রাজশাহীতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫০ টাকা (ভিডিও)

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০; সময়: ১:৪৫ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত বছরের ঠিক একই সময়ে সর্বোচ্চ আলোচনায় থাকা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পেঁয়াজ। ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণার পর থেকেই দেশের বাজারে বেড়েই চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যের দাম। একদিনের ব্যবধানে দাম বেড়েছে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ টাকা।এক সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা।

গেল বছরের সেপ্টেম্বরে আচমকা পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করেছিল ভারত। এবারও একই ঘটনা ঘটেছে। গত সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ভারতের রপ্তানি বন্ধের ঘোষণার পর বেসামাল হয়ে উঠেছে রাজশাহীর পেঁয়াজের বাজার।

রাজশাহীর সাহেব-বাজারের কাঁচাবাজারে গিয়ে দেখা যায়, দেশি পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৯০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমরা ৭৫ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনছি। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে ৬০ টাকা দরে বিক্রি করতে। এভাবে আমরা ব্যবসায়ীরা কিভাবে চলবো। এভাবে ব্যবসা করলে অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করতে পারবেন না।

রাজশাহীর সাহেব বাজার কাঁচাবাজারের আড়তদার জ্যোতি ট্রেডার্সের মালিক সেকেন্দার জানান, ‘আমরা গতকাল দুর্গাপুরের হাট থেকে ৩৬০০ টাকা মণ পেঁয়াজ কিনেছি। কিন্তু এই পেঁয়াজ আমরা গত হাটে কিনেছিলাম ২০০০ থেকে ২২০০ টাকা মণ। হঠাৎ করেই বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় আমাদেরকেও বেশি দিয়ে কিনতে হচ্ছে। যার জন্য বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দাম দিয়েই।’

আরেক পেঁয়াজ ব্যবসায়ী আনোয়ারুল জানান, আমরা বেশি দাম দিয়ে পেঁয়াজ কিনেছি। কিন্তু এখন প্রশাসন থেকে বলা হচ্ছে কম দামে পেঁয়াজ বিক্রি করতে। এতে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে।

তিনি আরও বলেন, বাজারে যারা পেঁয়াজ কিনতে আসছেন সকলেই গত বছরের মতো দাম বেড়ে যাওয়ার ভয়ে বেশি বেশি পেঁয়াজ কিনে নিয়ে যাচ্ছেন এবং মজুদ করে রাখছেন।

পেঁয়াজ কিনতে আসা মাহমুদ হাসান জানান, গত বছরের ঠিক এই সময়েই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পেঁয়াজের দাম বেড়ে প্রায় ২৫০ টাকা কেজি হয়ে গেছিলো। ঠিক আবারও এক বছর পর প্রায় একই অবস্থা। এজন্য বর্তমানে ৮০-৯০ টাকা কেজি দরেই অনেকেই বেশি বেশি পেঁয়াজ কিনে নিয়ে যাচ্ছে যদি আবারও আগের বছরের মতো দাম বেড়ে যায় এই ভয়ে।

এদিকে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাজারে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে অভিযান চালিয়েছে জেলা প্রশাসন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হোসাইন বাজারে এ অভিযান পরিচালনা করেন।

অভিযানের সময় ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের দাম কমিয়ে দেন কেজিতে ২৫ থেকে ৩০ টাকা। কিন্তু সাইফুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ী অতিরিক্ত দামেই পেঁয়াজ বিক্রি করছিলেন। এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হোসাইন তাকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করেন।

এ সময় বাড়তি দাম না নেয়ার জন্য ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়। এরপর দুইজন ম্যাজিস্ট্রেট বাজার থেকে চলে যাওয়ার সাথে সাথেই আবারও দেশি পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৯০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে দেখা যায়। অথচ ম্যাজিস্ট্রেট থাকার সময় দেশি পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৭৫ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ ৫৫ থেকে ৬০ টাকা দরে ব্যবসায়ীদের বিক্রি করতে দেখা যায়।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম বলেন, প্রাথমিকভাবে ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়েছে। এই অভিযানই শেষ নয়। পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে অভিযান চলবে।

 

  • 67
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়ে তুলতে হবে : খাদ্যমন্ত্রী
  • ডিবির প্রধান হলেন হাফিজ আক্তার
  • সোমবার থেকে দেশে বৃষ্টিপাত বৃদ্ধির সম্ভাবনা
  • নিবন্ধন সনদ জাল প্রমান হওয়ার পরও বহাল তবিয়তে প্রভাষক!
  • পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে
  • রাজশাহীতে নগর ও জেলায় ৪৬৬ মণ্ডপে দুর্গাপূজা
  • উপনির্বাচন কে ঘিরে চাঙা আ.লীগের নেতাকর্মীরা
  • রাজশাহীতে বাসের যাত্রীর পায়ুপথে হেরোইন, গ্রেপ্তার ২
  • অগ্রিম টাকা দিয়ে ভ্যাকসিন বুকিং করা দরকার: জাতীয় পরামর্শক কমিটি
  • কোভিড-১৯: বিশ্বজুড়ে প্রাণহানি ছাড়াল সাড়ে ৯ লাখ
  • সৌদির তেল রফতানি কমলো ৬২ শতাংশ
  • আইসিইউতে আল্লামা শফি
  • আইসিইউতে অ্যাটর্নি জেনারেল
  • কানাডা প্রবাসী পাত্রী সেজে আত্মসাত ৩০ কোটি টাকা
  • বাসে আটকে রেখে তরুণীকে ধর্ষণ চালক-সুপারভাইজার-হেলপারের
  • উপরে