পুঠিয়ায় দুই বছরে কৃষি জমি নষ্ট করে ১২১টি পুকুর খনন

প্রকাশিত: জুলাই ৮, ২০২০; সময়: ৭:৩৪ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, পুঠিয়া : রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় পুকুর খননের মহা উৎসব চলছে। গত দুই বছরে ১ শত ২১ টি পুকুর খনন সম্পন্ন করেছে। বর্তমানে কয়েকটি স্থানে পুকুর খনন চলমান রয়েছে। ইতি মধ্যে পুকুর খননকারীরা জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, রাজশাহীর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) কে উকিল নোর্টিশ প্রদান করেন। একালাবাসীর দ্বন্দ্বের জের ধরে স্কেকেভিটর (ভেকু) মেশিন পুড়ানো, পুকুর খননের বিপক্ষে মানববন্ধন এর ঘটনা ঘটেছে। শুধু তাই নয়, সাংবাদিকদের অবগত করণপত্র এবং হুমকি দিয়ে উপজেলা বিভিন্ন স্থানে দিন-রাত পুকুর খনন করে চলছে। প্রশাসন অজ্ঞাত কারণে বিভিন্ন সময়ে নিরব ভূমিকা পালন করছে। তাতে পুকুর খননকারী দালালদের সহযোগীতা করার অভিযোগ করেছে কয়েকজন ক্ষমতাশীন দলের নেতার বিরুদ্ধে। যার কারনে দেখার যেন কেউ নেই। এর কারণে রাস্তা ঘাটের বেহাল অবস্থা। পরিবেশ নষ্ট করছে ট্রাকটার ও ভাড়ি ট্রাক গাড়ী বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার দপ্তর ও ইউনিয়ন ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলায় মোট ৭১ টি পুকুর খনন করা হয়েছে। এর মধ্যে পুঠিয়া ইউনিয়নে ৬ টি, বেলপুকুরিয়া ইউনিয়নে ৮টি, বানেশ্বর ইউনিয়নে ৪টি, ভালুকগাছী ইউনিয়নে ১৯ টি, শিলমাড়িয়া ইউনিয়নে ২৯, জিউপাড়া ইউনিয়নে ৫টি পুকুর খনন করেছে।

২০১৯-২০ অর্থ বছরে পুঠিয়া উপজেলায় মোট ৫০ টি পুকুর খনন করা হয়েছে। এরমধ্যে পুঠিয়া ইউনিয়নে ৫টি, বেলপুকুরিয়া ইউনিয়নে ৫টি, বানেশ্বর ইউনিয়নে ২টি, ভালুকগাছী ইউনিয়নে ২১ টি, শিলমাড়িয়া ইউনিয়নে ৭, জিউপাড়া ইউনিয়নে ১০টি পুকুর খনন করেছে।

এর মধ্যে মহামান্য হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্টে অর্ডার রয়েছে। রাজশাহী জেলা প্রশাসক রাজস্ব এর অনুমতি প্রাপ্ত হয়ে ২ টি পুকুর খনন হয়েছে।

চলতি বছর ৩০ এপ্রিল পুঠিয়া উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের বিলমাড়িয়া গ্রামের শামসুল হকের ছেলে শামীম হোসেন এবং একই উপজেলার শিলমাড়িয়া ইউনিয়নের কাশিয়াপুকুর গ্রামের মোঃ দবির উদ্দিনের ছেলে মোঃ আব্দুল গফুর এই দুই জনে ব্যারিষ্টার মোঃ আবুবাক্কার সিদ্দিক রাজন এর মাধ্যমে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, রাজশাহীর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুমন চৌধুরী ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) কে উকিল নোর্টিশ প্রদান করেন। বর্তমানে শামীম হোসেন দাপটের সাথে বর্তমানেও পুকুর খনন করে চলেছে।

ইতিমধ্যে জিউপাড়া ইউনিয়নের উজালপুর এলাকাবাসীর সাথে দ্বন্দ্বের জের ধরে স্কেভিটর (ভেকু) মেশিন পুরানোর ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে একটি মামলা চলমান রয়েছে। তারপরও পুকুর খনন শেষ করেছে খননকারীরা।

পুঠিয়া প্রেসক্লাব, পুঠিয়া উপজেলা প্রেসক্লাব সহ সাংবাদিকদের অবহিত করণ পত্র প্রাদান করে। আর একজন সাংবাদিককে হুমকি দেওয়ায় দুইজন পুকুর খননকারী রির“দ্ধে সাধারণ ডাইরী (জিডি) করেছেন।
ইতিমধ্যে ভালুকগাছী ইউনিয়নের গোটিয়া বিলে ফসলী জমিতে পুকুর খননের ঘটনায় এলাকাবাসী পুকুর খননকারী দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল কাদের মন্ডল এবং একই উপজেলার আঃ লতিফ এর বিরুদ্ধে এলাকাবাসী জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার ভূমি বরাবর লিখিত অভিযোগ জমা দেন। সেখানে ইতিমধ্যে ৪ বার ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করেছেন। তারপরও পুকুর খননকারীরা রহস্যজনক ভাবে দিন-রাত ভেকু মেশিন দিয়ে ফসলী জমির চারো ধার পুকুরের পাড়ি বাঁধা শেষ করেছে। এতে কোন সুফল না পাওয়ায় চলতি বছর মে মাসের ৪ তারিখে মানবন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

ব্যারিষ্টার আবু বাক্কার সিদ্দিক (রাজন) জানান, মহামান্য আদালতের অনুমতি ক্রমে ১৭ জন পুকুর খনন করার কথা সেখানে ১০ টি পুকুর খনন করেছে আবেদনকারীরা। তবে আমি খবর পেয়েছি কিছু পুকুর খননকারীরা কোন অনুমতি ছাড়াই, ক্ষমতাশীন রাজনৈতিক দলের গুটি কয়েক নেতা ও প্রশাসনের সহযোগীতায় আদালতের কাগজ জালিয়াতির মাধ্যমে পুকুর খনন করেছে।

থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল ইসলাম জানান, পুকুর খননের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ব্যবস্থা নিবেন। আমাদের কিছু করার নাই।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছাঃ শামসুন্নাহার ভূইয়া জানান, পুকুর খনন করছে লাভের আশায়, আর জমিতে জলাবদ্ধতার কারনেও পুকুর খনন করছে। আরেকটি দুঃখ জনক ঘটনা যে ফসলী জমিতে পুকুর খননের বিষয়ে আমাদের কৃষি অফিসের অনুমতি বা প্রত্যয়ন নেয় না। সেটা নিলে আমরা কখনোই দেবনা। আর কৃষকদের আমরা ভাল ফসল করতে সব সময় পরামর্শ প্রদান করছি। তাদের কোন সমস্য হলেই আমাকে জানালে আমি তাদের বাড়িতে গিয়ে পরামর্শ দিয়ে আসবো।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছাঃ রুমানা আফরোজ জানান, এই পুকুরের মধ্যে আদালতের রিট আবেদন ছিলো। তবে পুকুর খননের খবর পাওয়া মাত্রই আমি নিজে গিয়ে অভিযান চালিয়েছি। জরিমানা সহ ভেকু মেশিন অকেজো করা হয়েছে। আর তার রিপোর্ট প্রতিদিন জেলা প্রশাসক স্যারের নিকট পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ওলিউজ্জামান জানান, আমাদের পক্ষ থেকে খবর পাওয়া মাত্রই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমান আদলতের অভিযান চালিয়ে জরিমানা সহ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি পুকুরের মহামান্য আদালতের বিষয়টি ছিলো। আর অনেকে রাতের আধারে সেই পুকুর গুলো খনন করেছে। তবে কয়টি পুকুরে আদালতের অনুমতি ছিল বা আছে, সে বিষয়টি জানতে চাইলে তা তিনি জানাতে পারেনি।

  • 127
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • বন্ধ পাটকল ফের চালু হচ্ছে
  • চলাচল নিয়ন্ত্রণ থাকবে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত, মাস্ক না পরলে ব্যবস্থা
  • আত্রাইয়ে বন্যার পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
  • বাগমারায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে খাবারে বিষ মিশিয়ে স্বামী হত্যার অভিযোগ
  • আদমদীঘিতে ছুরিকাঘাতে কিশোর খুন, আহত ২ 
  • পোরশায় সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু নিহত, আহত ৮
  • এবার করোনায় আক্রান্ত ভারতের কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী
  • কিভাবে ঈদ কাটালেন মিন্নি?
  • নিয়ামতপুরে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
  • ১৫ হাজার জনবল নেবে রেল
  • ধামরাইয়ে সাত সকালে সড়কে ঝরল ৩ প্রাণ
  • কিশোরগঞ্জে নৌকা ডুবে নিখোঁজ তিনজনের মরদেহ উদ্ধার
  • ব্রাজিলে ২৪ ঘণ্টায় প্রায় ২৬ হাজার করোনা রোগী শনাক্ত
  • জয়পুরহাটে ফুটবল মাঠে যুবকের মৃত্যু
  • কুষ্টিয়ায় একদিনে করোনা শনাক্তের রেকর্ড
  • উপরে