রাজশাহী নগর কমিটি নিয়ে সক্রিয় আ.লীগ বিরোধী চক্র

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০; সময়: ৩:২৯ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : দলের হাইকমান্ড থেকে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রে জমা দিতে বলা হয়েছে। হাইকামান্ডের এই নির্দেশনা পেয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের আগেই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক চূড়ান্ত কমিটি প্রস্তুত করে কেন্দ্রে পাঠাবেন অনুমোদনের জন্য।

এদিকে, মহানগর কমিটিতে পদ পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন অনেক নেতাই। পাশাপাশি সক্রিয় হয়ে উঠেছে দলের ভিতরে ও বাইরে থাকা আওয়ামী লীগ বিরোধী শক্তি। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে হাইব্রিড ও অনুপ্রবেশকারিদের জায়গা দিতে কাজ করে যাচ্ছে ওই অপশক্তি। তারা দলের ত্যাগী নেতাদের বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সফল সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে পরিচিত আজিজুল আলম বেন্টু। পারিবারিক ঐতিহ্য ও রাজনৈতিক কর্মকান্ডের সুবাদে মহানগর আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে তার প্রতি সমর্থন রয়েছে। এবারো মহানগরের নতুন কমিটির একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ তিনি পাবেন। কিন্তু তাকে নতুন কমিটি থেকে বাদ দিতে অপপ্রচারে নেমেছেন আওয়ামী লীগ বিরোধী সেই অপশক্তি। তার বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

মহানগরীর কাশিয়াডাঙ্গা থানার হড়গ্রাম এলাকার একটি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান আজিজুল আলম বেন্টু ১৯৯২ সালে যুবলীগের সদস্য হয়ে রাজনীতিতে সক্রিয় হন। রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন তিনি। এর আগে তিনি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তার নেতৃত্বে মহানগরীর পশ্চিমাঞ্চলে শক্তিশালী হয় আওয়ামী লীগের রাজনীতি। এক সময় ওই অঞ্চলে আওয়ামী লীগের পক্ষে কথা বলার নেতা ছিলনা। ফলে রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার পর রাজনৈতিক মামলায় হয়রানি ও কারা নির্যাতিত হয়েছেন বেন্টু।

শহীদ পরিবারে সন্তান আজিজুল আলম বেন্টুর বড় ভাই রবিউল আলম বাবু আশির দশকে রাজশাহীর তুখোড় ছাত্রনেতা হিসেবে পরিচিত পান। বর্তমানে তিনি রাজশাহী জেলা কৃষক লীগের সভাপতি। আজিজুল আলম বেন্টুর বাবা রহুল আমিন সরকার জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের রাজনৈতিক সহকর্মী ছিলেন। তৎকালীন পবা থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। রাজশাহীতে আওয়ামী লীগের রাজনীতি প্রতিষ্ঠায় জনবল ও আর্থিক সহযোগিতা দেয়াসহ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন বেন্টুর বাবা রুহুল আমিন সরকার।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল আলম বেন্টু বলেন, মহানগরের পশ্চিমাঞ্চলে এক সময় আওয়ামী লীগের কথা বলার কেউ ছিল না। আমি রাজশাহীতে সক্রিয় হওয়ার পর এ অঞ্চলে আওয়ামী লীগের শক্ত ভিত গড়ে তুলি। এ জন্য আমাকে রাজনৈতিক মামলায় হয়রানি ও কারা নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। যে কারণে ২০১৪ সালের সম্মেলনে আমাকে মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক পদ দেয়া হয়।

আজিজুল আলম বেন্টু বলেন, সকল কমিটি গঠনের আগে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার করে থাকে দলের ভিতরে ও বাইরে থাকা আওয়ামী লীগ বিরোধী শক্তি। ওয়ার্ড থেকে শুরু করে মহানগর কমিটি গঠনের আগে তারা সক্রিয় হয়ে উঠে যাতে আমি যেন কোন পদ না পায়। কারণ তারা জানে আমি পদ পেলে দল আরও সংগঠিত ও শক্তিশালী হয়।

বেন্টু আরও বলেন, গত ১ মার্চ মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের আগে আমার বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার চালানো হয়েছে যাতে আমি সাধারণ সম্পাদক হতে না পরি। এখন মহানগরের পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। সাথে সাথে আমি যেন কোন পদ না পায় এ জন্য আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচারও শুরু করে দিয়েছে আওয়ামী লীগ বিরোধী সেই অপশক্তি।

  • 138
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • ২৫ বছর পর পাবনা-৪ আসন পুনরুদ্ধারের লড়াই বিএনপির, ধরে রাখতে একাট্টা আ.লীগ
  • ‘দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের বিরুদ্ধে কথা বলা মানে দুর্নীতিবাজদের সমর্থন করা’
  • মানবতার নেতা হয়ে পাশে থাকতে চান মেয়র পদ-প্রার্থী রুস্তম
  • ভেঙে যেতে পারে হেফাজত
  • খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে বিএনপি নোংরা রাজনীতি করছে : হানিফ
  • ভিপি নুরের বিরুদ্ধে অপহরণ-ধর্ষণ ও ডিজিটাল আইনে আরেক মামলা
  • ৩ জেলা ও ৯ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত
  • জেলা, উপজেলা ও ইউপিতে নৌকা পেলেন যারা
  • রাজশাহী আওয়ামী লীগে বাড়ছে অস্থিরতা
  • রাজশাহীতে ছাত্রদলের প্রাথমিক সদস্য ফরম বিতরণ
  • ফখরুলদের বক্তব্যে খালেদাকে কারাগারে পাঠানোর দাবি উঠতে পারে: তথ্যমন্ত্রী
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আ.লীগে সভাপতির পরিবারেই ৮ পদ (তালিকাসহ)
  • তৃণমূলে আ.লীগের পাঁচ সাংগঠনিক নির্দেশনা
  • রাজশাহীতে ঘুরে দাঁড়াতে চায় জাতীয় পার্টি
  • সব পৌরসভায় প্রার্থী দিবে জাতীয় পার্টি
  • উপরে