ওমিক্রণ নিয়ন্ত্রনে সরকারকে সর্তক ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান রাষ্ট্রপতির

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৬, ২০২২; সময়: ৮:৫১ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ওমিক্রণ ছড়িয়ে পড়ার আগে সর্তকতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ।

রবিবার সংসদে দেওয়া ভাষণে এই আহ্বান জানান তিনি। এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বছরের প্রথম ও শীতকালীন অধিবেশন শুরু হয়।

মহামারি করোনা সংক্রমণে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, সরকারের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে পৃথিবীর অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ এবং সংক্রমণজনিত মৃত্যুর হার অপেক্ষাকৃত কম। প্রধানমন্ত্রীর সাহসী, দূরদর্শী নেতৃত্ব ও অনুপ্রেরণায় আমরা এখন পর্যন্ত করোনা এবং এর অভিঘাত সফলভাবে মোকাবিলা করে যাচ্ছি। তবে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন যাতে আমাদের দেশে সংক্রমণ ছড়াতে না পারে সেজন্য সরকারকে সতর্কতা অবলম্বনসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ বলেন, ওমিক্রণ ছড়িয়ে পড়ার আগে সরকারকে সর্তকতা মূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। ইতিমধ্যে ৭ কোটি মানুষকে টিকা দেয়া হয়েছে। শীঘ্রই সব মানুষকে টিকার আওতায় আসবে বলে প্রত্যাশার কথা বলেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, জনগণই সব ক্ষমতার উৎস এবং তাদের সব প্রত্যাশার কেন্দ্রবিন্দু জাতীয় সংসদ। জনপ্রতিনিধি হিসেবে জনস্বার্থকে সবকিছুর ঊর্ধ্বে স্থান দিতে হবে। আমি সরকারি দল ও বিরোধী দলের সব সংসদ সদস্যকে এ মহান জাতীয় সংসদে যথাযথ ও কার্যকর ভূমিকা পালনের আহ্বান জানাই।

রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ আরও বলেন, গত দেড় দশকে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। এজন্য সরকারি অর্থের অপব্যবহার রোধপূর্বক প্রকল্প সংশ্লিষ্ট সব বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রকল্প বাস্তবায়ন শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে। সর্বোপরি সরকারি সব কার্যক্রমে জনগণের যথাযথ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিমূলক সুশাসন প্রতিষ্ঠা করে গণতন্ত্রকে অধিক কার্যকর করতে হবে।

এসময় সন্ত্রাস, মাদক, দুর্নীতি ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে দেশের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে