বাঘায় সাবেক নেতাকে পেটালো ছাত্রলীগ সভাপতি

প্রকাশিত: আগস্ট ১৬, ২০১৯; সময়: ৩:৫০ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : রাজশাহীর বাঘা উপজেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির বিরুদ্ধে সাবেক নেতাকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে বাঘা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। উপজেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্রাপ্ত সভাপতি সোহানুর রহমান সোহাগের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ দায়ের করেন ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সবুজ ইসলাম। তিনি বাঘা পৌরসভার মর্শিদপুর গ্রামের কাউন্সিলর মোশারফ হোসেনের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাত সোয়া ৯টার দিকে উপজেলার হাবাসপুর গ্রামের শ্বশুরবাড়ি থেকে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে প্রাইভেট কারে বাড়ি ফিরছিল সবুজ ইসলাম। এ সময় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাথে আড়ানি বাসায় দেখা করে দুইটি মোটরসাইকেলে নিজ গ্রাম তুলশিপুরে ফিরছিল মনিগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক জিল্লুর রহমানের ছেলে ছাত্রলীগ নেতা সোহানুর রহমান সোহাগসহ তার সহকর্মীরা।

পথে বাঘা পৌর এলাকার ছাতারি ইক্ষু ক্রয় কেন্দ্র এলাকায় সবুজের প্রাইভেট কারের আলো হাই লো করা নিয়ে তাদের মধ্যে বাক বিতন্ডা ও গালাগালি হয়। এর এক পর্যায়ে মোটরসাইকেল নিয়ে চলে যায় সোহাগ। এ সময় সবুজ গাড়ি ঘুরিয়ে তাদের পিছু নে। সবুজ কার নিয়ে মনিগ্রাম বাজারের উত্তরে তুলশিপুর গেলে সোহাগ রাস্তায় মোটরসাইকেল ফেলে বেরিকেট দেয়। এর পর স্থানীয় লোকজনকে নিয়ে সবুজকে ধরে বেধরক পিটুনি দেয় তারা। খবর পেয়ে পুলিশ ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা গিয়ে সবুজকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

মনিগ্রাম বাজারের ব্যবসায়ী ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী শমসের আলী বলেন, রাত সাড়ে ১০টার দিকে তুলশিপুর রাস্তায় মোটরসাইকেলকে একটি কার পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে মোটরসাইকেল আরোহীরা পড়ে যায়। এ সময় কারটি খুরিয়ে নিয়ে পালানোর সময় কারের ধাক্কায় ট্রাক বন্দোবস্তকারি অফিসের সার্টার ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এসময় বিক্ষুব্ধ জনতার রোষানলে পড়ে হামলার শিকার হন কার চালক।

ছাত্রলীগ নেতা সোহাগ বলেন, তাকে কার চাপা দিয়ে মারার জন্য ছাতারি এলাকা থেকে ধাওয়া করে মনিগ্রাম বাজারে সবুজ। সেখানে তার মোটরসাইকেলে পেছন থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। পরে স্থানীয় লোকজনের রোষানলে পড়ে সবুজ। তবে কার ভাংচুর করার অভিযোগ অস্বীকার করেন সোহাগ।

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সবুজ বলেন, সড়কে চলার সময় প্রাইভেট কারের আলো হাই লো করছিলেন। এসময় সোহাগ মা মাসি তুলে গালিগালাজ করে। পরে কারটি খুরিয়ে নিয়ে তাদের পেছন পেছন মনিগ্রাম তুলশিপুর রাস্তায় যাই। সেখানে তারা রাস্তায় মােটরসাইকেল ফেলে দিয়ে বেরিকেট দেয়।

মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেওয়ার কথা অস্বীকার করে সবুজ বলেন, কারটি ঘোরানোর সময় ইট পাটকেল মেরে গাড়ির গ্লাস ভাংচুর করে। গাড়ি থেকে নামলে তাকে হাতুড়ি দিয়ে বেধরক মারপিট করা হয়। স্থানীয় কয়েকজনের সহায়তায় স্ত্রী ও মেয়ে নিয়ে একটি ঘরে আশ্রয় নিই। পরে স্থানীয় কয়েকজন নেতাসহ পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।

বাঘা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল ওয়াহাব বলেন, সবুজের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে