বঞ্চিতদের অভিযোগে আটকে যাচ্ছে তৃণমূলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০; সময়: ৩:১২ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : আওয়ামী লীগের জেলা ও মহানগরের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে বাদপড়া ত্যাগী নেতাদের অভিযোগের পাল্লা দিন দিন ভারী হচ্ছে। তাদের অভিযোগ দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পর্যন্ত পৌঁছেছে। এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে নড়েচড়ে বসেছে কেন্দ্রীয় নেতারা। এ নিয়ে গত বুধবার সভাপতিমন্ডলীর বৈঠকেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা। তাই যাচাই-বাছাই না করে কোনো কমিটি অনুমোদন করবে না দলটি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট ৩১টি সাংগঠনিক জেলা সম্মেলন করেছে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে তৃণমূল নেতাদের দ্বন্দ্বে ১৭ জেলা পূর্ণাঙ্গ কমিটি এখনো জমা দিতে পারেনি। যে ১৪টি কমিটি জমা দিয়েছে সেগুলো নিয়েও বিভিন্ন অভিযোগ আসছে। একই জায়গায় দুটি কমিটি জমা দেওয়ারও নজির রয়েছে।

সম্মেলন হওয়া জেলাগুলোর মধ্যে রাজশাহী, কুষ্টিয়া, হবিগঞ্জ, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, ঠাকুরগাঁও, চট্টগ্রাম জেলা উত্তর, ঢাকা মহানগর উত্তর, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ, কুমিলস্না জেলা উত্তর, সিলেট জেলা ও সিলেট মহানগরসহ ১৪টি জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দেওয়া হয়েছে।

গত বছরের ৬ ডিসেম্বর রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব মেরাজ উদ্দিন মোল্লাহকে সভাপতি ও আবদুল ওয়াদুদ দারাকে সাধারণ সম্পাদক এবং লায়েব উদ্দিন লাবলু ও আয়েন উদ্দিন এমপিকে যুগ্ম সম্পাদক করে চার সদস্যের কমিটি ঘোষণা করেন। পরে এক মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রে জমা দিতে বলা হয়। প্রায় চার মাস আগে ৭৪ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রে জমা দেয়া হয়। কমিটিতে আগের কমিটির নেতৃস্থানীয় প্রায় ৩৫ জন নেতার নাম বাদ পড়ার বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। পদবঞ্চিতরা দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বরাবর দুটি অভিযোগ দিয়ে প্রস্তাবিত কমিটি অনুমোদন না করার দাবি জানান। দলের স্বার্থে প্রস্তাবিত কমিটি ভেঙে নতুন কমিটি গঠনেরও দাবি করেন তারা।

গত সোমবার ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটির খসড়া জমা দেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক। এতে নগরের ক্ষুব্ধ হন সিনিয়র নেতারা। তাদের অভিযোগ, কারও সঙ্গে পরামর্শ ছাড়াই পূর্ণাঙ্গ কমিটির খসড়া তৈরি করা হয়েছে। তাই সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল আনোয়ার বুধবার রাতে দলের দপ্তরে বিকল্প পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দিয়েছেন। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী ও দলের দপ্তরে তৃণমূলের কমিটি নিয়ে অংসখ্য অভিযোগ জমা পড়েছে। এসব অভিযোগে ক্ষুব্ধ দলের হাইকমান্ড।

এর প্রেক্ষিতে জেলা সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের জমা দেওয়া খসড়া কমিটি যাচাই-বাছাই করে কমিটি অনুমোদনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে আওয়ামী লীগ। জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে অনুপ্রবেশকারী, অর্থের বিনিময় কেউ ঢুকে পড়ল কিনা এবং দলের ত্যাগী নেতাদের কেউ বাদ পড়ল কিনা- এসব বিষয় খতিয়ে দেখতে নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসনিা।

