মিশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে অনলাইনের অপব্যবহার রোধে মতবিনিময়

প্রকাশিত: মে ৫, ২০১৯; সময়: ৪:২১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : মিশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত।
উন্নয়ন ও মানবাধিকার সংগঠন এ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেভেলপমেন্ট-এসিডি’র উদ্যোগে ০৫ মার্চ ২০১৯ তারিখ মিশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট কমিটি, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে ‘অনলাইনে শিশু যৌন নির্যাতন এবং প্রতিরোধ ও নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার-পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন পর্যালোচনা’ বিষয়ক মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন মিশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মারিয়া অলকা মন্ডল। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অভিভাবক সদস্য মো. আমানুল্লাহ সরকার।

অনুষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে ‘নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহারে সচেতনতা বিষয়ক নির্দেশিকা এবং পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন পর্যালোচনা বিষয়ক তথ্য উপাত্ত’ উপস্থাপন করেন এসিডি’র প্রোগ্রাম ম্যানেজার মো: আলী হোসেন। উপস্থাপনায় অনলাইনে শিশুদের যুক্ত থাকার সুবিধা ও অসুবিধা, অনলাইন শিশু যৌন নির্যাতন ও শোষণ, নির্যাতনের ধরন, নির্যাতন বিষয়ে শেয়ারিং এর প্রয়োজনীয়তা, সামাজিক ট্যাবো, কারা যৌন নির্যাতন করে, নির্যাতন থেকে সুরক্ষার উপায় ও সতর্কতা, উল্লেখিত আইনের অপূর্ণতাসমূহ গুরুত্ব পায়। সবশেষে অনলাইনে শিশু যৌন নির্যাতন এবং প্রতিরোধ ও নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার বিষয়ে সবার মূল্যবান মতামত নেয়া হয়।
মুক্ত আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ মতামত ব্যক্ত করেন সহকারী শিক্ষক মো. সাবিয়ার হোসেন, মো. আব্দুল্লাহ আল আজিজ, রোকসানা শামীম, মনিকা ক্রুশ এবং লিডিয়া তমা রায় এবং শিক্ষার্থীগণ। বক্তারা বলেন, শিশুরা জাতির ভবিষ্যত। তাই জাতিকে বাঁচাতে হলে শিশুদের অনলাইনে যৌন নির্যাতন থেকে বাঁচাতে হবে। এজন্য অভিভাবক ও শিক্ষকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। সবসময় আইনের দিকে তাকিয়ে থাকলে হবেনা, আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে। তিনি আরো বলেন, আমরা অভিভাবক সভা ও ক্লাশে নিয়মিত আলোচনার মাধ্যমে সকল অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করব। পাঠ্য বইয়ে বিষয়টি অন্তর্ভূক্ত হয় তাহলে অবশ্যই শিশুরা নির্যাতন থেকে নিজেদের রক্ষা করতে শিখবে। অভিভাবকদেরও ইন্টারনেট ব্যবহার সম্পর্কে অধিক সচেতন হওয়া ও নজরদারি করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করাতে হবে।

প্রধান শিক্ষিকা মারিয়া অলকা মন্ডল স্কুলের শিক্ষকগণ শিক্ষার্থীদের ক্লাসে এবং অভিভাবক সমাবেশে অভিভাবকদের মাঝে ইন্টারনেটের অপব্যবহারের ক্ষতির দিকগুলো নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে সচেতনতা তৈরি করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। তিনি মনে করেন পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনসমূহে শিশুদের প্রতিকার পাওয়ার ক্ষেত্রে যে অপূর্ণতাগুলি রয়েগেছে তা জরুরী ভিত্তিতে রিভিউ করা প্রয়োজন। তিনি মতবিনিময় সভা আয়োজন করার জন্য এসিডিকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানান এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে