হাত খরচের টাকা বাচিয়ে ‘বাঘা রয়েল বেঙ্গল ক্লাবের’ ঈদ উপহার বিতরণ

প্রকাশিত: ২২-০৫-২০২০, সময়: ২২:১৪ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : কেউ কলেজ, কেউ হাইস্কুলের ছাত্র। তারা নিজেরা চলেন বাবা-মার টাকায়। পড়ালেখার পাশাপাশি তাদের ঝোঁক খেলা ধুলার। সুযোগ বুঝে নিজেরাই আয়োজন করে টুর্নামেন্ট এর। হাত খরচের টাকা বাচিয়ে খেলাধুলার পাশাপাশি সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কথাও ভাবে তারা।

এমন চিন্তা থেকে এবার ঈদের হাত খরচের টাকা বাচিয়ে উপহার কেনেন তারা। সেগুলো বিতরণের জন্য বেঁছে নেন ইমাম-মোয়াজ্জেম, অস্বচ্ছল পরিবারের খেলোয়ার, গ্রামের নিম্ন বিত্ত-মধ্যবিত্ত ও মৃত দুই সাংবাদিকের পরিবার। সব মিলিয়ে দে’শ পরিবারের প্রায় ৪শ’জনের ঈদের উপহার হিসেবে পোলাও চাল,ডাল, চিনি, সেমাই, সুজি ও দধের প্যাকেটটি নিজেরাই পৌঁছে দেন বাড়িতে বাড়িতে।

বিশিষ্ট সাংবাদিক আব্দুল লতিফ মিঞা, ছোটদের বড় কাজ, আরো বেগবান হোক এই আশাবাদ ব্যক্ত করে উপহার সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেণ। উপস্থিত ছিলেন প্রভাষক আব্দুল হানিফ মিঞা ও সংগঠনটির সদস্য আবু ওবাইদা সেতু, বাপ্পি, ডলারসহ সদস্যগণ। করোনা মহামারীর মধ্যেও নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে এ উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছেন তারা।

শুক্রবার (২২ মে) বিকেল থেকে তারা ওইসব মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হাজির হয় ঈদের উপহার নিয়ে। এরা হলো- “বাঘা রয়েল বেঙ্গল ক্লাব”এর সদস্যরা।‘সত্যের সাথে,আগামীর পথে’ এমন শ্লোগান নিয়ে ২০১২ সালে উপজেলার বাজুবাঘা (উত্তর ) গ্রামে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ৮জন সদস্য নিয়ে যাত্রা শুরু করে “বাঘা রয়েল বেঙ্গল ক্লাব”। বর্তমানে যার সদস্য সংখ্যা ৪২ জন।

সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য কলেজ পড়ুয়া আবু ওবাইদা সেতু জানায়, এলাকার বড়দের উৎসাহ আর সহয়োগিতায় তাদের পথচলা। ৪২ জন সদস্যর মধ্যে অসচ্ছল পরিবারের ছেলেরাও আছে।

পড়ালেখা আর খেলা ধুলা ছাড়া অন্য কোন নেশা নেই। এমনকি অসুখ হওয়ার ভয়ে বাজারের মুখরোচক জিনিষ ও কিনে খাই না অনেকেই। তাই বাবা-মার দেওয়া খরচের টাকা বাঁচিয়ে এসব কাজে ব্যয় করেন। বাড়তি প্রয়োজনে এলাকার বড়দের কাছে সহযোগিতা নেন। কেউ কেউ আছেন অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করতে না পারলেও আমাদের উৎসাহিত করে প্রতিষ্ঠিত করার নিরন্তর সাহস যুগিয়েছেন। তারা চাননি নিজেদের অবস্থান বড় করতে।

মিলন নামের অপর এক সদস্য জানায়, তবে বিস্ময়কর অবস্থা হলো নিজেরা খেলার মাঠ না পেয়ে,বাগান কিংবা মাঠের ফাঁকা জায়গা খেলা ধুলা করে। এজন্য সংস্থার সব সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন এলাকার সুধীজন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে