তানোরে বিরোধপূর্ণ সম্পত্তি বাগাতে বিএনপি নেতার পাঁয়তারা

প্রকাশিত: মার্চ ২০, ২০২১; সময়: ১০:৩৩ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর তানোর উপজেলার মুণ্ডুমালা বাজারে বিবদমান প্রায় অর্ধকোটি টাকার জমি নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এরমধ্যে হামলার ঘটনাও ঘটেছে। স্থানীয় বিএনপি নেতা বিরোধপূর্ণ জমি কিনে এখন জবর দখলের পাঁয়তারা করছে। স্থানীয় মাস্তানদের হাত করে তাদের সহায়তায় প্রায় অর্ধকোটি টাকার সম্পত্তি দখলের অপচেস্টা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহসিলদার (ইউনিয়ন ভূমি-উপসহকারী কর্মকর্তা) রবিউল ইসলাম সরেজমিন তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করলেও তা মানছে না জমির ক্রেতা দাবিদার বিএনপি নেতা ও স্থানীয় বাধাইড় ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান হেনা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মুন্ডুমালা বাজারে ওপর পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ২৬ শতক জমির মালিক ডাক্তার জালাল উদ্দিন ও তার ভাই প্রফেসর জাহিদুর রহমান। তাদের জমিতে মার্কেট নির্মাণ করে ইতিমধ্যে দোকানঘর বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। এ জমির একাংশ নিয়ে ডা. জালাল উদ্দিন ও তার ভাই জাহিদুর রহমানের মধ্যে আদালতে মামলা চলমান। এরই মধ্যে জাহিদুরের অংশের ১৩ শতক জমি ৩২ লাখ টাকা দিয়ে কেনেন বিএনপি নেতা কামরুজ্জামান হেনা।

জমি নিয়ে মামলা চলমান সত্তেও কোনো নিষ্পত্তির আগেই বিএনপি নেতা কৌশলে জমি কিনে এখন জোরপূর্বক দখলের পাঁয়তারা করছেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্য উত্তেজনা চলছে। সর্বশেষ গত ৩ মার্চ বিএনপি নেতা হেনার নেতৃত্বে জমি দখলের চেস্ট করা হলে দখলে থাকা ডা. জালাল উদ্দিনের ছেলেরা বাধা দিতে গেলে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। এ নিয়ে এখন উত্তেজনা বিরাজ করছে। অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ করা হয়েছে আদালতে।

ডা. জালালের ছেলে আহম্মদ হোসাইন অভিযোগ করেন, জমি নিয়ে চাচা জাহিদুরের সঙ্গে তাদের বিরোধ চলছে। আদালতে মামলাও চলমান। এরই মধ্যে তার চাচাকে ভুল বুঝিয়ে কৌশলে বিএনপি নেতা কামরুজ্জামান হেনা জমিটির ১৩ শতাংশ কিনেছন। এখন বিরোধপূর্ণ জমিটি দখলের পাঁয়তারা করছেন তিনি। নানাভাবে হুমকি-ধামকিও দিচ্ছে।

আহাম্মদ হোসাইন জানান, তার চাচা বিরোধপূর্ন জমি আদালতে নিষ্পত্তি হওয়ার আগেই গত নভেম্বর মাসে বিএনপি নেতার কাছে বিক্রি করেছেন বলে জেনেছেন। তিনি অভিযোগ করেন বিএনপি নেতা এখন সেই জমি দখলের চেষ্টা করছেন। লাঠিয়াল বাহিনী নিয়োগ করে তাদের মাধ্যমে হুমকি-ধামকি ও হামলার ভয় দেখানো হচ্ছে।

ইতিমধ্যে বিএনপি নেতা হেনা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নিরাপত্তা চেয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। প্রেক্ষিতে আদালত থেকে এ বিষয়ে তানোর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে প্রতিবেদন চেয়ে আদেশ দেন। ইউএনও সরেজমিন বিদ্যমান পরিস্থিতির আলোকে তদন্তপূর্বক মুণ্ডুমালা ইউনিয়ন ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তাকে (তহসিলদার) প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

তহসিলদার রবিউল ইসলাম সরেজমিন তদন্ত করে ইতিমধ্যে তানোর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি প্রতিবেদন দাখিল করেন। তাতে জমির মালিকানা জালাল উদ্দিনের হাতে রয়েছে বলে উল্লেখ করেন। তবে বিষয়টি মানছেন না বিএনপি নেতা কামরুজ্জামান হেনা।

জমিটি দখলে নিতে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করছেন। সন্ত্রাসী দিয়ে জমির মালিক ডা. জালাল উদ্দিন ও তার ছেলেদের প্রতিনিয়ত হুমকি দেওয়া হচ্ছে। জায়গা ছেড়ে না দিলে মালিকপক্ষকে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দিচ্ছে বিএনপি নেতা হেনা।

তবে বিএনপি নেতা হেনার দাবি তহসিলদার রবিউল ইসলাম তার প্রতিপক্ষ জালাল উদ্দিনের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সম্প্রতি পক্ষপাতমূলক একটি প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন। তিনি জমিটি বৈধভাবেই কিনেছেন বলে দাবি করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সদ্য কর্মস্থল ত্যাগকারী তানোর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার মাহাতো বলেন, তিনি তানোর থেকে বদলি হয়ে গেছেন। প্রতিবেদনটি পড়ে দেখার সময় পাননি। তাই সেই বিষয়ে কিছু তার জানা নেই।

  • 13
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে