করোনার সব পরীক্ষা বন্ধ যেসব ডায়াগনস্টিক সেন্টারে

প্রকাশিত: জুন ১৮, ২০২১; সময়: ৯:২২ pm |
খবর > জাতীয়

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : বিদেশগামী করোনার পজিটিভ রিপোর্টকে নেগেটিভ বানানো, কম সংখ্যক কিট দিয়ে বেশি করোনার নমুনা পরীক্ষা করানো, মাইক্রোবাইলোজিস্ট না থাকাসহ নানা অভিযোগে রাজধানীর মালিবাগের প্রাইম ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সব ধরনের করোনার পরীক্ষা বন্ধ করে দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

করোনার নমুনা না দিয়েও কীভাবে বিদেশগামী যাত্রীদের রিপোর্ট নেগেটিভ করা হচ্ছে। আইনশৃংঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা গ্রেপ্তার করে কয়েকজন দালালকে। নড়ে চড়ে বসে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরও। অভিযান শুরু হয় বিভিন্ন ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারে।

করোনার ভুয়া রিপোর্ট তৈরিসহ নানা অভিযোগে সিএসবিএফ হেলথ সেন্টার, স্টিমজ হেলথ কেয়ার, আল জামী ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং মেডিনোভা মেডিক্যাল সার্ভিসেস লিমিটেডের মিরপুর শাখাকে নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষা বন্ধ রাখারও নির্দেশনা দেওয়া হয়।

এবার সেই তালিকায় যোগ হয়েছে মালিবাগের প্রাইম ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নাম। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা আরটিপিসিআর কিট কিনেছে ৭ হাজার দুইশোটি, কিন্তু পরীক্ষা করেছে ১৬ হাজার ১৭৫ টি। তাদের কোন মাইক্রোবাইলোজিস্ট নেই। অদক্ষ টেকনিশিয়ান দিয়ে ল্যাব পরিচালনা, পাসপোর্ট যাচাই-বাছায় না করে ডাটা এন্ট্রি দেয়া। করোনার পজেটিভ রিপোর্টকে নেগেটিভ করা। এসব অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটিকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত সব ধরণের করোনার নমুনা পরীক্ষা বন্ধ করে দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. ফরিদ হোসেন মিয়া জানান, প্রাইম ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিলো যে, সে একজন বিদেশগামীর করোনা পজেটিভকে নেগেটিভ করছে। একটা কিট দিয়ে দুটি পরীক্ষা করেছে। মাইক্রো বায়োলজিস্ট থাকার কথা, সেখানে কোন মাইক্রোবায়োলজিস্ট নাই।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখার পরিচালক জানান, এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে