একই গাড়িতে প্রাণ গেল বাবা-ছেলের! লাখ টাকায় সমঝোতা

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৫, ২০২১; সময়: ৭:৫২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : তিন মাস আগে ট্রাক্টর চাপায় মারা গেছে বাবা। সেই ট্রাক্টরের র্দুঘটনায় এবার মারা গেল ছেলে শাকিল আহম্মেদ (১৬)। তার বাড়ি রাজশাহীর বাঘা উপজেলার কলিগ্রামে।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) ভোর চারটার দিকে চারঘাট উপজেলার ভায়া লক্ষিপুরে কাসেম মেম্বারের বাড়ির সামনে ট্রাক্টর চাপায় মারা যায় শাকিল। তিনি ওই ট্রাক্টরে হেলপারের কাজ করতেন।

বুধবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে রায়পুর গ্রামের রশিদের পুকুর খননের মাটি নিয়ে ভায়া লক্ষিপুরের একটি ইট ভাটায় সরবরাহ করতে যাচ্ছিল ট্রাক্টরটি। পথিমধ্যে ট্রাক্টরটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে কাসেম মেম্বারের বাড়ির সামনের একটি পুকুরে পড়ে উল্টে যায়। একই গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে ট্রাক্টর চালক রানা (৩২) বেঁচে গেলেও ট্রাক্টরের ইঞ্জিনের নীচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যবরণ করেন হেলপার শাকিল। তার মৃত্যুর ৩ মাস আগে এই গাড়ির র্দুঘটনায় মারা গেছে শাকিলের বাবা সুজন আলী।

নিহত শাকিলের চাচা সুমন জানান, তার ভাই সুজন আলী (শাকিলের আব্বা) প্রতিবেশী মাজদার রহমানের ছেলে মিটুল হোসেনের ট্রাক্টরে চালক হিসেবে কাজ করতেন। তিন মাস আগে ট্রাক্টর দুর্ঘটনায় মারা যান তিনি। বাবার মৃত্যুর পর লেখাপড়ার পাশাপশি ওই গাড়িতে হেলপার হিসেবে কাজ করতেন শাকিল। এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল শাকিলের।

তিনি বলেন, দুর্ঘটনায় মৃত্যুর পর বিষয়টি স্থানীয়ভাবে এক লাখ ১০ হাজার টাকায় সমঝোতা করা হয়েছে। নিহত শাকিলের মাকে এই টাকা প্রদান করা হবে। বাদ যোহর পারিবারিক গোরস্থানে লাশ দাফনের আগে স্থানীয় কাউন্সিলর সাইফুল ইসলাম টগর, সাবেক কাউন্সিলর জুবান মালিথা ও সাবেক মেয়র আক্কাছ আলীসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সমাঝোতা করা হয়। দাফনের পর সেই টাকা দেওয়ার কথা রয়েছে বলে জানা গেছে।

শালিসে উপস্থিত সাবেক কাউন্সিলর জুবান মালিথা বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থল এলাকায় বসে উভয়ের সমন্মতিতক্রমে সমাঝোতা করা হয়েছে। সেই টাকা চেকের মাধ্যমে দেওয়ার কথা রয়েছে।

চারঘাট মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানান, কারও কোন অভিযোগ না থাকায় লাশ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরত হাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে।

বাঘা থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল বারি জানান, মৃত ব্যক্তি আমার থানাধীন হলেও দুর্ঘটনাটি চারঘাট থানার মধ্যে। তাই বিষয়টি তারাই ব্যবস্থা নিবেন।

 

  • 40
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে