রাজশাহীতে করোনা পরীক্ষার সনদ জালিয়াতি

প্রকাশিত: জুলাই ৩০, ২০২০; সময়: ৪:১৬ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে স্থাপিত করোনা পরীক্ষার ল্যাবের সনদ জালিয়াতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের একজন কর্মচারী করোনা পজিটিভ সনদ তাঁর প্রতিষ্ঠানে জমা দিয়েছিলেন। প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সনদটি যাচাই করার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজে পাঠায়। এতে ধরা পরে সনদটি জাল। তবে সনদধারী ওই কর্মচারী দাবি করেছেন তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন।

ওই কর্মচারীর নাম মমতাজ ইসলাম (২৬)। তাঁর বাড়ি রাজশাহী নগরের হড়গ্রাম এলাকায়। তিনি ঢাকায় একটি তৈরি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। তাঁর প্রতিষ্ঠান থেকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ল্যাবে করোনা পজিটিভ সনদটি যাচাই করার জন্য পাঠানো হয়। গত সোমবার কলেজ কর্তৃপক্ষ এটি হাতে পায়। সেদিনই যাচাই করে দেখা গেছে সনদটি এই ল্যাব থেকে দেওয়া হয়নি। মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ল্যাবের প্যাড নকল করে কলেজের সনদের আদলে অবিকল নকল সনদ তৈরি করা হয়েছে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ নওশাদ আলী জানান, মঙ্গলবার তাঁরা নিশ্চিত হয়েছেন যে সনদটি নকল। এটা ধরা পড়ার পরই তাঁরা নগরের রাজপাড়া থানায় মামলা করার জন্য অভিযোগ দিয়েছেন। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যে প্রতিষ্ঠান এই সনদ যাচাইয়ের জন্য পাঠিয়েছে তারাই মামলা করবে।

রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন খান বলেন, নিয়ম অনুযায়ী যে প্রতিষ্ঠান যাচাইয়ের জন্য সনদটি পাঠিয়েছে, তারাই মামলা করবে। তবে এ নিয়ে থানায় এখনো কোন অভিযোগ দেয়া হয়নি। মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি যাচাই বাছাই করছে বলে শুনেছি।

মমতাজ ইসলাম বলেন, ১৫ জুলাই করোনা পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগে গিয়েছিলেন। সেখানে অ্যাপ্রোন ও মাস্ক পরা দুজন লোককে দেখে তিনি তাঁদের হাসপাতালের লোক মনে করেছিলেন। তিনি করোনা পরীক্ষার ব্যাপারে তাঁদের কাছে পরামর্শ চেয়েছিলেন।

তারা তাকে জানান, অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করলে বাড়িতে গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার পর প্রতিবেদন দেওয়া হবে। আর হাসপাতালে করলে এখানে নমুনা নেওয়া হবে। তিনি অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে রাজি হলে তারা তার পূর্ণাঙ্গ ঠিকানা ও ফোন নম্বর নিয়ে তাৎক্ষণিক অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করে দেন বলে তাকে নিশ্চিত করেন।

পরের দিন তার বাসায় পিপিই পরে একজন লোক যান। নাকের ভেতরে নল দিয়ে তার নমুনা নিয়ে আসেন। তখন ওই ব্যক্তি বলেন, এই রেজিস্ট্রেশনের জন্য হাসপাতাল থেকে ২০০ টাকা করে নেওয়া হয়। আর প্রতিবেদনের জন্য পরে ১ হাজার ৮০০ টাকা দিতে হবে।

মমতাজ ইসলাম বলেন, ২১ জুলাই অন্য একজন লোক বাসায় এসে তাঁর মায়ের কাছে করোনা পজিটিভ সনদ দিয়ে যান এবং ১৮০০ টাকা নিয়ে যান। তিনি তখন বাসায় ছিলেন না। পরে তিনি তাঁর করোনা পজিটিভ হওয়ার বিষয়টি প্রতিষ্ঠানকে জানান। প্রতিষ্ঠান থেকে তাঁকে নকল সনদ সরবরাহের অভিযোগে কারণ দর্শানো নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, তিনি আসলে প্রতারণার শিকার হয়েছেন।

  • 137
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীক পেলেন পুঠিয়ায় রবি ও কাটাখালিতে আব্বাস
  • শিক্ষার্থীদের উপর হামলায় স্বাস্থ্যের প্রতিনিধিদের ঘৃণা প্রকাশ
  • দেশে করোনায় আরও ৩৬ জনের মৃত্যু
  • রাজশাহী অঞ্চলে আবারো বাড়ছে সংক্রমণ
  • করোনা রোগীর সংখ্যা ৬ কোটি ১৪ লাখ ছাড়ালো
  • শাহ মখদুম মেডিকেল কলেজে ভাড়ায় যন্ত্রপাতি
  • রাজশাহী শাহমখদুম মেডিকেল কলেজ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা (ভিডিও)
  • দেশে করোনায় আরও ২০ মৃত্যু
  • রাজশাহীতে বালু তুলতে পদ্মা ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ
  • দ্রুত সময়ে ভ্যাকসিন পেতে সরকার সমন্বিত উদ্যোগ নিয়েছে : কাদের
  • নতুন করে আরও ১৩শ’ মার্কিনির মৃত্যু
  • দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৩৭ মৃত্যু
  • রাজশাহীর দুর্গম চরে ভাড়ায় চালিত মোটর বাইক
  • ‘শিক্ষক নিয়োগে আদালতের আদেশ ভঙ্গ করেছেন রাবি ভিসি’
  • করোনাকালে রাজশাহীতে অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বেড়েছে প্রায় ২০%
  • উপরে