রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২০, ২০২১; সময়: ৪:০০ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোহা. মোকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে গুরুতর অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনি আপন ছোট ভাই বিএনপি নেতা তোফাজ্জল হোসেনকে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি করেছেন। শিক্ষা বোর্ডের নিয়ম-কানুন এবং বিধিবিধানকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ভাইকে সভাপতি করায় নিজ এলাকায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১৯ সালের ৪ নভেম্বর মির্জাপুর কলেজে পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে সরাসরি ভোটের মাধ্যমে পাঁচজন অভিভাবক সদস্য এবং তিনজন শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচিত হন। এরপর ২৫ ডিসেম্বর নির্বাচিত আট সদস্য মির্জাপুরের পার্শ্ববর্তী পাইতালি গ্রামের গোলাম মোস্তফা নামের এক ব্যক্তিকে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মনোনয়ন প্রদানের জন্য শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোহা. মোকবুল হোসেনের কাছে লিখিত দেন।

কিন্তু বোর্ড চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফাকে সভাপতি মনোনয়ন না দিয়ে ফাইলটি ছয় মাস আটকে রাখেন। এর ফলে কলেজ পরিচালনার ক্ষেত্রে নানান জটিলতা এবং বিড়ম্বনার সৃষ্টি হয়।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তোফাজ্জল হোসেন বলেন, মফিজুল হক স্বেচ্ছায় ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের পদ থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন। তাকে কোনো ধরনের চাপ প্রয়োগ করা হয়নি। একজন সিনিয়র শিক্ষক অপারগতা প্রকাশ করায় তার জুনিয়র শিক্ষককে অধ্যক্ষের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

নিয়মকানুন না মেনে এবং স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে আপন ভাইকে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মনোনয়ন দেওয়ার ব্যাপারে জানতে বোর্ড চেয়ারম্যান মোকবুল হোসেনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। তিনি ফোন রিসিভ করে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।

নিয়মকানুন না মেনে এবং স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে ভাইকে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি করা হয়েছে কি না, এ ব্যাপারে তিনি ফোনে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। বিষয়টি নিয়ে বক্তব্য নিতে হলে সরাসরি যোগাযোগ করতে হবে জানিয়ে ফোন কেটে দেন।

  • 245
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে