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক হাবিবুল আহসান তালুকদার বলেন, তাঁরা করোনার সংক্রমণরোধে সব ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। উপজেলা পর্যায়ে ব্যাপক হারে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার হার বাড়িয়েছেন। তিনি সবাইকে মাস্ক ও স্বাস্থ্যবিধিসহ সরকারি বিধিনিষেধ মানার জন্য অনুরোধ করেছেন।

  • 174
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে