কচুয়ায় ৩ যুবলীগ নেতার কান্ড

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৯, ২০২২; সময়: ৯:২৬ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, কচুয় : চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার ৫নং পশ্চিম সহদেবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য রুবেল আহমেদ নীরবের নেতৃত্বে আর ২ যুবলীগ নেতা খিলমেহের গ্রামের এক বিধবা নারীর জমি সংক্রান্ত মীমাংসার ৪০ হাজার টাকা নিয়ে উধাও হওয়ার চাঞ্চল্যকর খবর পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার ভূক্তভোগী ওই নারী সাহিদা বেগম বাদী হয়ে ৩ যুবলীগ নেতাকে অভিযুক্ত করে কচুয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযুক্তরা হলেন, ওই ইউনিয়নের প্রসন্নকাপ গ্রামের ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে রুবেল আহমেদ নীরব,সেঙ্গুয়া গ্রামের আলফু মিয়ার ছেলে হানুরুর রশিদ ও মালচোয়া গ্রামের মনোহর মিয়ার ছেলে ডালিম সরকার।
অভিযোগের প্রেক্ষিতে কচুয়ার থানার এএসআই রামু চন্দ্র রায় অভিযুক্তদের বাড়িতে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন। তিনি মঙ্গলবার রাত ৮টা ২২ মিনিটে এ প্রতিনিধিকে জানান আমি এখনো অভিযুক্তদের বাড়িতে রয়েছি। তবে টাকা ফেরত দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে তিনি জানান।

থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কচুয়া উপজেলার খিলমেহের গ্রামের মৃত. আইয়ুব আলীর স্ত্রী সাহিদা বেগম এর সাথে একই বাড়ির ভাসুর সম্পর্কে আবুল খায়ের এর স্ত্রী হালিমা বেগমের জমি সংক্রান্ত একটি বৈঠক সম্প্রতি মীমাংসা হয়। এতে হালিমা বেগম সাহিদা বেগমকে জমি সংক্রান্ত লেনদেন বাবদ ৫৫ হাজার দেয়ার সিদ্ধান্ত হয় এবং ওই ৫৫ হাজার টাকার মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় ইউপি সদস্য আলাউদ্দিনের কাছে ৪০ হাজার টাকা জমা দেয়। জমাকৃত টাকা আলাউদ্দিন মেম্বার তার অফিসে সাহিদা বেগমের কাছে বুঝিয়ে দেয়। এক পর্যায়ে সাহিদা বেগম তার মেয়ে সীমা আক্তারের কাছে ওই টাকা জমা দিলে যুবলীগ নেতা রুবেল আহমেদ নীরব টাকা গুলো গুনে দেই বলে তার পকেটে ডুকিয়ে কৌশলে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

ভূক্তভোগী সাহিদা বেগম বলেন, আমার স্বামী নেই। সন্তানদের নিয়ে অনেক কষ্টে আছি। মীমাংসার ৪০ হাজার টাকা মেম্বার আমার হাতে দেয়ার পরপর রুবেল,হারুন ও ডালিম নিয়ে চলে যায়। টাকা ফেরত দিতে আমি তাদের হাতে-পায়ে ধরে কান্নাকাটি করেছি। তবুও টাকা ফেরত দেয়নি। পরে বাধ্য হয়ে থানা পুলিশের সহযোগিতা নিয়েছি। আমি আমার টাকা ও মান সম্মান ফেরত চাই।

ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি টাকা দেয়া মাত্রই রুবেল বাদীর মেয়ের কাছ থেকে টাকা গুলো গুনে দেই বলে নিয়ে যায়।

অভিযুক্ত রুবেল আহমেদ নীরবের স্ত্রী বলেন, মঙ্গলবার সকালে হারুন ও ডালিম ফোন দিয়ে আমার স্বামীকে ঘর থেকে নিয়ে যায়।

ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক মো. আজাদ হোসেন ও সিনিয়র যুগ্ন আহ্বায়ক রাসেল আহমেদ ইমন বলেন, তারা তিনজনই ইউনিয়ন যুবলীগের দায়িত্বশীল পদে রয়েছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. আলমগীর হোসেন বলেন, বিষয়টি খুবই দু:খজনক। অভিযুক্ত রুবেল আহমেদ নীরব তার আত্মীয় ও কর্মী কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, রুবেল আমার কর্মী নয়। তবে ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।
এব্যাপারে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মো. শাহজালাল প্রধান জালাল বলেন, বিষয়টি আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও স্থানীয় যুবলীগের নেতাদের কাছ থেকে শুনেছি।

বিষয়টি খুবই দু:খজনক দাবি করে তিনি বলেন নিয়ম মোতাবেক তাদের দলীয় পদ থেকে বহিস্কার করা হবে। এদিকে এ ঘটনায় এলাকায় বেশ তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে এবং অভিযুক্ত তিন যুবলীগ নেতার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে