মোহনপুরে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করছে আসামীরা

প্রকাশিত: এপ্রিল ৬, ২০২১; সময়: ৮:৫০ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর মোহনপুরে ১৪৪ ধারা জারি করা হলেও তা ভঙ্গ করছে আসামীরা। ঘটনাস্থলে আসামীরা অবস্থান করে কৌশলে কাজ করছে এমন ছবি মোবাইলে ধারণ করতে গেলে আসামীরা হামলার চেষ্টা চালায়। রোববার সকালে মোহনপুরের নওগাঁ গ্রাম থেকে বাগমারার খালগ্রাম বাজারে যাওয়ার পথে আহসান হাবিবের সাথে আসামী গোলাম মোস্তফা ও তার স্ত্রী আশুরা খাতুন হিংস্র আচরণ করে।

জানা যায়, মোহনপুরের নওগাঁ গ্রামে ভূমিদস্যু কতৃক জমি দখলের চেষ্টা করায় আইন শৃংখলার অবনতি হওয়ায় রাজশাহী বিজ্ঞ আদালত ঘটনাস্থলে ১৪৪ ধারা জারির আদেশ প্রদান করার পর গত বৃহস্পতিবার সকালে মোহনপুর থানা পুলিশ বাদি ও আসামীদের নিয়ে এ ১৪৪ ধারা জারি পাঠ করে শুনান ও আসামীদের সর্তকতা করে আসেন তারা। আসামীরা হলো, গোলাম মোস্তফা, মোকছেদ আলী শাহ, জাফর আলী সর্দার, আশরাফ আলী, ফেলি বেগম, রওশন আরা, কাইয়ামুল, জোৎস্না।

মামলা সূত্রে জানা যায়, তথ্য প্রমানের সত্যতা পাওয়ার পর আদালত সিদ্ধান্ত নেন যে আসামীগণ যাতে নালিশী দাগ ভূমিতে অবৈধভাবে অনাধিকার প্রবেশ করতে না পারে, নালিশী দাগভূমিতে জবর দখল করিতে না পারে বা ঘর বাড়ী নির্মাণ করিতে না পারে বা রােপন কৃত ১৮টি আমগাছ জোরপূর্বক কাটতে না পারে। শুনানীর পূর্ব পর্যন্ত অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞার আদেশ দিয়া সুবিচার করিতে মর্জি হয়।

এরপরই মোহনপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে ১৪৪ ধারা জারি করেন। কিন্তু তা ভঙ্গ করে সেখানে রাতে আঁধারে আসামীরা বিদ্যুৎ বাল্ব জ্বালিয়ে কৌশলে কাজ করছেন ও দিনে সেখানে পানি দিয়ে পরিচর্যা করছে। উল্লেখ্য, সন্ত্রাসী বাহিনীর দাপটে নওগাঁ গ্রামে দেশীয় অস্ত্রের মহড়া দেখিয়ে জায়গা দখল করে নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছিল।

জমির খতিয়ান ভুক্ত মালিকরা তাদের বাধা দিতে গেলে তারা নিজারাসহ বহিরাগত ও মহিলা দাঁড়িয়ে রেখে তাদের অস্ত্র দেখিয়ে হুমকি দিয়ে নির্মাণ কাজ চালাতে থাকে। মোহনপুর থানা পুলিশ কয়েকবার গিয়ে নিষেধ করার পরও তারা ক্ষমতার দাপটে নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাই।

এমন অবস্থায় ভুক্তভুগী হারুন অর রশিদ দিং মামলার স্বীদ্ধান্ত নেন ও বিজ্ঞ আদালত ১৪৪ ধারা জারি প্রদান করেন ও মোহনপুর থানা পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আদেশ করেন।

এব্যাপারে রাজশাহী জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতেখার আলম জানান, থানা পুলিশের সাথে কথা বলে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে আসামীদের বিরুদ্ধে।

  • 39
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে