রাজশাহীর নওহাটায় মনোনয়ন দৌড়ে দুই দলের ৮ নেতা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৪, ২০২১; সময়: ১১:৩৯ pm |

সরকার দুলাল মাহবুব : আসন্ন নওহাটা পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ৮জন নেতা দলীয় মনোনয়ন পেতে ব্যাপক দৌড়ঝাপ শুরু করেছে। গত ৩ জানুয়ারী নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নওহাটা পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হওয়ায় নিজ দলীয় মনোনয়ন পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মরিয়া হয়ে উঠেছে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সারা দেশে দুই শতাধিক পৌরসভায় কয়েক ধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত করছেন। এরই মধ্যে প্রথম ধাপের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে ২৮ ডিসেম্বর। পৌর নির্বাচন ঘিরে ইতোমধ্যে সরগরম তৃণমূলের রাজনীতি।

বিশেষ করে ভোট সামনে রেখে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি রাজনৈতিক দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা। অনেক আগে থেকেই গণসংযোগের পাশাপাশি দলীয় মনোনয়ন পেতে শুরু করেছেন লবিং। এবারও একক প্রার্থী চূড়ান্তে হিমশিম খাচ্ছে আ’লীগ ও বিএনপি।

এরইমধ্যে অনুষ্ঠিত অন্যান্য পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের দলের সকল পদ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। পরবর্তী নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী থাকলে তাদেরকেও দল থেকে বহিস্কার করা হবে বলে দলীয় সুত্রে জানা গেছে। তবে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী থাকলেও তাদের বহিস্কারের তথ্য জানা যায়নি।

গত রোববার ৩ জানুয়ারী পৌরসভা নির্বাচনের চতুর্থ ধাপের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এতে রাজশাহীর নওহাটা পৌরসভার নামও রয়েছে। পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে জোর প্রস্তুতি শুরু হয়েছে আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মধ্যে। ইতোমধ্যে মাঠে চষে বেড়াচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। প্রায় প্রতিটি পৌরসভায় ক্ষমতাসীন দলে সম্ভাব্য প্রার্থীর ছড়াছড়ি। নওহাটা পৌরসভাতেও ব্যতিক্রম হয়নি। এখানে ক্ষমতাসিন আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র আটজন নেতা মেয়র প্রার্থী হতে মাঠে আছেন।

বেশ কিছুদিন আগে থেকেই উভয় দলের এই আট নেতাসহ কমপক্ষে ১৫জন মেয়র প্রার্থী হিসেবে নিজেদের জানান দেন। তবে তৃণমুলে জনগণের প্রত্যাশার প্রেক্ষিতে এখনো আটজন মাঠে লড়ে যাচ্ছেন। তৃণমূলের তালিকায় নাম আনতে লবিং-তদবিরসহ পোস্টার-ব্যানারের পাশাপাশি অনলাইনেও চালাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণা। অবস্থান জানান দিতে দিচ্ছেন মহড়াও। সভা-সামবেশতো আছেই। ফলে এবারের নির্বাচনেও একক প্রার্থী নিশ্চিত করাই দল দু’টির প্রধান চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

করোনাভাইরাসের মহামারীর মধ্যেই শুরু হওয়া তৃণমূলে নির্বাচনী হাওয়ায় ভাসছে নওহাটা পৌরবাসি। রোববার রাজশাহীর নওহাটা পৌরসভার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে কেন্দ্রের দিকে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়ে গেছে। সুত্রমতে কেউ কেউ ঢাকায় অবস্থান করছেন।

পৌরসভায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে মাঠে আছেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মানজাল, নওহাটা পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল বারী খান, যুবলীগ সভাপতি হাফিজুর রহমান হাফিজ, রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ও নওহাটা পৌর সাবেক মেয়র আব্দুল গফুর সরকারের ছেলে ফয়সাল আহমেদ রুনু।

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশি নওহাটা পৌরসভার বর্তমান মেয়র আলহাজ¦ শেখ মো. মকবুল হোসেন, বিএনপি নেতা রফিকুল ইসলাম রফিক, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি শরিফুর রহমান শরীফ ও বিএনপি নেতা মো. মামুনুর সরকার জেড।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র দলীয় মনোনয়ন শেষ পর্যন্ত কে পাচ্ছেন এ নিয়ে জল্পনা কল্পনা এখন তুঙ্গে। ২০০২ সালের ১৫ ডিসেম্বর নওহাটা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নওহাটা পৌরসভা প্রতিষ্ঠালাভ করে। রাজশাহী জেলার সর্ববৃহৎ এই প্রথম শ্রেণীর পৌরসভার আয়তন ৪৬ দশমিক ১০ বর্গকিলোমিটার। নারী ও পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৪৩ হাজারের কিছু বেশী।

তফসিল অনুযায়ী নওহাটা পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র উত্তোলন ও জমাদানের শেষ তারিখ ১৭ জানুয়ারী। এসব মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই হবে ১৯ জানুয়ারী এবং প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৬ জানুয়ারী। ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ভালোবাসা দিবসে ১৪ ফেব্রুয়ারি।

  • 225
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে