নওহাটায় তৃণমূলের সমর্থন পেলেন ছাত্রলীগ নেতা রুনু

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২, ২০২০; সময়: ১১:১২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর পবা উপজেলার নওহাটা পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী হিসেবে তৃণমূলের সমর্থন পেয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফায়সাল আহমেদ রুনু। মঙ্গলবার বর্ধিত সভার পর তৃণমূলের ভোটে তিনি মেয়র প্রার্থী হিসেবে সমর্থন পেয়েছেন।

তৃণমূলের এই ভোটে সাবেক মেয়র আব্দুল গফুলের ছেলে ফয়সাল আহমেদ রুনু ৩৫ ভোট, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল বারী খাঁন ২৩ ভোট, আওয়ামী লীগ নেতা হাফিজুর রহমান হাফিজ ১ ভোট পেয়েছেন। তবে মোস্তাফিজুর রহমান মানজাল ও সারওয়ার জাহান কোন ভোট পাননি।

তবে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা বানচাল করে প্রভাব খাটিয়ে এককভাবে এই তৃণমূলের এই ভোট করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল বারী খান। তিনি বলেন, মঙ্গলবার বিকেল চারটার দিকে নওহাটা মহিলা কলেজে পৌর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার কথা ছিলো। সভার এক পর্যায়ে প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূল ভোট গ্রহনের কথা তোলেন ফায়সাল আহমেদ রুনু। তবে পৌর নির্বাচনে প্রার্থীতা জানান দেওয়া ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন না। রুনুর এমন কথায় সভা বয়কট করে বের হয়ে আসি আমিসহ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নানসহ নেতাকর্মীরা।

আব্দুল বারী জানান, পৌরসভা আওয়ামী লীগের ৬৫ জন সদস্যের মধ্যে সভায় ৩৪ জন উপস্থিত ছিলেন। এরপর কলেজের গেট বন্ধ করে তৃণমূল নির্বাচন করেন। রুনু একক প্রভাব খাটিয়ে এ নির্বাচন করেছে। এছাড়াও তাকে ঘরবন্দী করে রাখা হয় এবং এক পর্যায়ে সে কৌশল খাটিয়ে বের হয়ে দ্রুত নওহাটা মহিলা কলেজ ত্যাগ করে।

সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান জানান, নওহাটা পৌরসভার আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা করার উদ্দেশ্যে সভার আয়োজন করি কিন্তু আসন্ন নওহাটা পৌরসভা নির্বাচনের তৃণমূল ভোট গ্রহনের কথা উঠলে আমি অসম্মতি জানিয়ে সভা থেকে চলে আসি। এছাড়াও পৌরসভা আওয়ামী লীগের কমিটিতে নাই এমন লোক ও ভোট দিয়েছে এবং অনেক ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এই ভোট বয়কট করেছে।

মুস্তাফিজুর রহমান মানজাল জানান, নওহাটা পৌর আওয়ামী লীগের ৬৫ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটির মধ্যে ১১ জন মারা গেছেন এবং ১৫ জন অনুপস্থিত ছিলেন; তাহলে কিভাবে ভোটার সংখ্যা বৃদ্ধি পেল। এটা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে যে এটা একটি পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তৃণমূলের ভোট গ্রহণ করা হয়েছে।

ফায়সাল আহমেদ রুনু বলেন, পৌরসভা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী তৃণমূলের ভোটের মাধ্যমে প্রার্থী মনোনিত করা হয়েছে। এতে সর্বোচ্চ সংখ্যক পেয়ে নির্বাচিত হয়েছি; যার ফলাফল কেন্দ্রে পাঠানো হবে। তৃণমূলের সিদ্ধান্ত মূল্যায়ন করে আগামী পৌরসভা নির্বাচনে তাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে বলে আশা করেন তিনি।

  • 178
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে