মোহনপুরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১; সময়: ৮:০১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : মোহনপুরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধুকে নির্যাতনের ঘটনায় রাজশাহীর বিজ্ঞ আমলী (২) নং আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। উপজেলার সইপাড়া গ্রামে বিবাহের পর থেকে টাকার লোভে নির্যাতনের শিকার হয়ে স্বামীসহ ৪ জনকে আসামী করে এ মামলা করেন গৃহবধূ জিনিয়ার আক্তার জেসি।

আসামী হলেন, গৃহবধূ স্বামী সইপাড়া গ্রামের শুকুরের ছেলে মাহাবুব আলম, শ্বাশুরী পারুল বেগম, নন্দু মাসুদ রানা, ননদ বিলকিস খাতুন। মামলা সূত্রে জানা যায়, বিবাহের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূ কে আসামীগণরা নানা ভাবে নির্যাতন করলে গৃহবধূর পিতা ৫০ হাজার টাকা নগদসহ ঢেড় লক্ষ টাকার আসবারপত্র দিতে বাধ্য হন। পরবর্তিতে আবারো লোভী শ্বাশুরী, নদন ও তার জামাতার শিকানো মাসনোদে স্বামীর নির্যাতন চরমে উঠতে শুরু করে।

তাদের পরিবারে সকলের জানায় তাদের নগদ ২ লক্ষ টাকা দিতে হবে, আর তা দিতে না পারলে তারা গৃহবধূ কে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার কৌশল অবলম্বন করে। অবশেষে গৃহবধূর পরিবার মিমাংশার চেষ্ঠা করে ব্যার্থ হলে তারা নির্যাতন করে তাকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন। গৃহবধূ জিনিয়ার আক্তার জেসি বলেন, আমাকে তারা বিভিন্ন কৌশলে নির্যাতন করার পাশাপাশি খাবার না খায়িয়ে প্রানে মেরে ফেলার চেষ্ঠা করে। আমার বাবার কাছ থেকে জোর করে তারা যৌতুক নিতে থাকে।

এখন তাদের চাহিদা আরো ২ লক্ষ টাকা দিতে না পারায় আমাকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেই। আমি সকল আসামীর দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি, যেন আর কোন পরিবার যৌতুকের নির্যাতনের বলি না হয়।

এলাকাবাসিরা জানান, তাদের বিবাহের আগে থেকে মাহবুবের মা পারুল পর্যন্ড একজন লোভী নারী। তাছাড়া তাদের মেয়ে ও জামাতাও টাকার নেশায় মাতোয়ারা। আর বিবাহের পর থেকে গৃহবধূকে নির্যাতন করে তা আমাদের সকলের জানা। গৃহবধূ ও তার পরিবারের লোকজন অতি সহজ সরল হওয়ায় তাদের কাছ থেকে যৌতুকের নামে অনেক টাকা ও তাদের বাড়িতে নতুন আসবারপত্র হাতিয়ে নেই তারা। আবারো যৌতুকের টাকার জন্যে চেষ্ঠা চালালে আমরাও প্রতিবাদ করি, কিন্তু মাহবুবের সরকারি চাকরির টাকার গরমে ও বহু বিবাহের নামে যৌতুক পাওয়ার আশায় গৃহবধূকে তাড়িয়ে দিতে সক্ষম হন।

এখন আমরা এই লোভী পরিবারের সর্বচ্চ শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। অভিযুক্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রাইমারী টিচার্স ট্রেনিং ইন্সটিটিউট (পিটিআই) এর সহকারি লাইব্রেরিয়ান মাহাবুব আলম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি যৌতুক গ্রহণ করিনি, যৌতুকের জন্য কোন চাপ চেষ্ঠাও করা হয়নি। আসলে আমার স্ত্রীর আচরনে সম্পর্ক রাখা সম্ভব হচ্ছেনা।

  • 35
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে