বাড্ডায় তিন ভাইকে ছুরিকাঘাতের নেপথ্যের কারণ

প্রকাশিত: এপ্রিল ২১, ২০২২; সময়: ১০:২০ am |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : দোকানের সামনে বালু রাখা নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে দোকানের মালিককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে ভাড়াটিয়া মুদি ব্যবসায়ী। এ সময় এলোপাথারি ছুরিকাঘাতে আহত হন মালিকের অপর দুই ভাই। রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় ঘটেছে এমন নৃশংস ঘটনা।

তিন ভাই মিলে সংসারের রোজগারের জন্য দোকান লিজ নিয়ে ভাড়া দিয়েছিলেন অন্য এক মুদি ব্যবসায়ীর কাছে। ছাদের ঢালাই কাজের জন্য ভাড়াটিয়ার দোকানের সামনে রেখেছিলেন বালু। আর এ বালু রাখাই হলো কাল।

তুচ্ছ এ ঘটনা নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। ঘটনার এক পর্যায়ে ভাড়াটিয়া দোকানিরা চোখে মরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে মাটিতে ফেলে দেয় মালিক তিন ভাইকে। এরপর দোকানের কাচি ও ছুড়ি দিয়ে এলোপাথারি আঘাত করে তিনজনকেই জখম করে তারা। হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান সাইফুল।

বুধবার (২০ এপ্রিল) বিকেলে রাজধানীর বাড্ডা সাতারকুল এলাকার রহমতউল্লাহ গার্মেন্টসের সামনে ঘটে এ নৃশংস ঘটনা। এলাকাবাসীর কাছে প্রিয় ছিলেন এ তিন ভাই। এমন ঘটনায় হতভম্ব তারাও।

একজন এলাকাবাসী বলেন, দোকানের সামনের কাস্টমার যারা উপস্থিত ছিল তারা ধরে ঠেকানোর চেষ্টা করেছিল। এক মিনিটের মধ্যে এ ঘটনাটি ঘটে গেছে।

আরেক এলাকাবাসী বলেন, মরিচের গুঁড়া তাদের চোখে মারে। তারা তিন ভাই কখনো কোনো কাস্টমারের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতো না।

এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্বজনরা। স্বজনরা বলেন, যারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তাদের দেখে সন্ত্রাসী মনে হয়। আমি তাদের ফাঁসির বিচার চাই। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগতভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, উত্তেজিত হয়ে এক পর্যায়ে আবুল খায়ের তার দোকান থেকে একটি কাচি নিয়ে এসে সাফুলকে আঘাত করে। সাইফুলকে বাঁচাতে গিয়ে তার দুই ভাই বাবু ও শাবুও আঘাতপ্রাপ্ত হন। হাসপাতালে নেওয়ার পথে সাইফুলের মৃত্যু হয়।

অভিযুক্ত আবুল খায়ের, তার ভাই সামিউল ও বাবাকে আটক করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে