ছিনতাইয়ের অভিযোগে আরএমপির তিন পুলিশ বরখাস্ত

প্রকাশিত: মে ৬, ২০১৯; সময়: ১১:৪৮ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : নির্যাতন ও ভয় দেখিয়ে টাকা ছিনতাইয়ে নেয়ার অভিযোগে রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) একজন এএসআইসহ তিন পুলিশকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সোমবার বিকালে আরএমপি কমিশনার হুমায়ুন কবীর তাদের বরখাস্তের আদেশ দিয়েছেন। সাময়িক বরখাস্তের আগে তিন পুলিশকে রাজপাড়া থানা থেকে লাইনে প্রত্যাহার করা হয়।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া এএসআইয়ের নাম শরীফুল ইসলাম। অন্য দুই কনস্টেবল হলেন মনিরুল ইসলাম ও সুজন আলী। তারা নগরীর রাজপাড়া থানায় কর্মরত ছিলেন।

আরএমপির মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, একজন ভুক্তভোগীর লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর একজন উপ-কমিশনার (ডিসি) অভিযোগ তদন্ত করেন। তদন্তে এর প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। তাই তাদের সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দিয়েছেন আরএমপি কমিশনার।

তিনি বলেন, এখন বিষয়টি আরও গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হবে। সেই তদন্তের পর সিদ্ধান্ত হবে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে স্থায়ীভাবে কী ব্যবস্থা নেয়া হবে। সাময়িক বরখাস্ত বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের প্রথম ধাপ বলে জানান তিনি।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া এএসআই শরীফুল ইসলামের বিরুদ্ধে গত ২৯ এপ্রিল চাঁপাইনবাবগঞ্জের হরিপুর সাহাপাড়ার আবদুল হাকিম মানিক নামে এক ব্যক্তি পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

অভিযোগে আবদুল হাকিম মানিক জানান, গত ২৮ এপ্রিল এএসআই শরীফুলের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল নগরীর ডাবতলা এলাকায় তার ভাই হার্টের রোগী মো. সালাহউদ্দীনকে নির্যাতন করেন ও মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে তিন হাজার টাকা কেড়ে নেয়। এ ছাড়া মোবাইলের বিকাশের মাধ্যমে পরে নেয়া হয় আরও চার হাজার টাকা। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সালাহউদ্দিন রাজশাহীতে চিকিৎসা করাতে এসে পুলিশের হাতে এভাবে ছিনতাইয়ের শিকার হন।

মানিক বলেন, তিন পুলিশের কাছে থাকা একটি মোটরসাইকেলের নম্বরের সুত্রে তাদের শনাক্ত করা হয়। কারণ তিন পুলিশ সাদাপোশাকে ছিলেন।

নগরের রাজপাড়া থানার ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, মানুষের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের কারণে তিন পুলিশকে লাইনে প্রত্যাহার করা হয়। পরে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে