রাজশাহীতে ছয় মাস পর দলীয় কর্মসূচিতে বিএনপির শীর্ষ তিন নেতা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১, ২০২১; সময়: ৯:৫৩ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : দীর্ঘ ছয় মাস পর প্রকাশ্যে দলীয় কর্মসূচিতে অংশ নিলেন বিএনপির রাজশাহীর শীর্ষ নেতারা। বুধবার দলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে মহানগর বিএনপির কর্মসূচিতে তাদের অংশ নিতে দেখা গেছে। ছয় মাস আগে নগর আওয়ামী লীগ তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করে। এরপর থেকে তারা প্রকাশ্যে কোনো দলীয় অনুষ্ঠানে আসতেন না।

এই তিন নেতা হলেন, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি এবং সাবেক মেয়র ও এমপি মিজানুর রহমান মিনু, মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন।

দলীয় নেতা-কর্মীরা বলেন, এর আগে সবশেষ গত ২ মার্চ বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে অংশ নিয়ে তারা বক্তব্য দিয়েছিলেন। সেখানে প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি ও সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রমূলক বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে তাঁদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হয়।

ওই মামলায় দলের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদারকেও আসামি করা হয়। এই মামলার পর ওই চার নেতা আত্মগোপন করেন। গত ২৫ আগস্ট মিজানুর রহমান মিনু, মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ও শফিকুল হক মিলন উচ্চ আদালত থেকে জামিন নেন।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার সকাল সাড়ে সাতটায় নগরের মালোপাড়া এলাকায় নগর বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে দলীয় ও জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পাশাপাশি পায়রা ওড়ানো হয়। এর আগে প্রধান অতিথি হিসেবে সমাবেশে বক্তব্য দেন মিজানুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘আমরা মাথা নত করি একমাত্র আল্লাহর কাছে। কোনো ভারতীয় তাবেদার বাহিনীর কাছে নয়। কোনো দালাল সরকারের কাছে নয়। কোনো ভয় নেই, কোনো দুশ্চিন্তা নেই। সময় খুবই সামনে, সারা বিশ্বের মানুষ দেখতে পাচ্ছে বাংলাদেশের পরিবর্তন সুনিশ্চিত।’

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মোহাম্মদ মোসাদ্দেক বলেন, ১৪ বছরে নির্যাতন, নিপীড়ন, হত্যা, গুম এমন কোনো কাজ নেই যে বতর্মান সরকার করেনি। ভোট চুরি করে বাংলাদেশের নৈতিক অবস্থানকে দুর্বল করে ফেলেছে।

সমাবেশে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হকও বক্তব্য দেন। এ ছাড়া বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সাংসদ নাদিম মোস্তফা। তারা ঢাকায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে তার লাশ আছে কি না, তা নিয়ে বিতর্ক তোলার সমালোচনা করেন। সমাবেশ পরিচালনা করেন নগর বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক। কর্মসূচিতে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

  • 166
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে