রাজশাহী অঞ্চলে গ্রামেও ছড়াচ্ছে করোনা

প্রকাশিত: এপ্রিল ২২, ২০২১; সময়: ৩:২৮ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : দ্বিতীয় ঢেউ শুরুর পর রাজশাহী বিভাগে করোনার সংক্রমণ শহর বাজারে সক্রিয় থাকলেও এখন গ্রামেও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে আক্রান্তদের খুঁজে বের করে চিকিৎসার আওতায় আনা যাচ্ছে না। উপসর্গ নিয়ে ও উপসর্গহীন অনেক করোনা রোগী গ্রামে যত্রতত্র ঘুরেও বেড়াচ্ছে।

স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসকরা বলছেন, গ্রামে যারা আক্রান্ত হচ্ছেন, তাদের খুঁজে এনে হাসপাতালে ভর্তি করার ব্যবস্থা এবার নেই। যদি না কেউ নিজে থেকে হাসপাতালে আসেন। যখন শারীরিক পরিস্থিতি সংকটাপন্ন হচ্ছে, তখন তারা হাসপাতালে আসছেন। আর এ কারণে রাজশাহী বিভাগে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। ভুক্তভোগী স্বজনরা বলছেন, নিবিড় তদারকির অভাবে বিভাগে করোনার বিস্তার ঘটছে।

রাজশাহীসহ আশপাশের জেলাতে গত ২৪ ঘণ্টায় যারা শনাক্ত হয়েছেন, তাদের অধিকাংশই গ্রাম থেকে আসা বলে জানিয়েছেন রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস। তিনি জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসে ৩২ দিনে ৮৭ জনের মৃত্যু। বুধবার দিবাগত রাতে মারা গেছেন চারজন। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১১৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগি।

এদিকে ২o এপ্রিল সকাল ১০টা থেকে ২১ এপ্রিল সকাল ১০টা পর্যন্ত রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় করোনায় আরও আটজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড-১৯ ওয়ার্ডে তিনজন ও আইসিইউতে একজন মারা গেছেন। বাকি চারজন বগুড়ার দুই হাসপাতালে। এর পরের ২৪ ঘন্টায় মারা গেছে বগুড়ায় দুইজন।

আর এই সময়ের আগের ২৪ ঘণ্টাতেও রাজশাহী বিভাগে আরও আটজনের মৃত্যু হয়। ফলে গত তিনদিনে সরকারি হিসেবে রাজশাহী বিভাগে ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় রাজশাহী বিভাগে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৪৪২ জন।

রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তরের সহকারী পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) আনোয়ারুল কবীর বলেন, শনাক্তদের মধ্যে যাদের শারীরিক পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে, তাদের শুধু হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে। যাদের করোনা শনাক্ত হলেও উপসর্গ নেই তাদের বাড়িতে বা হোম আইসোলেশানে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বিভাগের আক্রান্ত ৯৯ ভাগই হোম আইসোলেশানে আছেন বলে জানান তিনি।

  • 669
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে