জমি দখলে নিতে নির্মিত প্রাচীর ভেঙ্গে দেয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: মার্চ ৩১, ২০২১; সময়: ৪:৪৯ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীতে জমি দখলের চেষ্টায় সিমানা প্রাচীর ভাঙ্গার অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করেছেন একটি ভুক্তভোগি পরিবার। জমিটি নিয়ে এর আগে স্থানীয়ভাবে কাউন্সিলর ও থানায় বসা হলেও মিমাংসা হয়নি। কারণ বিবাদীগণ মিমাংসায় বসে মানতে চাইলেও পরে প্রত্যাখান করে আসছেন। এমন অবস্থায় জমিটি নিয়ে মামলা চললে বিভিন্ন সময় চাঁদা দাবি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তোলে ভুক্তভোগিরা।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর একটি রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্ত পাঠ করেন- জমির মালিক শামসুল হকের ছেলে রাজিউল হাসান। সঙ্গে ছিলেন- ভাই সামিউল ইসলাম ও সাজিউল হাসান রিপন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়- শামসুল হক ১৯৮৫ সালে ৪৫২৮ নম্বর দলিলে ৫ শতাংশ জমি পায় (হড়গ্রাম মোজার জে.এল নম্বর ৫১)। সেই জমির খাজনা-খারিজ দিয়ে ভোগ করে আসছেন তিনি। ওই জমিতে বাড়ি নির্মাণ করতে গেলে সম্পত্তির পূর্ব অংশের ১. ২৫ শতক জমি লাইনুর নাহার ও তার স্বামী আব্দুল হামিদ নিজেদের বলে দাবি করে।

এনিয়ে বেশ কয়েকবার উভয়পক্ষকে নিয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর (দুই নম্বর ওয়ার্ড) আপোষ মিমাংসা করে দেন। কাউন্সিলর ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সামনে মিমাংসা মেনে নিলেও পরক্ষণে তারা তা মানেন না। ভূক্তভোগিরা মিমাংসার এক সপ্তাহ পরে কাশিয়াডাঙ্গা থানায় বিষয়টি নিষ্পত্তির আরজি জানায়। পরে থানার এসআই তাজউদ্দিনের তদন্ত সাপেক্ষে আবার ওয়ার্ড কাউন্সিলরের চেম্বারে মিমাংসার জন্য চলতি বছরের ১৫ মার্চ দিন ধার্য্য হয়। এর পরে সরেজমিনে থানার পুলিশ ও কাউন্সিলর উপস্থিত থেকে মাপযোগের জন্য ২৯ মার্চ দিন ধার্য্য করা হয়। তার আগের দিন কাউন্সিলর ও থানা পুলিশকে জানায় তারা মাপযোগ করবে না।

এই অবস্থায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর গত ২৯ মার্চ সীমানা প্রাচীর নির্মাণের জন্য অনুমতি দেন। প্রাচীর নির্মাণের দিন বিকেল ৫ টার দিকে হঠাৎ আব্দুল হামিদের ছেলে আতিক হাসান, মাসুদ পারভেজের নেতৃত্বে ১০ থেকে ১২ জনের একটি দল প্রাচীর ভেঙ্গে ফেলে। এসময় ভূক্তভোগিদের গলায় অস্ত্র (হাসুয়া, রামদা ইত্যাদি) ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি দেয়। ঘটনার দিন বিষয়টি নিয়ে কাশিয়াডাঙ্গা থানায় মামলা (মামলা নম্বর-৩৫) করা হয়েছে। তবে বিষয়টি মিমাংসার জন্য বিভিন্নভাবে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করছে ওই দুষ্কৃতিকারিরা।

বিষয়টি নিয়ে রাসিকের দুই নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম জানান- বিষয়টি নিয়ে বসা হয়েছিলো। সবার জমির কাগজ ঠিক আছে। আমি শুনেছিলাম- শামসুল হকের সিমানা প্রাচীর ভেঙ্গে দিয়েছে কে বা কারা। তবে আমি দেখিনে।

  • 129
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে