চারঘাটে ছেলে ধরা সন্দেহে নির্যাতনের অভিযোগ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৭, ২০২০; সময়: ৩:০৯ pm |
নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর চারঘাট মুক্তারপুর এলাকার ৭ দিন আগে নিখোঁজ হওয়া শিশুর কবিরাজের আধ্যাতিক সন্ধানের দেয়া তথ্যের ভিত্তীতে ছেলে ধরা সন্ধে সুরুজ শেখ (৩৮) নামের এক জেলে কে অপহরণ করে ব্যাপক মারপিট ও নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। রোববার সন্ধা ৭ টার দিকে চারঘাট চক মুক্তারপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনা সূত্রে ও প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান, গত ৭ দিন আগে চারঘাট মুক্তারপুর এলাকার বদর ইসলামের ছেলে ফারুক হোসেনের ছেলে আল আমিন (৭) শিশুটি নিখোঁজ হয়। এ ঘটনায় চারঘাট থানায় একটি জিডি করে শিশুটির বাবা। নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে অনেক খোজা খুজির পরে শিশুটি কে না পাওয়া গেলে এক সময় শিশুটির সন্ধানে এক আধ্যাতিক কবিরাজের সরনাপন্য হন নিখোজ শিশুর বাবা। কবিরাজের দেয়া তথ্য মতে শিশুটি কাটাখালি ১০ নম্বার চরে ছেলে ধরার কাছে রয়েছে।
কবিরাজের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে গত রোববার সন্ধায় ১০ নাম্বার পদ্মা চর এলাকায় চরখিদিরপুর এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে সুরুজ শেখ (৩৮) পদ্মা নদীতে মাছ মারছিলেন। এসময় নিখোঁজ শিশুর বাবার নেতৃত্বে তার ভাই ইসমাইল, ভুট্টু, মুনসান ও শাহিন এবং চর মুক্তারপুর এলাকার মুসলেমের ছেলে ডাবলু, ইসমাইলের ছেলে ইয়াসিনসহ অজ্ঞাত কিছু ব্যক্তি চর থেকে সুরুজ শেখ (৩৮) কে ছেলে ধরা সন্ধে জোর করে তুলে নিয়ে চক মুক্তার পুর এলাকায় তাকে বেধে ব্যপক মারপিট ও নির্যাতন করে তারা।
নির্যাতন করে সুরুজ শেখের কাছে থেকে স্বীকার উক্তি মুলক নিখোজ শিশুটি কে বের করে দিবে বলে তার জবানন্দি ভিডিও ধরন করে নির্যান কারিরা। বিষটি সুরুজের পরিবার জানতে পেরে ৯৯৯ নাম্বারে ফোন করে বিষটি বলার পরে চারঘাট থানা পুলিশের একটি টিম চক মুক্তারপুর এলাকা থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় সুরুজ কে উদ্ধার করে চারঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বর্তমানে তার অবস্থা আশংঙ্কা জনক। তার গায়ে একাধিক মার পিটের নির্যাতনের দাগ।
এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার সুরুজের ভাই আক্কাস আলী জানান, সুরুজ নদীদে দীর্ঘদিন ধরে মাছ মারে। মাছ মেরে তার সংশার চালায়। প্রতিদিনের মতো গত রোববার সন্ধায় ১০ নাম্বার চর এলাকায় মাছ মারছিলো। কবিরাজের দেয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে নিখোজ শিশুর লোকজন ১০ নাম্বার চরে গিয়ে ডাক দেয় সুরুক কে। সুরুজ পুলিশ মনে করে পালিয়ে যাওয়ার চেস্টা করে। এসময় সেখান থেকে ধরে নিয়ে চকমুক্তার পুর এলাকায় নিয়ে বেধে ব্যপক মারপিট করে শিশুটির সন্ধান সে দিবে এ মর্মে তার জবান বন্দি ভিডিও করে।
তিনি আরো বলেন, ব্যপক নির্যাতনের পরে সুরুজ গুরুতর আহতো হলে। পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে নির্যাতন কারিদের সহায়তায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শিশু নিখোজের ঘটনা সুরুজ কিছুই জানে না।
চারঘাট থানার ওসি সমিত কুমার কুন্ডু জানান, ছেলে নিখোজের ঘটনায় নিখোজ শিশুর বাবা থানা একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিলো কিছু দিন আগে।তবে কবিরাজের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে কি না জানা নেই। তবে রোববার ছেলে ধরা সন্ধে সুরুজ কে যে অবস্থায় পায়। তাতে নিখোজ শিশুর পরিবারের লোকদের সুরুজ কে সন্ধ হয়। এসময় সুরুজ কে তারা ডাক দিলে সুরুজ দৌড়ে পালিয়ে যাবার চেস্টা করলে তাকে ধরে ফেলে। পরে চর মুক্তারপুর এলাকায় নিয়ে মারপিট করে এক পর্যায় তারাই হাসপাতালে ভর্তি করে। পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে এ তথ্য সঠিক না। এ ঘটনায় নিখোজ শিশুর বাবা ফারুক হোসেন একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • মুন্ডমালায় মেয়র পদে নৌকার প্রার্থী হতে চান আমিন
  • মোহনপুরে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটির সভা
  • রাজশাহী রেঞ্জ ডিআইজিকে সংবর্ধনা
  • পুঠিয়ার নয়া ইউএনও যোগদান
  • রাজশাহীতে ৪ খাদ্য কর্মকর্তা বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
  • রাজশাহী জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার বিদায়ী সংবর্ধনা
  • দূর্গাপুরে মাতৃত্বকালীন ভাতা ও মহিলাদের মৎস্য চাষে উদ্বুদ্ধ করতে ঋণ বিতরণ
  • দুর্গাপুরে ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন
  • রাজশাহীর একমাত্র করোনা বিশেষায়িত হাসপাতাল বন্ধ
  • তানোরে চক্ষু সেবার নামে রোগী ধরার ফাঁদ
  • করোনা জয় করে রাজশাহী ফিরলেন আ.লীগ নেতা বেন্টু
  • নতুন রূপ পাচ্ছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি
  • তানোরে পাঁকা রাস্তার বেহাল দশা! সংস্কার না করায় জনদুর্ভোগ চরমে
  • বাঘায় পদ্মায় নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে মোট ৬ টি স্কুল
  • চারঘাটে শহর সমন্বয় কমিটির সাধারন সভা
  • উপরে