দলীয় একটি সূত্র জানায়, গত বুধবার গণভবনে অনুষ্ঠিত দলের সভাপতিমন্ডলীর সভায় তৃণমূলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, যারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী ছিলেন তাদেরও কমিটিতে মূল্যায়ন করতে হবে। যারা প্রতিদ্বন্দ্বীদের বাদ দেবেন, প্রয়োজনে ওই কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি করে দেব। প্রতিদ্বন্দ্বিদের বাদ দিয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে শুধু নিজেদের পছন্দমতো লোক রাখলে সেই কমিটি অনুমোদন করা হবে না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন শেখ হাসিনা।

দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যেব কমিটি জমা হয়েছে, সেগুলো এখনই ঘোষণা করা হবে না। স্বজনপ্রীতি করে নিজেদের লোক দিয়ে কমিটি করা হয়েছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হবে। বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের অবশ্যই মূল্যায়ন করতে হবে।

এর আগে তৃণমূলের বিভিন্ন কমিটিতে বিতর্কিতরা জায়গা করে নেয়। দীর্ঘদিনে দলের ভেতর নিজস্ব বলয় তৈরি করে নিয়েছেন তারা। তাই তাদের বের করে দিতে হিমশিম খাচ্ছেন নেতারা। তাদের কারণে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীরা অনেকটাই কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন নির্বাচনে মনোনয়ন থেকে শুরু করে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজ ও ব্যবসায়-বাণিজ্য বেশিরভাগই তাদের নিয়ন্ত্রণে।

এবার পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে যাতে এমন কেউ না আসতে পারেন, তাই আগে থেকেই জেলা সভাপতি সাধারণ সম্পাদকদের সতর্ক করেছে আওয়ামী লীগ। কিন্তু নিজেদের বলয় ভারী করতে ত্যাগী ও প্রতিদ্বন্দ্বীদের বাদ দিয়ে কমিটি করার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে।

এদিকে, তিন দফায় সময় বৃদ্ধি করা হলেও স্থানীয় কোন্দলের কারণে পূর্ণাঙ্গ কমিটির খসড়াই করতে পারছে না অনেক জেলার নেতারা। সর্বশেষ আগামী বুধবারের মধ্যে পূর্ণঙ্গ কমিটির খসড়া জমা দেওয়ার সময় নির্ধারণ করে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। গত বুধবার গণভবনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর বৈঠক থেকে এই সময়সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

স্থানীয় সূত্রগুলো বলছে, সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, স্থানীয় এমপি-মন্ত্রী ও প্রভাবশালী নেতারা সবাই চান, নিজেদের বলয়ের লোকজনকে গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়ে আসতে। এ নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছতে না পাড়ায় এসব কমিটির খসড়া এখনো চূড়ান্ত করতে পারেনি বলে জানা গেছে।

  • 55
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • গনিপুরের মন্ডপে মন্ডপে উপহার নিয়ে আ.লীগ নেতা
  • রাজশাহী জেলা ছাত্রদলের দোয়া মাহফিল
  • তাহেরপুর পৌর আ’লীগের কার্যালয় উদ্বোধন
  • নওহাটায় নৌকার পক্ষে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী হাফিজের মোটরসাইকেল র‌্যালি
  • দুলুকে আহ্বায়ক করে বিএনপির নির্বাচন কমিটি
  • ধর্ষকদের জন্য আ’লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ : সেতুমন্ত্রী
  • বাগমারায় আগে ভাগেই নির্বাচনী মাঠে সম্ভাব্য প্রার্থীরা
  • ‘সড়কে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসছে’
  • ‘বিএনপি বেসামাল হয়ে মিথ্যাচার করছে’
  • পুরোনো কমিটি ভেঙ্গে ১১টি মহানগরে আহ্বায়ক কমিটি করবে বিএনপি
  • তর্জন-গর্জনই সার বিএনপির : কাদের
  • রাজশাহীর ২ নেতা কৃষক লীগের কেন্দ্রে স্থান পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন
  • মান্দায় নৌকার প্রার্থীর জয়
  • মান্দায় বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন
  • শাহজাদপুরে ৩টি ইউনিয়নে উপ-নির্বাচন
  • উপরে