বাগমারায় এসিল্যান্ডের সহযোগীতা না পাওয়ার অভিযোগ

প্রকাশিত: মে ৬, ২০১৯; সময়: ৭:৪২ pm |

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বাগমারা : রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভুমি) আবুল হায়াত নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলামের অনুমতি দেয়া স্থানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার নামে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বার বার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি)’র দপ্তরে ধর্ণা দিয়ে তিনি কোন সৎকার পারছেনা। আজ সোমবার সকাল থেকেই তাদেরকে বাগমারা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি),র দপ্তরে ঘুরতে দেখা গেছে। সহকারী কমিশনার (ভুমি) আবুল হায়াতের খাম খেয়ালীপনার কারনে নওগাঁর আত্রাই উপজেলার আব্দুল মােমিন ফৌজদার নামের এক মৎস্যচাষীর ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়েছে। ঘটনাটির পর থেকে এলাকার লোকজনের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে যায়, গত ১ এপ্রিল নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার দারিয়াগাঁথি গ্রামের আব্দুল মোমিন ফৌজদার তাদের রেকডীয় সম্পত্তি রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার যোগীপাড়া ইউনিয়নের বোয়ালীপাড়া গ্রামে অবস্থিত। উক্ত সম্পত্তিতে প্রায় ৪০ বছর থেকে পুকুর খননের মাধ্যমে মাছ চাষ করে আসছে। পুকুরটি ভরাটের কারনে মাছ চাষে বাঁধা সৃষ্টি হচ্ছে। পুকুরটি পুন:খননের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরে লিখিত আবেদন করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিখিত আবেদনের কারনে বিষয়টি স্বরজমিনে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়ার জন্য সহকারী কমিশনার (ভুমি)কে লিখিত ভাবে জানান।

উপজেলা ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার ফেরদৌস হাবীব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার লিখিত আবেদন পেয়ে তিনি স্বরজমিনে ঘটনাস্থল পরির্দশন করে উপজেলা কৃষি অফিস, মৎস্য অফিস স্বাক্ষরিত, ০৫.৪৩.৮১.১২.০০০.১০.০২১.১৯.১৯৫(৩) নম্বর স্বারকে প্রতিবেদনটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরে প্রেরন করেন। গত ১৭ এপ্রিল উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপরোক্ত ব্যক্তদয়ের স্বাক্ষরিত প্রতিবেদন দেখে পুকুর মালিক আব্দুল মোমিন ফৌজদারকে পুকুরটি সংস্কারের অনুমতি প্রদান করেন। পুকুরটি সংস্কার কাজে ইউনিয়ন ভুমি অফিসের তহসীলদারকে দেখার দায়ীত্ব প্রদান করেন। পুকুর মালিক পুকুরটির সংস্কার কাজ শুরু করলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) আব্দুল হায়াত ঘটনারস্থলে যান এবং ভ্রাম্যমান আদালতের নামে সব তছনছ করে দেয়। পুকুর মালিক আব্দুল মোমিন জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অনুমতি থাকা সত্ত্বেও সহকারী কমিশনার (ভুমি) পুকুরে হানা দিয়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছেন। ভ্রাম্যম্যান আদালতের নামের তার অর্ধলক্ষ টাকা ক্ষতি সাধন করেছেন বলে তিনি জানিয়েছেন। এছাড়াও তিনি বাগমারায় যোগদানের পর থেকে ব্যাপক বেপরোয়া ভাবে চলাফিরা করছেন বলেও এলাকার লোকজন জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বাগমারা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) আবুল হায়াত বলেন, অনুমতির চেয়ে বেশী জমিতে পুকুর খননের কারনে সেখানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে তাদের পুকুর কাটা বন্ধ করা হয়েছে। অতিরিক্ত জমিতে পুকুর খনন করতে তার সাথে আলোচনা মাধ্যমে তা করতে হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে