ছাত্রমৈত্রীর নেতা সানি হত্যার রায় দ্রুত কার্যকরের দাবিতে সভা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৪, ২০২১; সময়: ১০:২৮ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের তৎকালীন ছাত্রমৈত্রীর নেতা রেজওয়ানুল ইসলাম চৌধুরী সানি হত্যার খুনীদের বিচারের হাইকোর্টের দেয়া রায় দ্রুততম সময়ে কার্যকর না হলে বৃহত্তর ছাত্র আন্দোলনের হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে রাজশাহী জেলা ও মহানগর ছাত্রমৈত্রী নেতারা।

সোমবার সন্ধ্যায় নগরীর সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টের দলীয় কার্যালয়ে আগামী ৭ জানুয়ারি সানি দিবসের কর্মসূচি নিয়ে এক আলোচনা সভায় এই হুঁশিয়ারি দেন তারা।

সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি ওহিদুর রহমান। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য ও রাজশাহী মহানগর সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু।

এসময় ছাত্রমৈত্রীর নেতৃবৃন্দ বলেন, ২০১০ সালের ৭ জানুয়ারি সানি হত্যাকাণ্ডের পর বহু নাটকীয়তা পেরিয়ে ২০১২ সালের শেষের দিকে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল হত্যাকাণ্ডের প্রধান আসামি সাম্প্রদায়িক অপশক্তি জামায়াত-শিবিরের অনুপ্রবেশকারী নিজাম ও তুষারকে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করেন। এছাড়াও হত্যাকাণ্ডে জড়িত অন্যদের যাবজ্জীবনসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়। এর প্রায় ৯ বছর হতে চললেও রায় কার্যকরের কোন প্রক্রিয়া দৃশ্যমান নয়। রায় কার্যকর নিয়ে সংশ্লিষ্টদের এমন উদাসীনতা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির ওপর চপেটাঘাতের সামিল।

রায় কার্যকর নিয়ে আর কোন কালক্ষেপন হলে বৃহত্তর ছাত্র আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হবে উল্লেখ করে তারা আরও বলেন, তৎকালীন রাজশাহী পলিটেকনিকের শিক্ষার্থীদের প্রাপ্য শিক্ষার অধিকারসহ দুর্নীতিমুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে; স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির অতর্কিত হামলায় ছাত্রমৈত্রীর নেতা রেজওয়ানুল ইসলাম চৌধুরী সানি নিহত হন।

তার মৃত্যুর পরে মধ্যদিয়ে রাজশাহীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চলে আসা দীর্ঘদিনের দখলদারিত্বর বিলুপ্তি ঘটে। সাধারণ শিক্ষার্থীরা সানি হত্যার বিচারের দাবিতে রাজপথে লড়াই করেন। আপোষহীন সেই লড়াইয়ের মধ্যদিয়ে পাওয়া এই বহুল প্রত্যাশিত রায়। সেই রায় কার্যকরের প্রক্রিয়ায় যদি কোন কুচক্রী মহলের হস্তক্ষেপ পরে; তবে ছাত্রমৈত্রী সারা দেশে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে বৃহত্তর ছাত্র আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবে।

রাজশাহী জেলা ছাত্রমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন- ছাত্রমৈত্রী নগর সহ-সভাপতি সাকিবুল হাসান, মো: গালিব, প্রদীপ দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় সরকার, সহ-সাধারণ সম্পাদক খন্দকার অরনব।

এছাড়াও সভায় বোয়ালিয়া থানার সভাপতি অমিত সরকার, সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান, মতিহার থানার সভাপতি পলাশ ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক রিদুয়ান, কাশিয়াডাঙ্গা থানার সভাপতি ইয়াসিন ইসলাম রতন, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, রাজপাড়া থানার সাগর হাসান, চন্দ্রীমা থানার সভাপতি মো: সাকিল, স্কুল বিষয়ক সম্পাদক ঋতু সরকার, দপ্তর সম্পাদক আমিন, সমাজকল্যান সম্পাদক সুরাইয়া ইসিতা উপস্থিত ছিলেন।

  • 13
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে