বাঘায় ছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

প্রকাশিত: মার্চ ১২, ২০২১; সময়: ৪:১১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : অবশেষে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছেন কলেজ ছাত্রীর পিতা। বৃহসপতিবার রাতে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে বলে জানায় পুলিশ। শুক্রবার কলেজ ছাত্রীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে পাঠানো হয়েছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, বছর তিনেক আগে গ্রামের আব্দুল্লাহ নামের এক ছেলে বিয়ের কথা বলে প্রেম নিবেদন করে। এক পর্যায়ে মন দেওয়া করে, গোপনে ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে তার সাথে দৈহিক মেলা মেশা করতো। এর মাঝে বিয়ের জন্য চাপ দিলে, আজ-কাল বলে সময় ক্ষেপন করে। সর্বশেষ গত বুধবার (১০-০৩-২০২১) আব্দুল্লা তার বাড়িতে ডাকে কলেজ ছাত্রীকে। তার কথায় সাড়া দিয়ে সেখানে যাওয়ার পর দৈহিক মেলা মেশার প্রস্তাব দেয়। রাজি না হলে বিয়ে করবেনা বলে কলেজ ছাত্রীকে জানায় আব্দুল্লাহ। পরস্পর জানতে পারেন অন্যত্র আব্দুল্লার বিয়ে ঠিক হয়ে গেছে।

পরে বিয়ের দাবিতে ছেলের বাড়িতে অনশন শুরু করেন কলেজ ছাত্রী। তার পিতা রবিউল খোঁজখবর নিয়ে সেখানে গিয়ে বিষয়টি জানার পর, আব্দুল্লার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। বৃহসপতিবার (১১-০৩-২০২১) রাতে পুলিশ ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে রাতেই মামলা রেকর্ড করে।

মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে আব্দুল্লাহ জানান, তার সাথে সম্পর্ক ছিল। তবে সেই সম্পর্ক খুব বেশি দিনের নয়। তার সাথে দৈহিক কোন সম্পর্ক ছিলনা। বিয়ে করবো বলে গত রমজান মাসে আমার পরিবারকে জানিয়েছিলাম। কিন্তু আমার পরিবার রাজি হয়নি। তার পর থেকে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। অন্যত্র বিয়ের কথা শুনে আমার বিষয়ে উল্টা পাল্টা অভিযোগ করছে। বর্তমানে সেনাবাহিনীতে সিপাহি পদে কর্মরত বলে জানান তিনি। তার চাকরির বয়স ৫বছর চলছে।

মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই আবু তাহের জানান, আব্দুল্লাকে আসামী করে ছাত্রীর পিতা রবিউল বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেছেন। সে উপজেলার পাকুড়িয়া ইউনিয়নের গৌরাঙ্গপুর গ্রামের সাজদার রহমানের ছেলে। অপহরণ করে ধর্ষনের ধারায় মামলাটি রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানান এই কর্মকর্তা। ছাত্রীর শারিরিক পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে পাঠানো হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে