‘প্রয়াস’ চাঁপাইনবাবগঞ্জের গৌরব, নয়নের মণি হয়ে থাকুক দশ ও দেশের প্রাণে

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৯, ২০১৯; সময়: ৫:১৯ pm |
খবর > মতামত

ডি এম কপোত নবী : চাঁপাইনবাবগঞ্জে বেসরকারি যে কয়টা উন্নয়ন সংস্থা রয়েছে তার মধ্যে বর্তমানে প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি অন্যতম। গুটি গুটি পায়ে এগিয়ে চলা এ প্রতিষ্ঠানটি ২৪ বছর পার করে ২৫ বছরে পা দিল গত ১৯ ডিসেম্বর। সমাজের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী তথা খেটে খাওয়া অবহেলিত মানুষের আশার আলোর নাম প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি। শুরু থেকেই অসহায় মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। ‘দশে মিলে করি কাজ হারি জিতি নাহি লাজ’ একা কারো পক্ষে তো আর কোন কিছু করা সম্ভব নয়, কারো না কারো সগযোগিতা লাগে। আর প্রয়াস এ-ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেন। তাঁর হাত ধরেই প্রতিষ্ঠানটি শিশু থেকে আজ যুবক হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি ১৯৯৩ সালের ১৯ ডিসেম্বর ছোট পরিসরে যাত্রা শুরু করে দীর্ঘ ২৪ বছর পার করে আজ ২৫ বছরে পা দিল। জন্ম বার্ষিকীতে তেমন কোন আয়োজন না থাকলেও ঘরোয়াভাবে এ দিন প্রয়াসের কর্মীরা স্বউদ্যোগে মঙ্গলবার সকালে প্রয়াসের নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেনের অফিস কক্ষে কেক কেটে ও ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে জন্মদিন পালন করেছেন। এমন আয়োজন কোন কোন শাখা অফিসেও পালন করা হয়েছে।

দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে একটি বিশেষ সাংগঠনিক কাঠামোর আওতায় এনে সঞ্চয় ও ক্ষুদ্র ঋণ কর্মসূচির মাধ্যমে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অর্থনৈতিক কার্যক্রম গড়ে তোলার সুযোগ সৃষ্টি করা এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচনে সহযোগিতা করার লক্ষ্যে কাজ করে চলেছে প্রয়াস। বর্তমানে ৩ টি জেলা ও ৭ টি উপজেলায় ৩৯ টি শাখার মাধ্যমে ক্ষুদ্রঋণ সুবিধার পাশাপাশি ১০/১২ টি বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়ন ভিত্তিক প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে প্রয়াস। এ ছাড়া প্রয়াসের উদ্যোগে পরিচালিত হচ্ছে কমিউনিটি রেডিও “রেডিও মহানন্দা ৯৮.৮ এফএম”।

প্রতিষ্ঠানটিতে প্রায় ১২ বছর ধরে কাজ করছেন ইশরাত জাহান। তিনি বর্তমানে মানবসম্পদ ও প্রশাসন বিভাগের ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন, তিনি জন্মদিনে প্রয়াসের দীর্ঘায়ু কামনা করে বলেন-প্রয়াস আমার একটা পরিবার। এখানে কাজ করতে পেরে সত্যি আমি গর্বিত। যতদিন আছি প্রয়াসেই কাজ করে যেতে চাই। কারণ, অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে হয়তো এত সুযোগ সুবিধা পেতাম না। আমি প্রয়াসের দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

প্রয়াসের সহকারী কর্মসুচি ব্যবস্থাপক ফিরোজ আলম বলেন, চার বছর ধরে কাজ করছি প্রয়াসে। এটি আমাদের একটি পরিবার। এর পরিধি যেন আমরা পুরো বাংলাদেশে ছড়িয়ে দিতে পারি, সেইলক্ষে কাজ করছি।
সদ্য যোগদানকৃত আমিনুল ইসলাম, তিনি ৩ মাস আগে সিনিয়র ম্যানেজার হিসেবে প্রয়াসে যোগদান করেন। তিনি বলেন জন্মদিনের এই দিনে থাকতে পেরে খুব ভালো লাগছে।

প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির উদ্যোগে পরিচালিত রেডিও মহানন্দা। রেডিও মহানন্দার স্টেশন ম্যানেজার আলেয়া ফেরদৌস প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর এ ক্ষণে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, শুরু থেকে অনেক চড়াই উতরাই পার করে আজ এইখানে পৌঁছেছে প্রয়াস। এসময় তিনি প্রয়াসের নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেনের নেতৃত্বকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন-আজকের এই দিনে যার জন্য প্রয়াসের এত সুনাম, যার হাত ধরেই চাঁপাইনবাগঞ্জে জন্ম হয়েছে প্রয়াসের, পরিচিতি লাভ করেছে সবখানে সেটা হাসিব হোসেনের জন্যে।

জুনিয়ার অফিসার শাহরিয়ার হোসেন এক বছর আগে যোগদান করেন প্রয়াসে। তিনি বলেন, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির কাজ সর্বদা স্বচ্ছ ও জবাব দিহিতা মূলক। সে কারণে কাজ ছোট হোক আর বড় হোক আমরা সব কাজকেই সমানভাবে গুরুত্ব দিই। আমি এখানে কাজ করে গর্বিত। অনেক কিছু শিখতে পারছি এখান থেকে। আমি প্রয়াসের দির্ঘায়ু কামনা করছি।

প্রয়াসের নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেনের কাছে ২৫ বছরের প্রয়াস সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আজ আমি কোন কিছুই বলতে চাই না, আমিতো সবসময়ই কথা বলি, আজ আমার সহকর্মীদের কথা বেশি করে শুনুন।”

প্রয়াসের জ্যেষ্ঠ উপ পরিচালক নাসির উদ্দীন সজল বলেন, এরকম একজন দক্ষ ব্যক্তিত্বকে পেয়ে আমরা খুব খুশি, তিনি সবসময় বটবৃক্ষের মত আমাদের সাথে ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। শুধু দরিদ্র জনগোষ্ঠী নয়-পিছিয়ে পড়া নারীদের এগিয়ে নিতে তাদের সাবলম্বী করছে প্রয়াস। সমাজের জন্য ও মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবে প্রয়াস এই প্রত্যাশা সকলের।

প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি বর্তমানে ভিক্ষুকদের পুনরর্বাসনে কাজ করছে। কাজ করছে বাল্যবিবাহ নিরসনেও। সদস্যদের প্রশিক্ষণ দিয়ে স্বাবলম্বী করে তুলেছে এবং তুলছে প্রয়াস।

কৃষকদের মাঝে সার বীজ বিতরণ করছে বিনামূল্যে। মৎস্য চাষীদের মাঝে মাছের পোনাও বিতরণ করছে তারা। পশুপাখির জন্য রয়েছে প্রাণিসম্পদ ইউনিট। তারা গবাদিপশুর রোগবালাই দমনে নানা রকম পরামর্শ দিয়ে থাকেন। প্রয়াস অবহেলিত মানুষের চোখের আলো ফিরিয়ে দিতে কাজ করে চলেছে। চোখের ছানি অপারেশন বিনামূল্যে করে দিচ্ছে প্রয়াস। সাধারণ মানুষকে সেবা দেয়ার লক্ষে ইতোমধ্যে শহরের শান্তি মোড়ে প্রয়াস হেলথ কেয়ার নামে স্বাস্থ্য-চিকিৎসা বিষয়ক কার্যক্রম করেছে। এখানে কম মূল্যে স্বাস্থ্যসেবা পাওয়া যাচ্ছে। প্রয়াসের রয়েছে একঝাঁক উদ্যোমি কর্মী। তাদের হাত ধরেই ঠাঁকুর যৌবনে গড়ে উঠেছে বিশাল ব্ল্যাক বেঙ্গল খামার। সেখানেও অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে।

প্রয়াসের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে রয়েছে প্রয়াস ফোক থিয়েটার ইনস্টিটিউট। জেলার হারিয়ে যাওয়া লোকসংস্কৃতি ধরে রেখেছে প্রতিষ্ঠানটি। গম্ভীরার জন্য তারা নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছেন।

হাজার গুণে গুণান্বিত প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি। জেলা থেকে পুরো বাংলাদেশের আনাচে কানাচে প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির কার্যক্রম ছড়িয়ে পড়–ক প্রয়াসের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে এই কামনা করছি। প্রতিটি সাধারণ মানুষের নয়নমণি হয়ে থাকুক প্রয়াস।

লেখক : গণমাধ্যমকর্মী

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে