ইফতার রাজনীতি ঘিরে দল গোছাবে বিএনপি

প্রকাশিত: মে ৭, ২০১৯; সময়: ১২:০৮ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : একাদশ সংসদে যোগ দেয়া নিয়ে তুমুল বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে বিএনপিতে। জ্যেষ্ঠ নেতাদের মধ্যে চলছে দোষারোপের রাজনীতি। তৃণমূল নেতারাও প্রকাশ্যে ফেসবুকে কিংবা দলীয় ফোরামে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। এ বিভাজন অনেকটাই ওপেন সিক্রেট। এ নিয়ে বিব্রত দলের হাইকমান্ড। এ বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সামাল দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। নেতায় নেতায় দূরত্ব ও সাংগঠনিক দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে রমজান মাসকে সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাতে চায় বিএনপি।

রমজানে এবার ঘরোয়া রাজনীতিতে সক্রিয় থাকবে এক দশকেরও বেশি সময় ক্ষমতার রাজনীতির বাইরে থাকা বিএনপি। পাশাপাশি দল গোছানোরও কাজ করবে। ইতিমধ্যে তৃণমূল নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখতে স্থানীয় নেতাদের ইফতার মাহফিলের আয়োজন করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তবে এ বছর কেন্দ্রীয়ভাবে সীমিতভাবে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। বিএনপির একাধিক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বিগত বছরগুলোতে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া পাঁচটি ইফতার মাহফিলের আয়োজন করতেন। কিন্তু তিনি কারাগারে থাকায় এবার দুটি ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেছে দলটি।

মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের সিনিয়র নেতারা ইফতার মাহফিলে যোগ দেবেন। এর মধ্যে পহেলা রমজান আলেম-ওলামা ও এতিমদের সঙ্গে এবং ১৪ মে কূটনীতিকদের সম্মানে রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। বিএনপির অঙ্গদলগুলো নিজেদের মতো করে ইফতার কর্মসূচি পালন করবে।

বিএনপির নীতিনির্ধারকরা জানান, পুরো রমজান মাস তারা ঘরোয়া রাজনীতিতে সক্রিয় থাকবেন। দল পুনর্গঠনও অব্যাহত থাকবে। তারা রমজানে তৃণমূল নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখার উদ্যোগ নিয়েছেন। এ জন্য স্থানীয় নেতাদের নানা নির্দেশনাও দিয়েছেন।

স্থানীয় পর্যায়ে ওয়ার্ড থেকে শুরু করে ইউনিয়ন, থানাসহ বিভিন্ন স্তরে পৃথকভাবে ইফতার মাহফিল আয়োজন করা হবে। যাতে করে নেতাকর্মীরা আরও কাছাকাছি হওয়ার সুযোগ পান। এ ছাড়া যেসব নেতা গ্রেফতারের ভয়ে আত্মগোপনে রয়েছেন তারাও প্রকাশ্যে আসতে পারেন।

জানতে চাইলে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যুগান্তরকে বলেন, গত বছরের মতো এবারও কেন্দ্রীয়ভাবে হয়তো বেশি ইফতার পার্টি হবে না। তবে তৃণমূলের স্থানীয় নেতারা নিজ উদ্যোগে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করবেন। এ ছাড়া রমজান মাসে দলের সাংগঠনিক জেলা শাখাসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে বৈঠক অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

৩০ মে দলের প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী। এ উপলক্ষে রমজানের ১৫ দিন নানা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে দলটি। সূত্র জানায়, দলের সাংগঠনিক দিবস হিসেবে ‘জিয়াউর রহমান দিবস’ পালন করবে বিএনপি।

এ জন্য ১৬ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত সারা দেশে বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। শিগগিরই যৌথসভা ডেকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এসব কর্মসূচি বিস্তারিতভাবে জানানোর কথা রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে